বান্দরবানে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের আত্মপ্রকাশ

পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য প্রধানমন্ত্রী ও পার্বত্যমন্ত্রীকে সহযোগিতার আশ্বাস

fec-image

পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত নিপীড়িত ও বঞ্চিত মানুষের স্বার্থ রক্ষার প্রতিশ্রতি নিয়ে বান্দরবানে ‘পার্বত্য নাগরিক পরিষদ’ এর আত্মপ্রকাশ হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) সকালে কয়েক শতাধিক নারী-পুরুষ নিয়ে বান্দরবানে সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে এর আত্মপ্রকাশ ঘটে।

সংবাদ সম্মেলনে আয়োজকরা পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত পাহাড়ি-বাঙালি নির্বিশেষে সকল নিপীড়িত ও বঞ্চিত মানুষের জন্য কাজ করার প্রতিশ্রুতির কথা উল্লেখ করে বলেন- ১৯৯৭সালে ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি’ করা হলেও চুক্তির শর্ত ভঙ্গ করে এখনো পাহাড়ে সশস্ত্র তৎপরতা চালাচ্ছে সন্ত্রাসীরা। পাশাপাশি চাঁদাবাজির টাকায় অস্ত্রের ভাণ্ডার সমৃদ্ধ করছে। একটি জনসংহতি সমিতি ভেঙ্গে বর্তমানে চারটি উপজাতীয় আঞ্চলিক সন্ত্রাসী সংগঠনের জন্ম হয়েছে। পাহাড়ী সন্ত্রাসীরা দেশপ্রেমিক নিরাপত্তা বাহিনীর নামেও নানা রকম ষড়যন্ত্র ও অপবাদ দিয়ে পাহাড়ের পরিস্থিতি ঘোলাটে করতে তৎপর রয়েছে।

তারা বলেন, সন্ত্রাসীদের চাঁদাবাজির কারণে সবুজ পাহাড়ে প্রতিনিয়ত ঝরছে রক্ত। খুনের পাশাপাশি ব্যবসা-বাণিজ্য, পর্যটন শিল্প ও কৃষি খাতসহ উন্নয়ন স্থবির হয়ে পড়েছে। এই অবস্থায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামে আন্দোলনরত সংগঠনগুলোর মধ্যে পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ, পার্বত্য চট্টগ্রাম সম-অধিকার আন্দোলন, পার্বত্য নাগরিক পরিষদ, পার্বত্য অধিকার ফোরামসহ অন্যন্য সংগঠনের কার্যক্রম বিলুপ্ত করার মাধ্যমে পাহাড়ি-বাঙালি মানুষের সাথে এক ও অভিন্ন লক্ষ্যে ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ’ সংগঠনের ঘোষণা করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের পক্ষে মো: নাছির উদ্দিন। সংবাদ সম্মেলনের পরে বঙ্গবন্ধু মুক্তি মঞ্চের সামনে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বান্দরবান পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ নেতা কাজী মুজিবুর রহমান, আলীকদম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: আবুল কালাম, নারী ভাইস চেয়ারম্যান শিরিন আক্তার, মো: নাছির উদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান।

এ সময় মানববন্ধনে কাজী মুজিবুর রহমান বলেন- পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পার্বত্যমন্ত্রী বীর বাহাদুরসহ সকলকে সহযোগিতার জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ প্রস্তুত রয়েছে। পাহাড়িদের উন্নয়ন বাঙালিরাও চায় উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন- সরকারি চাকুরীর ক্ষেত্রে বাঙালিদের সমঅধিকার দিতে হবে।

ভূমি কমিশনে বাঙ্গালী সদস্য নিযুক্তসহ বিভিন্ন দাবি দাওয়া তুলে ধরেন আওয়ামী লীগের সাবেক এই নেতা।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: পার্বত্য চট্টগ্রাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × 3 =

আরও পড়ুন