প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ‘উপহার’ ঘর নির্মাণ প্রকল্প পরিদর্শনে প্রকল্প পরিচালক

fec-image

মুজিব জন্মশতবর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশব্যাপি ৬৬ হাজার ভূমি ও গৃহহীন পরিবারকে আধুনিক ডিজাইনে নির্মিত সেমি পাকা ঘর দিয়ে সমাজের ছিন্নমূল মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছেন। পার্বত্য খাগড়াছড়ি’র নয় উপজেলায় ৯৯১টি ভূমি ও গৃহহীন পরিবারে নির্মিত ঘরের সর্বশেষ অবস্থা দেখতে সরজমিন ঘুরে গেছেন ‘জাতীয় আশ্রয়ন প্রকল্পের’ প্রকল্প পরিচালক ড. একেএম. অলি উল্ল্যাহ।

জাতির পিতা বঙ্গন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশব্যাপি ৬৬ হাজার ভূমি ও গৃহহীন পরিবারকে নিজস্ব ভূমি ও আধুনিক ডিজাইনে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ‘উপহার’ ঘরে মাথা গোঁজার ঠাই দিতে পুরোদমে নির্মাণ কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আর এসব ঘর নির্মাণ কাজের সর্বশেষ অবস্থা সরজমিনে দেখতে মাঠ পর্যায়ে চষে বেড়াচ্ছেন ‘জাতীয় আশ্রয়ন প্রকল্পের’ প্রকল্প পরিচালক ড. এ.কে.এম. অলি উল্ল্যাহ।

তিনি গত ১১-১৩ মার্চ খাগড়াছড়ি সফর করেছেন। এ সময় তিনি জেলার বিভিন্ন উপজেলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভূমি ও গৃহহীন পরিবারের জন্য নির্মিত ঘরের সর্বশেষ অবস্থা ঘুরে দেখছেন। প্রকল্প পরিদর্শনের শেষ দিন ১৩ মার্চ প্রকল্প পরিচালক ও মানিকছড়ি উপজেলার সাবেক উপজেলা নির্বাহী অফিসার ড. একেএম. অলি উল্ল্যাহ মানিকছড়ি আসেন এবং ওনার উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত মানিকছড়ি ইংলিশ স্কুল ও বড় ডলু উচ্চ বিদ্যালয়সহ আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘর পরিদর্শন করেন।

এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার তামান্না মাহমুদ, সহকারী কমিশনার(ভূমি) রিফাত আসমা, ইউপি ছেযারম্যান মো. শফিকুর রহমান ফারুক, দুপ্রক সভাপতি মো. আতিউল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান এমকে.আজাদ, ইউপি সচিব মো. মোশারফ হোসেন, প্রধান শিক্ষক মো. বশির আহম্মদ, প্রিন্সিপাল মো. গোলাম রসুল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। প্রকল্প পরিচালক ড. একেএম. অলি উল্ল্যাাহকে কাছে পেয়ে প্রতিষ্ঠান প্রধানগণ ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত করেন।

এদিকে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, জেলার ৯টি উপজেলায় ৯৬৮টি গৃহহীন পরিবারের মধ্যে গৃহ নির্মাণে বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এছাড়া করোনাকালে জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব একটি, এডমিনিস্ট্রেশন এসোসিয়েশন দুইটি, বিদেশে দায়িত্ব নিয়োজিত খাগড়াছড়ি জেলার বাসিন্দা এক রাষ্ট্রদূত একটি এবং ৯ উপজেলার ৯ জন চেয়ারম্যান দুইটি করে ঘর নির্মাণসহ সব মিলিয়ে জেলার ৯৯১টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও মাথা গোঁজার ঠিকানা পাচ্ছেন এই মুজিব জন্মশতবর্ষে এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ২৬ মার্চে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 + 13 =

আরও পড়ুন