বান্দরবানের নতুন বিহার অধ্যক্ষের অভিষেক

fec-image

বান্দরবান পার্বত্য জেলায় বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের প্রাচীনতম ঐতিহাসিক ধর্মীয় উপাসনালয় রাজগুরু বিহারে নব নিযুক্ত বিহার অধ্যক্ষের অভিষেক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৮মে) সকালে রাজগুরু বৌদ্ধ বিহারে ১৭তম রাজা উচপ্রু, পার্বত্যমন্ত্রী, বীর বহাদুর উশৈসিং এমপি, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ক্যশৈহ্লা, রাজ পরিবারের সদস্যবৃন্দ, দায়ক-দায়িকা ও মহাথোরেগণ উপস্থিতিতে এই অভিষেক অনুষ্ঠানটি সম্পন্ন হয়। ১৩তম রাজা উ ক্যজসাই এর নাতি, রাজকুমার উ মংচপ্রু এর সন্তান ঞানাস্বিরি (জ্ঞানপ্রিয়) মহাথেরো।

এই অভিষেক অনুষ্ঠানে সংক্ষিপ্ত আকারে অতিথিরা বলেন, ১৮৯৪ সালে এই খ্যয়ংওয়া কয়ং (রাজগুরু) বৌদ্ধ বিহারটি স্থাপিত হয়। সদ্য প্রয়াত উ পঞঞা জোত মহাথেরো(উচহ্লা ভান্তে) ৮তম রাজগুরু ছিলেন। বর্তমানে ঞানাস্বিরি (জ্ঞানপ্রিয়) মহাথেরো ৯তম রাজগুরু হিসেবে অভিষিক্ত হলো। হিংসা ত্যাগ করুন। সব কিছু পরিবর্তনশীল, ইতিহাস কি বলে সেটা আপনাদের জানতে হবে।

রাজার সভাপতিত্বে ক্যং কমিটির সিদ্ধান্ত চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত গণ্য করা হয়। এটা কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ বিহার তাই সারা দেশ থেকে পূজা করতে আসে ভক্তরা। ভান্তেদের জন্য বান্দরবান পার্বত্য জেলায় ২১ বছর ভেদাভেদ সৃষ্টি হয়েছে, এমন ভুল যেন আর না হয়। আগামীতে বান্দরবান শহরে যে কোন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে ভিক্ষু সংঘ ও দায়ক-দায়িকাবৃন্দ একত্রিত হয়ে অনুষ্ঠানগুলো উৎযাপন করার আহ্বান জানানো হয়।

উল্লেখ্য, সদ্য প্রয়াত রাজগুরু বিহারে বিহারধক্ষ্য উ পঞঞাহ জোত মহাথেরো(উচহ্লা ভান্তে) ১৩এপ্রিল চট্টগ্রাম মেক্স হাসপাতালে মহা প্রয়াণ ঘটে। এর পর তরিঘরি করে ক্যাং কমিটির একাংশ সভাপতি থোয়াইচপ্রু নেতৃত্বে বাঙ্গালহালিয়া ডাক বাংলা বিহারধক্ষ্য সংঘ নায়ক উ ঞানা ওয়াই স্বা এবং কয়েকজন মহাথেরোগণ উচহ্লা ভান্তে শিষ্য উ বিরোচন পঞঞা বিহারধক্ষ্য হিসেবে মনোনিত করে এবং লিখিত আকারে একটি আদেশ জারি করা হয়।

অপরদিকে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ১৭তম রাজা বোমাংগ্রী উচপ্রু চৌধুরী রাজগুরু বিহারে রীতিনীতি ও প্রচলিত নিয়মানুসারে উ ঞানাসিরি(জ্ঞানপ্রিয়) মহাথেরোকে মনোনিত করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: বান্দরবান, বৌদ্ধ ধর্ম, রাজগুরু বৌদ্ধ বিহার
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × four =

আরও পড়ুন