বাংলাদেশকে তামাকমুক্ত ও হালদা নদী রক্ষায় তামাক চাষ বন্ধের বিকল্প নেই

fec-image

এশিয়া মহাদেশের একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন কেন্দ্র বাংলাদেশের হালদা নদী। আর এ নদীর উৎপত্তিস্থল পার্বত্য জনপদ রামগড় উপজেলা। উৎপত্তিস্থল রামগড় থেকে মানিকছড়ি উপজেলঅ হয়ে এ হালদা নদী প্রবেশ করেছে চট্টগ্রামের কর্ণফুলীতে। নদীর উপরিভাগ মানিকছড়ির জনপদে সম্প্রতিকালে ব্যাপক হারে বাড়ছিল তামাক চাষ। আর এতে নদীর পানি দূষিত হওয়ায় মৎস্য প্রজননে তামাকের প্রভাব পড়ছিল। ফলে হালদা নদীর গবেষকরা তামাকের ক্ষতিকর প্রভাব নিয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায়ে হালদার করুণ চিত্র তুলে ধরলে শুরু হয় তামাক চাষের বিকল্প ভাবনা। ফলে হালদার উজানের তামাক চাষীদেও বিকল্প চাষাবাদে সহযোগিতার হাত বাড়ায় ইন্ডিগ্রেটেড ডেভোলেপমেন্ট ফাউন্ডেশন(আইডিএফ)। ৫ ডিসেম্বর ওই অঞ্চলের ৪২ জন কৃষকের হাতে এ প্রথম তুলে দেয়া হয় আলুর বীজ ও রসায়নিক সার। এতে তামাক চাষ বন্ধ হলে হালদার হারানো রুপ ফিরে আসবে বলে বিশেষজ্ঞ মহলের ধারণা।

জানা গেছে, বাংলাদেশের অহংকার হালদা নদী। আর নদীর উৎসস্থল পার্বত্য খাগড়াছড়ির মহকুমা শহর রামগড় উপজেলা। রামগড়ের গহীন পাহাড়ের নীচু ধান্য জমির আগা থেকে এ হালদা নদী উৎপত্তি হয়ে মংরাজ পরিবারের আবাসস্থল মানিকছড়ি উপজেলার বাটনাতলী,তিনটহরী ও যোগ্যাছোলা ইউনিয়ন হয়ে এটি চট্গ্রামের নাজিরহাট,ফটিকছড়ি,হাটহাজারী হয়ে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীতে গিয়ে পড়েছে হালদা নদী। আর নদীর ওপর চলছে মানবরচিত অনাচার,অভিচার! এতে হালদা দিন দিন তার ঐতিহ্য হারিয়ে বিপন্ন হতে চলেছে! দেশে দেখা দিয়েছে মিঠা পানির মাছের ঘাটতি। ফলে মৎস্য বিশেষজ্ঞরা বিশেষ করে হালদার গবেষকরা নদী দূষণে রোধে প্রধান ত্রুটি চিহ্নিত করতে সরজমিনে দেখেন উজানে অবাধে তামাক চাষ, ড্রেজারে বালু উত্তোলন ও নদীর পাড়ে অপরিকল্পিত স্থাপনায় প্রতিনিয়ত হালদার পানি দূষিত হচ্ছে!

বিশেষজ্ঞদের প্রতিবেদন সত্য হওয়ায় হালদা রক্ষায় নেওয়া হয়েছে বিশেষ প্রকল্প। এরই অংশ হিসেবে হালদার উজানের তামাক চাষীদের নিয়ে কাজ শুরু করেন ইন্ডিগ্রেটেড ডেভোলেপমেন্ট ফাউন্ডেশন(আইডিএফ) ও পল্লী সহায়ক ফাউন্ডেশন(পিকেএফ)। ওই অঞ্চলের তামাক চাষীদের নিয়ে একাধিকবার বৈঠকে তামাকের ক্ষতিকর দিক নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শেষে কৃষকরা তামাক চাষ থেকে বিরত হয়ে পরিবেশ বান্ধব চাষাবাদে সরকারের সহযোগিতা কামনা করায় এ প্রথম শুরু হলো তামাক বিকল্প শাক সবজি চাষাবাদ।

আর এ লক্ষে ৫ ডিসেম্বর সকাল ১১টায় মানিকছড়ি উপজেলা পরিষদ হল রুমে অনুষ্টিত হয় তামাক চাষীদের বিকল্প জীবিকায়নে কৃষি উপকরণ বিতরণ অনুষ্ঠান। এতে সভাপতিত্ব করেন উপজেলঅ নির্বাহী অফিসার তামান্না মাহমুদ। প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মো. জয়ণাল আবেদীন, বিশেষ অতিথি ছিলেন, ইউপি চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান ফারুক, কৃষি কর্মকর্তা মো. নাজমুল হাসান মজুমদার, হালদা প্রকল্পের ভিসিএফ মো. সজীব হোসেন,এভিসিএফ মো. জাহিদুল ইসলামসহ আইডিএফের স্থানীয় কর্মকর্তাগণ।

সভা শেষে উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের ৪২জন কৃষকের মাঝে জনপ্রতি ২০ কেজি সার ও ৩৫ কেজি আলুর বীজ তুলে দেয়া হয়।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

15 + 16 =

আরও পড়ুন