বাইশারীতে ঘূর্ণিঝড়ে ফসলসহ মাদ্রাসার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

fec-image

বান্দরবানের নাইক্ষংছড়ি উপজেলার বাইশারীতে হঠাৎ ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বসতঘর, বিভিন্ন ফলের বাগান, রাবার বাগান সৃজিত গাছের বাগানও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

শনিবার (২১ মে) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে হঠাৎ প্রচণ্ড বাতাস ও প্রবল বৃষ্টিতে বাইশারী ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড আলী ময়া পাড়া দারুল ইহসান নুরানি এবতেদায়ী মাদ্রাসাটি সম্পূর্ণভাবে বিধস্ত হয়ে যায়। উড়িয়ে নিয়ে যায় মাদ্রাসার টিনের চাল।

মাদ্রাসাটির শিক্ষা পরিচালক মাওলানা আবদুল মাবুদ জানান , সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ক্লাস চলাকালীন সময়ে হঠাৎ-আসা প্রচণ্ড বাতাস ও বৃষ্টিতে কিছু বুঝার আগেই মাদ্রাসার টিনের চাল বেড়া উপড়ে নিয়ে যায়। ওই সময় প্রাণ রক্ষার জন্য ছাত্র ও শিক্ষক দিগ্বিদিক ছোটাছুটি করে কোন রকম রক্ষা পায়। এরপর ও ৩ শিক্ষার্থী আহত হয় বলে জানান। আহতরা হলো আমেনা খাতুন ১২ সাইফুল ইসলাম ১০ নুরনবী ১১। এরা সবাই ৮ নং ওয়ার্ড আলী মিয়া পাড়ার বাসিন্দা। আহতদের স্থানীয় বাজারে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

এছাড়াও বাইশারী ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ড এ ঘর বাড়ি, কলা বাগান, রাবার বাগান, আম বাগান ও সৃজিত গাছের বাগান সহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে ৯ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মো আবু তাহের জানান।

সরজমিনে এই প্রতিবেদক এলাকা ঘুরে ও স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, গাছপালা উপড়ে ও ভেঙে গিয়ে নারিচবুনিয়া-বাইশারী সড়ক বন্ধ, ফলের গাছ, কলা বাগান, ঘরের চাল, ঘেরা বেড়া সব কিছু ঘূর্ণিঝড়ে উড়িয়ে নিয়ে গেছে। বিদ্যুতের তারে গাছ পড়ে ছিড়ে গিয়ে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে আলী মিয়া পাড়া দারুল ইহসান নুরানি এবতেদায়ী মাদ্রাসাটি। এই প্রতিষ্ঠান লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। ভেঙে চুরমার হয়ে গেছে।

চলেছে বর্ষা মৌসুম। খোলা আকাশে ও পাঠদানের সুযোগ নেই বলে জানালেন প্রধান শিক্ষক আবদুর রাজ্জাক।

বাইশারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আলম কোম্পানি বলেন, তিনি ক্ষয়ক্ষতির বিষয়টি অবগত রয়েছেন এবং ওয়ার্ড মেম্বার গণকে তালিকা করার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন।

তিনি সব কিছু তালিকা করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট লিখিত আকারে জানাবেন বলেও জানান।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: বাইশারী, মাদ্রাসা
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen − two =

আরও পড়ুন