বলিউডের মাদকযোগ : এনসিবি-র জেরার মুখে দীপিকা-শ্রদ্ধা-সারা

fec-image

বলিউডের মাদকযোগে এবার নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর (এনসিবি) দফতরে জেরার মুখোমুখি বলিউড সুপারস্টার দীপিকা পাড়ুকোন, শ্রদ্ধা কাপূর ও সারা আলি খান।

শনিবার সকাল ১০টায় মুম্বইয়ের কোলাবা অ্যাপোলো বন্দরের এভ্লিন গেস্ট হাউজে জেরা শুরু হয় দীপিকার। বেলা ১২টায় মুম্বইয়ে এনসিবি’র এসআইটি অফিসে পৌঁছান শ্রদ্ধা কাপুর। বেলা একটায় এনসিবি’র এসআইটি অফিসে প্রবেশ করতে দেখা যায় সারা আলী খানকে।

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দীপিকা আজ সময়মতো হাজির হলেও দেরিতে পৌঁছান সারা এবং শ্রদ্ধা। এ দিন সকাল ১১টা নাগাদ এনসিবি’র দফতরে পৌঁছনোর কথা ছিল শ্রদ্ধা-সারার। কিন্তু কেন্দ্রীয় তদন্তকারী দলটির থেকে ঘণ্টা খানেক সময় চেয়ে নেন দু’জনেই। এর পর বেলা ১২টা নাগাদ এনসিবি’র দফতরে পৌঁছান শ্রদ্ধা। সারা আসেন তারও এক ঘণ্টা পর।

সূত্রের খবর, সারা এবং শ্রদ্ধা দু’জনেই আজ সকালে তাঁদের পারিবারিক আইনজীবীর সঙ্গে মিটিং করেছেন। শুক্রবার অর্থাৎ গতকাল দীপিকা এবং রণবীর শহরের এক পাঁচটারা হোটেলে নামজাদা আইনজীবীর সঙ্গে কয়েক ঘণ্টা ধরে আলোচনা করেছেন বলে খবর।

সুশান্ত সিংহ রাজপুতের হত্যার তদন্তে যে মাদক যোগ উঠে এসেছে, তাতে দীপিকার পাশপাশি উঠে এসেছে শ্রদ্ধা, কপূর, সারা আলি খান এবং রাকুল প্রীত সিংহের নামও। সেই মর্মেই গত বুধবার বলিউডের ওই চার অভিনেত্রীকে সমন জারি করেছিল এনসিবি।

গতকালই রাকুলকে চার ঘণ্টা জেরা করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী দলটি। সূত্রের খবর, জেরায় রাকুল জানিয়েছেন, রিয়ার সঙ্গে তাঁর যে মাদক সংক্রান্ত চ্যাট প্রকাশ্যে এসেছে তা সত্যি। তবে তিনি নিজে কোনওদিনও মাদক নেননি। সুশান্তের প্রাক্তন ট্যালেন্ট ম্যানেজার জয়া সাহার সঙ্গে শ্রদ্ধা কপূরের মাদক সংক্রান্ত একটি চ্যাট প্রকাশ্যে আসতেই এনসিবি’র নজরে আসেন শ্রদ্ধা। সেই চ্যাটে জয়া শ্রদ্ধাকে লিখেছিলেন, “সিবিডি অয়েল তোমার জন্য সংগ্রহ করে রেখেছি। পাঠিয়ে দেব”। প্রত্যুত্তরে শ্রদ্ধা লেখেন, “ধন্যবাদ। আমি এসএলবির সঙ্গে দেখা করতে আগ্রহী।”

খুব সম্ভবত এসএলবি মানে পরিচালক সঞ্জয় লীলা ভন্সালীর কথাই বোঝাতে চেয়েছিলেন। আর জয়া শ্রদ্ধার জন্য যে বস্তুটি কিনে রাখার কথা বলেছিলেন তা আদপে গাঁজা থেকে নিঃসৃত তেল জাতীয় পদার্থ। পুরো নাম ক্যানাবিডিয়ল।

অন্য দিকে এনসিবি সূত্রে খবর, মাদক যোগে সারার নাম প্রথম প্রকাশ্যে আনেন রিয়া চক্রবর্তী। রিয়া জেরায় বলেন, ‘কেদারনাথ’ শুটের সময়েই মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন সুশান্ত। তখন থেকেই তিনি নাকি সিগারেটের মধ্যে গাঁজা পুরে খাওয়ার অভ্যাস করেছিলেন। প্রসঙ্গত ওই ছবিতেই সুশান্তের বিপরীতে ছিলেন সারা। যদিও রিয়ার আইনজীবীর বক্তব্য এনসিবি’র জিজ্ঞাসাবাদের সময় তাঁর মক্কেল কোনও বলিউড স্টারের নাম নেননি।

এনসিবি’র নজরে রয়েছে সুশান্তের পাভনার ফার্মহাউজের পার্টিও। বিভিন্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, সুশান্তের ওই ফার্মহাউজেই দিনের পর দিন জোরদার পার্টি চলত। বলিউডের একাংশের মতে সেই পার্টিতে মদ- গাঁজা তো ছিলই, সঙ্গে চলত মাদকও। এনসিবি সূত্রে খবর, শ্রদ্ধা সুশান্তের ভাল বন্ধু ছিলেন। সারা এক সময় সুশান্তের সঙ্গে সম্পর্কে ছিলেন। সুশান্তের ওই পার্টিতে নাকি অবাধ যাতায়াত ছিল তাঁদেরও।

তবে দীপিকা, সারা, শ্রদ্ধা অথবা রাকুল, কারও বিরুদ্ধেই এখনও পর্যন্ত কোনও মামলা দায়ের হয়নি। তদন্তের প্রয়োজনে তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × two =

আরও পড়ুন