পুলিশকে হামলা করে আসামি ছিনতাই করার ঘটনায় ১২৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা

fec-image

কক্সবাজারের পেকুয়ার মগনামায় মসজিদের মাইকে পুলিশকে ডাকাত ঘোষণা দিয়ে পুলিশের উপর সংঘবদ্ধ হামলা ও আটককৃত আসামীকে ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনায় মামলা রুজু করেছে থানা পুলিশ।

২৫ আগস্ট (বুধবার) সকালে পেকুয়া থানার এসআই মো. খায়ের উদ্দিন ভূঁইয়া বাদী হয়ে মগনামা মহুরী পাড়া এলাকার বাসিন্দা মৃত ছদর উদ্দিনের পুত্র ও পেকুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মমতাজুল ইসলামকে প্রধান আসামি করে ৩৩ জনের নাম উল্লেখসহ আরো ৮০/৯০জনকে অজ্ঞাতনামা করে মামলাটি রুজু করেন ওসি মো. সাইফুর রহমান মজুমদার।

মামলার এহাজার সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ আগস্ট মঙ্গলবার সকালে মগনামা ইউপির চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিমের ভাই এনায়েত উল্লাহ ও মামাতো ভাই আরফাতকে মারধর করে গুরুতর আহত করে মমতাজসহ সংঘবদ্ধ একদল সন্ত্রাসী।

এঘটনায় পুলিশ অবগত হয়ে তাৎক্ষনিকভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে মাঠে নেমে জানতে পারে হামলাকারীরা মহুরী পাড়ায় অবস্থান করছে। ওসি তদন্ত কানন সরকার ও এসআই মোঃ খায়ের উদ্দিন ভূঁইয়ার নেতৃত্বে মহুরী পাড়ার ভিতরে গিয়ে ঘটনায় জড়িত নাছির উদ্দিন প্রকাশ বাদশা নামে একজনকে গ্রেফতার করে মহুরী পাড়া স্টেশনে আসা মাত্রই সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসীরা মসজিদের মাইকে পুলিশকে ডাকাত এসেছে এমন ঘোষণা করলে এজাহারনামীয়সহ অজ্ঞাতনামা আসামীরা পুলিশের উপর হামলা চালিয়ে তিন পুলিশ সদস্যকে আহত করে গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিকে ছিনিয়ে নেয়। এসময় তাঁরা পুলিশের হাত থেকে অস্ত্র কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ ৫ রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে হামলাকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এসময় নাজু নামে একজনকে ঘটনাস্থল থেকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ তাদের নিরাপত্তার জন্য মামলাটি রুজু করেন।

এদিকে ওই মামলায় আসামি করা হয়েছে ওই এলাকার বাসিন্দা ও মগনামা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সাংবাদিক মোহাম্মদ হাসেমের ক্যান্সার আক্রান্ত ভাই ছাদেক, স্ত্রী এবং স্কুল কলেজ পড়ুয়া দুই ছাত্র আরিফ ও আরমানকে। সাংবাদিক হাসেমের ভাই ছাদেক চট্টগ্রামে চিকিৎসারত আছেন তারপরও আসামীর তালিকা থেকে বাদ যায়নি তার নাম।

উক্ত মামলা সুষ্ঠু নিরপেক্ষ তদন্ত করার দাবি জানান এবং সত্য ঘটনা উদঘাটন ও আসল দোষীদেরকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ করেন সচেতনমহল। নিরীহ ব্যক্তিদেরকেও হয়রানি বন্ধের দাবি জানায় তাঁরা।

এ প্রসঙ্গে পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সাইফুর রহমান মজুমদার মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, থানা প্রশাসনের কাজ হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্তে কাজ করা। দ্রুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা। সেখানে গিয়ে যদি পুলিশ হামলার শিকার হয় তাহলে পুলিশ তার ব্যবস্থা নিবেই।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × 5 =

আরও পড়ুন