পেকুয়ায় সংবর্ধিত হলেন কারামুক্ত যুবলীগ নেতা জিকু

fec-image

কক্সবাজারের পেকুয়ায় সাধারণ জনগণ ও নেতাকর্মীদের ভালবাসায় সিক্ত হলেন কারামুক্ত বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ পেকুয়া উপজেলা শাখার সাবেক সহ-সভাপতি জিয়াবুল হক জিকু।

শুক্রবার (৮ জুলাই) বিকেলে উজানটিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম উজানটিয়া করিমদাদ মিয়া চৌধুরী স্টেশনে সংক্ষিপ্ত সংবর্ধনা সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় উজানটিয়াবাসীসহ সর্বস্তরের পেকুয়া উপজেলাবাসীর উদ্দেশ্যে দেওয়া বক্তব্যে যুবলীগের সাবেক এ নেতা বলেন, আমি ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছি। আমি অস্ত্রধারী নয়, একজন শিক্ষক। আমার অনেক ছাত্র কলেজ, ভার্সিটিতে পড়ালেখা শেষ করে উচ্চতর অবস্থানে পৌঁছেছে। আমার ছাত্ররা আজকে প্রশাসনসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছে। সে দিন আমার উপর যা হয়েছে তা আমাদের প্রতিপালকতো দেখেছেন। আমি মহান আল্লাহকে এর বিচার দিয়েছি। তিনি সবকিছুর মালিক ও প্রতিপালক এ কথা সবাইকে স্মরণ করতে হবে ও মানতে হবে। একটি ফাঁসানো কাল্পনিক ঘটনা মঞ্চস্থ করে বিশেষ বাহিনীকে ম্যানেজ করে আমাকে অস্ত্র দিয়ে ফাঁসানো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, দুপুরে আমাকে বাড়ি থেকে নিয়ে যাওয়া হয় নিরস্ত্র অবস্থায়। আর রাতে দেওয়া হয়েছে একটি অস্ত্র। আপনারা জনগণ এজাহার দেখলে বুঝতে পারবেন এ ঘটনা কতবড় জঘন্যতম ও পরিকল্পিতভাবে ফাঁসানো হয়েছে। আমাকে আটকের আগেই তারা অস্ত্রের জব্দ তালিকা তৈরী করে ফেলেছে। মামলা মোকদ্দমা দিয়ে বঙ্গবন্ধুর সৈনিকদের ভীত করা যায়না। কিছু খন্দকার মোস্তাক ও বেঈমানদের কাছে আজকে পেকুয়ার আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের নেতা-কর্মীরা নিষ্পেষিত হচ্ছে। আমাকে সম্মেলনের আগে পরিকল্পিতভাবে সরানো হয়েছে। উজানটিয়ার মানুষ বুঝে গেছে এখানে আমরা সাধারণ মানুষের পক্ষে রাজনীতি করি ও কথা বলি। আমি ও আমার পরিবারের মধ্যে বিন্দুমাত্রও ত্রুটি নেই। আমরা সবাই আওয়ামী লীগ করি। এ হচ্ছে আমাদের অপরাধ।

এ সময় বক্তব্যে উপজেলা আ.লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক, অবিভক্ত মগনামা ও উজানটিয়া ইউপি থেকে নির্বাচিত সাবেক মেম্বার সিরাজুল মোস্তফা জানান, দলীয় নেতা-কর্মীদের প্রতিবাদ ছিল বলে আজকে জিকু দ্রুত সময়ে আমাদের মাঝে ফিরে এসেছে। আমি আপনাদের কাছে ওয়াদা করছি যে কোন অবিচার ও জুলুমের বিরুদ্ধে জনগণের সাথে নিয়ে মোকাবেলা করবো। আগেও করেছি, এখনো করছি যতদিন বেঁচে থাকবো ততদিন মানুষের অধিকারের জন্য সংগ্রাম অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ।

তিনি আরও বলেন, আমি ব্যবসা-বাণিজ্যের ব্যস্ততার কারণে রাজনীতি থেকে একটু দূরে ছিলাম। কিন্তু এখন রাজনীতির নামে কতিপয় অসাধু আওয়ামী লীগ নেতাদের নেতিবাচক কর্মকাণ্ডের লাগাম টেনে ধরতে রাজনীতিতে সক্রিয় হয়েছি। এ সমস্ত বর্ণচোরা ও জনদুশমন নেতাদেরকে প্রতিরোধ করতে আপনাদের পাশে থাকার আহ্বান জানাচ্ছি। রাজনীতি করে আমার ও জিকুর চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই। আল্লাহ আমাদের অনেক দিয়েছে। সুতরাং দুঃসময়ে আপনাদের পাশে থাকার জন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ।

উপজেলা যুবলীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক জালাল উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত ওই সমাবেশ প্রত্যক্ষ করতে উজানটিয়া ইউনিয়নের বিপুল লোকজন ও ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় নেতা-কর্মীরা সমাবেশস্থলে জড়ো হন। এর আগে কারামুক্ত যুবলীগের এ নেতাকে বরণ করা হয়েছে।

চকরিয়া থেকে সড়কপথে জিয়াউল হক জিকুকে পেকুয়ার সীমান্তবর্তী বাঘগুজারা ব্রীজে অভ্যর্থনা জানানো হয়। এ সময় নেতা-কর্মীরা গাড়িবহর নিয়ে মাতামুুহুরী নদীর উপর নির্মিত সেতুতে অবস্থান নেয়। কয়েকশত মোটর বাইক নিয়েও যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা জিকুকে বরণ করতে শো-ডাউনে অংশগ্রহণ করেন। এ সময় জিকু পেকুয়ায় পৌঁছানোর মুহূর্তে স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত করা হয়। সেখান থেকে গাড়িবহর নিয়ে পেকুয়া কলেজ গেইট চৌমুহনী, কবির আহমদ চৌধুরী বাজার হয়ে সোনালি বাজার ও করিমদাদ মিয়া জেটিঘাট গিয়ে শো-ডাউনের সমাপ্তি হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, পেকুয়ার আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের অসংখ্য নেতা-কর্মী। এছাড়াও আরও উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাস্টার নেজাম উদ্দিন, উপজেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিরুল খোরশেদ, উপজেলা যুবলীগের সহসম্পাদক আবদুল করিম, মনছুর আলম প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: পেকুয়া, যুবলীগ
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × one =

আরও পড়ুন