বান্দরবানের ‘মুরুং’ উপজাতি

Mru-women-dancingg

মমতাজ উদ্দিন আহমদ

পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের বান্দরবান জেলায় রয়েছে ১১টি উপজাতীয় জনগোষ্ঠীর বসবাস। এরমধ্যে মুরুং (ম্রো)দের নিজস্ব ঐতিহ্যমন্ডিত জীবন-যাপন, কৃষ্টি-সংস্কৃতি, ভাষা, পোষাক-পরিচ্ছদ, অলংকার, ধর্ম, পূজা-পার্বণ, খাদ্যাভ্যাস ও প্রথাগত সামাজিক নানা বিষয়াদি অন্য জাতিগোষ্ঠীর তুলনায় বৈচিত্র্যপূর্ণ। অত্যন্ত সহজ-সরল প্রকৃতির এ উপজাতি জনগোষ্ঠীর জীবনযাপন পদ্ধতি আধুনিক জীবনমান থেকে পিছিয়ে রয়েছে। পাহাড়ের নির্জন পরিবেশে নিরলস পরিশ্রমে বেঁচে থাকার নিরন্তর সংগ্রাম মুরুংদের।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী মুরুং বা ম্রোরা পার্বত্য চট্টগ্রামে কয়েক শতাব্দী পূর্ব হতে আরাকান তথা বার্মা থেকে এসে বসবাস শুরু করে। এই সম্প্রদায়ের রয়েছে গৌরবময় অতীত। চতুর্থদশ কিংবা সপ্তদশ শতকে খুমি উপজাতিদের সাথে  মুরুংদের প্রচণ্ড যুদ্ধ সংগঠিত হওয়ার পর মুরুংরা বান্দরবানের পার্বত্য অঞ্চলে চলে আসে। সে সময় তারা আলীকদমের বুক চিরে বয়ে যাওয়া মাতামুহুরী নদীর উৎপত্তিস্থল ও সাঙ্গু নদী উপত্যকার পশ্চিমে বসতি স্থাপন করে। তৎকালীন বার্মা রাজা কর্তৃক চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত এক চিঠিতে এর সমর্থন পাওয়া যায়।

মুরুং উপজাতির পরিচয়

মুরুং বা ‘ম্রো’ শব্দের অর্থ মানব। মুরুংদের দাবী তারা ‘মানব জাতি’। তারা নিজেদেরকে ‘মারুসা’ বলে থাকে। সম্ভবত: ‘মারুসা’ বা ‘মারু’ থেকেই ম্রো বা মুরুং শব্দের উৎপত্তি হয়েছে। স্বজাতি ছাড়া অন্য সম্প্রদায়ের কাছে এরা মুরুং নামে পরিচিত। মুরুং জনগোষ্ঠীভূক্ত কোন পুরুষের ঔরসে জন্মগ্রহণকারী এবং মুরুং পরিবারে জন্মগ্রহণকারী শিশুই ‘মুরুং বা ম্রো’ পরিচয়ের অধিকারী হয়। মুরুং শিশুর মাতাকে ‘মুরুং নারী’ হওয়ার বাধ্যবাধকতা নেই। মুরুংরা ছিল আরাকানের একটি সুপরিচিত আদিবাসী জনগোষ্ঠী। অন্যান্য উপজাতির মতো মুরুংরাও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মঙ্গোলয়েড জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভূক্ত। বৃহত্তর মঙ্গোলয়েড জনগোষ্ঠীর লোক হলেও এরা টিবেটো-বার্মান বা তিব্বতী-বর্মী উপগোষ্ঠীর ‘ককবরক’ নামের একটি বিশেষ ভাষায় কথা বলে।

আরাকান রাজ্যের ইতিবৃত্ত সম্বলিত গ্রন্থ ‘The Rajaweng’-এর তথ্যমতে জানা যায়, খ্রিষ্টিয় দশম শতাব্দীতে আরাকানের রাজধানী বৈশালী বা ওয়াখালী থেকে চন্দ্রবংশীয় রাজাদেরকে উৎখাত করে দু’জন মুরুং নেতা নিজেদেরকে রাজা ঘোষণা করে আরাকান রাজ সিংহাসন দখল করেন। এঁরা টানা ৯বছর বীরত্বের সাথে রাজ্য পরিচালনা করেন। এই দু’জন মুরুং রাজার নাম যথাক্রমে Amrathu (আম্রাথু) [৯৫৭ খ্রিস্টাব্দ] এবং Pai-phyru (পেফ্রু) {৯৬৪ খ্রিস্টাব্দ]। সে সময় আরাকানের রাজধানী ছিল ওয়াথালি।

‘স্যার এ.পি ফেইরীরর বর্ণনা মতে দু’জন মুরুং রাজার এই শাসনকাল ৩৬ বছর পর্যন্ত স্থায়ীত্ব ছিল’। [1]

Mro Pic-----01১

অপর এক বর্ণনায় দেখা যায়, আরাকানের চন্দ্রবংশীয় রাজা সুলতইঙ্গ চন্দ্র দক্ষিণ বার্মায় এক অভিযান পরিচালনা শেষে ফেরার পথে মৃত্যুবরণ করেন। এ খবরটি রাণী চন্দ্রাদেবী জানতে পারলে প্রধানমন্ত্রীর ওপর সন্দেহপ্রবণ হয়ে উঠেন এবং ক্ষিপ্ত হন। ফলে প্রধানমন্ত্রী ধাম্মাজিয়া কোলডান নদীর উজানপথে পালিয়ে যান। এদিকে রাজাশূন্য আরাকানে অরাজক পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে মুরুংদের নেতা আম্রাথু ৯৫৭ খ্রিস্টাব্দে আরাকান রাজ সিংহাসনে আসীন হন। রাজা আম্রাথু পরলোকগত রাজার স্ত্রী চন্দ্রাদেবীকে বিয়ে করে রাণী করেন। আম্রাথু পরলোক গমণ করলে তার ভ্রাতুষ্পুত্র পেফ্রু ৯৬৪ খ্রিষ্টাব্দে আরাকান রাজ সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হন। চন্দ্রাদেবীকে বিয়ে করে তিনিও রাণীর মর্যাদা দেন। তার একটানা ১২ বছর রাজত্ব করার পর ৯৭৬ খ্রিষ্টাব্দে শানরা আরাকান আক্রমণে অগ্রসর হতে থাকে। এ খবর জানতে পেরে রাজা পেফ্রু ও রাণী চন্দ্রাদেবী বিচলিত হয়ে আমত্যবর্গদের নিয়ে কথিত রোফ্য নামে একটি শহরে পালিয়ে যান। এ সুযোগে শানরা আরাকানের বেশ কিছু অঞ্চল দখলে নিয়ে নেয়। অপরদিকে, আরাকানের দক্ষিণ বার্মার থালাইংদের এবং পূর্বাংশ বর্মীদের নিয়ন্ত্রণে চলে যায়। এ অবস্থা অব্যাহত থাকার পর ঙাতুমাং নামের চন্দ্রবংশীয় এক ব্যক্তি ৯৯৪ খ্রিস্টাব্দে রাজসিংহাসন করায়ত্বে নিলে আরাকানে ৩৬ বছরের মুরুং রাজত্বের অবসান ঘটে। 

 মুরুং নাম নিয়ে যতকথা

পার্বত্য চট্টগ্রামের অন্যতম মুরুং উপজাতীয় সম্প্রদায়ের বানান ও উচ্চারণ নিয়ে ইদানীং বেশ তারতম্য লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সঠিক উচ্চারণ ‘মুরুং’ নাকি ‘ম্রো কিংবা ম্রু’? এ নিয়ে সাম্প্রতিককালের বিভিন্ন জনের উচ্চারণ ও লেখনীতে বেশ তারতম্য দেখা গেছে। উপমহাদেশের বিভিন্ন ইতিহাস গ্রন্থ, জার্নাল ও দলিল দস্তাবেজে পাওয়া গেছে এ উপজাতির নানারূপ বানান। নিন্মে এর সংক্ষিপ্ত রূপ তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে।

বাংলাদেশ সরকারের ১৯৯১ সনের পরিসংখ্যানে পার্বত্য চট্টগ্রামে ২২,০০১ জন উপজাতি নিজেদের নামের পর “মুরুং” এবং মাত্র ১৬৬ জন নিজেদের নামে পরে “ম্রো” লিখেন। ঐতিহাসিক Arthur P. Phayre  তাঁর রচনায় মুরুংদের নামের বানান ‘ম্রো’ (Mro) ও ‘ম্রু’(Mru) লিখেছেন (দেখুন- History of Burma (1883), পৃষ্ঠা ৪৩, ৪৭)। Traditional occupations of indigenous and tribal peoples: emerging trends, By- International Labour Office এর রচনায় “Mrung” লিপিবদ্ধ করা হয়েছে।

 Mro Pic-----02২

The tribes and castes of Bengal: Ethnographic glossary, Volume 2 (1992), By- Sir Herbert Hope Risley তাঁর লেখায় Mrung’  লিখেছেন। এছাড়াও Population Census of Pakistan, 1961–  এ ‘Mrung’ লেখা হয়েছে।

Journal of the Indian Anthropological Society, Volume 28, Issues 1-2 এর ৪৬ পাতায় যথাক্রমে ‘Mrung’, ‘Murung’, ‘Murong’ লেখা হয়েছে।

Mro Pic-----03৩

বাংলাপিডিয়াতে ‘মুরং’ এবং ‘ম্রো’ বানান লেখা হয়েছে এবং সেখানে তাদেরকে আলাদা দু’টি সম্প্রদায় হিসেবে তুলে ধরা হয়।

এখানে উল্লেখ্য যে, পার্বত্য চট্টগ্রামের বিশিষ্ট মুরুং নেতা, সাবেক স্থানীয় সরকার পরিষদ সদস্য ও মুরুং বাহিনীর ভূতপূর্ব কমান্ডার প্রয়াত বাবু মেনলে মুরুং এক আলাপচারিতায় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক গবেষক ও সাংবাদিক আতিকুর রহমানকে বলেন, “যদি প্রকৃত চরিত্রের ভিত্তিতে উপজাতি নির্ধারণ করা হয়, তাহলে অন্য অনেকের চেয়ে বাস্তব উপজাতি আমরাই। আমাদের সরাসরি উপজাতি স্বীকৃতি না দিয়ে ‘ম্রু’ দের দলে ব্রাকেটভূক্ত করা সঠিক মূল্যায়ন নয়।”২ [2]

আরো অসংখ্য প্রাচীন জার্নাল, সাময়িকী ও দলিল ছাড়াও সাম্প্রতিককালের বিভিন্ন সংবাদপত্র, সাময়িকী ও ব্লগে ‘মুরুং’ নামের বানান নিয়ে ভিন্নতা লক্ষ্য করা গেছে। এখনো বিভিন্ন সংবাদপত্রে ‘ম্রো, ম্রু, মুরং ও মুরুং বানান লেখা হচ্ছে। কলেবর বৃদ্ধির আশঙ্কায় আমরা এসব চিত্র তুলে ধরা থেকে বিরত থাকলাম।

পার্বত্য চট্টগ্রামে মুরুংদের আগমণ

মুরুং বা ‘ম্রো পার্বত্য চট্টগ্রামের সর্বপ্রাচীন উপজাতি এবং বান্দরবান জেলার দ্বিতীয় বৃহত্তম জাতি। ম্রোদের আদি নিবাস মায়নামারের আরাকান রাজ্যে। আনুমানিক ১৪৩০ খ্রিঃ অর্থাৎ আজ থেকে প্রায় ৫৯২ বছর আগে ম্রোরা বান্দরবান জেলার লামা, আলীকদম, থানছি ও নাইক্ষ্যংছড়ি এলাকায় আশ্রয় নিয়ে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে থাকে।’[3]

পার্বত্য চট্টগ্রামের বান্দরবান জেলার সর্বত্র এ সম্প্রদায়ের বসবাস রয়েছে। এককালে তারা আরাকানের অধিবাসী ছিল। যার বর্তমান নাম মিয়ানমার। পার্বত্য চট্টগ্রামে এদের আগমন কয়েকশ’ বছর আগে। ‘আরাকানিরা তাদের ইতিহাসে মুরুং বা ম্রো সম্প্রদায়কে ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন ও অভিজাত জনগোষ্ঠী হিসেবে উল্লেখ করেছে। এক সময় আরাকানের কোলডান নদীর উপত্যকায় খুমিদের সঙ্গে ম্রোদের প্রচ- সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে পরাজিত হয়ে ম্রোরা পার্বত্য চট্টগ্রামের দক্ষিণাঞ্চলে পালিয়ে আসতে বাধ্য হয়’। [4]

“সপ্তদশ শতাব্দীর দিকে মুরুং উপজাতিরা আরাকান থেকে পালিয়ে আলীকদমের পাহাড়ী উপত্যকায় স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করে। ১৭৮৭ সালের ২৪ জুন তারিখে চট্টগ্রামের তদানিন্তন শাসনকর্তাকে লিখিত বার্মা সম্রাটের একখানা চিঠিতে মুরুং উপজাতি কিভাবে পার্বত্য চট্টগ্রামে এসেছিল সে সম্বন্ধে উল্লেখ আছে”।[5]

 মিয়ানমারের আকিয়াব জেলায় এখনো মুরুং উপজাতির বসতি রয়েছে। উল্লেখ্য, আরাকানের প্রাচীন জনগণ বলতে মোঙ্গলীয়, ভোট চীনা, মুরুং (ম্রো), খুমী, চাক, সিন, সেন্দুজ, খ্যাং (খিয়াং), উইনাক, মারূ, পিউ প্রভৃতি উপজাতি জনগোষ্ঠীকে বুঝায়।

আরাকান রাজাদের ধারাবিবরণী রাজওয়াং-এ বলা হয়েছে দ্বাদশ শতাব্দীতে আরাকানের রাজা দা থা রাজাকে (১১৫৩-১১৬৫) ‘মহামুনি মূর্তির’ অবস্থান খুঁজে বের করতে দু’জন মুরুং সাহায্য করেছিলেন। চতুর্থদশ শতকে খুমি নামে একটি শক্তিশালী উপজাতি মুরুংদের আরাকান থেকে বিতাড়িত করলে তারা বান্দরবানের পার্বত্য অঞ্চলে চলে আসে এবং মাতামুহুরী নদীর তীর বরাবর সাঙ্গু উপত্যকার পশ্চিমে বসতি স্থাপন করে। তৎকালীন বার্মা রাজা কর্তৃক চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত এক চিঠিতে এর সমর্থন পাওয়া যায়। [6]

১৭০৮ সালে লিখিত আরাকানী  শাসক এর একটি চিঠিতে প্রমাণিত হয় যে, মার্মা, চাকমা, তঞ্চঙ্গ্যা, মুরুং ইত্যাদি জনগোষ্ঠী স্বদেশভূমি আরাকান ত্যাগ করে এদেশের সীমান্তভূক্ত পাহাড়ী অঞ্চলে আশ্রয় নিয়েছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম জেলার প্রথম ব্রিটিশ জেলা প্রশাসক ক্যাপ্টেন টি.এইচ লুইনকে (Capt. T.H. LEWIN) এতদাঞ্চলের প্রথম নির্ভরযোগ্য জ্ঞান করা হয়। তিনি স্বীয় পুস্তক ‘THE HILL TRACTS OF CHITTAGONG AND THE DWELLERS THEREIN’–এর ২৮ পাতায় উল্লেখ করেছেন- A greater portion of the hill tribes at present living in the Chittagong Hills undoubtedly came about two generations ago from Arracan this is asserted both by their own traditions and by records in the Chittagong Collectorate.

অর্থাৎ- উপজাতীয় যারা বর্তমানে পার্বত্যাঞ্চলে বসবাস করছে তাদের অধিকাংশ প্রায় দু’যুগ আগে আরাকান থেকে এসেছে। এসব তাদের নিজস্ব ঐতিহ্য আর ঐসব তালিকাপত্র দ্বারা প্রামাণিত যা চট্টগ্রাম রাজস্ব দপ্তরে সংরক্ষিত আছে।

মুরুংদের নৃ-তাত্ত্বিক পরিচয় [7]

মুরুং বা ম্রো জনগোষ্ঠীর দৈহিক গড়নের মধ্যে মঙ্গোলয়েড (Mongoloid) বৃহৎ নরগোষ্ঠী (Race) এর মালয়ী ইন্দোনেশীয় বৈশিষ্ট্য সুস্পষ্ট। এদের গায়ের রং হলুদ পীতাভ, নাক মোটা ও থ্যাবড়া, তবে নাকের গোড়া অক্ষিকোটর থেকে যথেষ্ট উন্নত নয়। কপোলতলের হাড় প্রশস্ত ও উন্নত বলে মুখম-ল দেখে মনে হয় সমতল ধরণের। মধ্যমাকৃতির লম্বাটে মুখম-ল, স্বল্প দাড়ি-গোঁফ, ভাঁজযুক্ত পাতলা চোখের পাতা (epicanthic fold), চোখের মণি ধূসর বা গাঢ় ধূসর রঙের। চোখের ওপরের পল্লব ঝুলে থাকে সামনের দিকে।

গাঁট্টাগোট্টা পেশল সুঠাম দেহের অধিকারী এই উপজাতীয়দের পাহাড়ি পথে উপর-নীচ, ওঠা-নামা করতে পায়ের পাতা ও কোমরের ওপর মূল চাপ (ভার) পড়লেও শক্তির উৎস কিন্তু পায়ের থোড় এবং উরুর মাংসপেশী। পাহাড়ি চড়াই পথে ওপরে উঠতে সামনের দিকে ঝুঁকে নিচের দিকে চেয়ে থাকতে হয়, আবার নিচের দিকে নামতে দেহ টান টান হয়ে থাকলেও চোখের দৃষ্টি কিন্তু সেই নিচের দিকেই রাখতে হয়। সাধারণত: এঁরা পিঠেই বোঝ বহন করে, মাঝে-মধ্যে গাড়েও। এই দু’অবস্থায়ও চোখ নিচের দিকে থাকে। চোখ নিচের দিকে রাখতে বা নিম্নমুখী তাকাতে গেলে স্বাভাবিকভাবে মাথাটি সামনের দিকে ঝুঁকে পড়ে। মাথায় খাড়া মোটা চুল (leiotrichi) এদের অন্যতম প্রধান দৈহিক বৈশিষ্ট্য। দৈহিক গড়ন ও চেহারায় এঁরা মঙ্গোলয়েড বৈশিষ্ট্য বহন করলেও এদের স্বভাব নিরীহ।

 Mro Pic-----04৪

মুরুং জনসংখ্যা

বাংলাদেশে ১৯৭৪, ১৯৮১, ১৯৯১ এবং ২০০১ সালে আদমশুমারি ও গৃহগণনা হয়। ১৯৯১ সালের আদমশুমারি অনুসারে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত ১১টি নৃ-তাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর মধ্যে মুরুং জনসংখ্যা- ২২,১৬৭ জন। যদিও এ সংখ্যা বর্তমানে ৩ গুণ হবে। বাংলাদেশের বাইরে মায়ানমারের আকিয়াব জেলায়ও (সিত্তুই) এরা বসবাস করে। এথনোলগ রিপোর্ট অনুযায়ী সেখানে তাদের সংখ্যা ২০,০০০ মতো।

পরিসংখ্যান অনুসারে মুরুং সম্প্রদায় বান্দরবান জেলায় দ্বিতীয় সংখ্যাগরিষ্ঠ একটি উপজাতি। পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসকারী ১১টি নৃতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর মধ্যে পঞ্চম (চতুর্থ?) সংখ্যাগরিষ্ট উপজাতি মুরুং। বান্দরবানের সদর উপজেলা, রোয়াংছড়ি, রুমা, থানচি, লামা, আলীকদম উপজেলা মুরুংদের বসবাস রয়েছে। কিছুকাল পূর্বে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার কাপ্তাই উপজেলার ভাজ্যাতলী মৌজা এলাকায় মুরুংরা বাসবাস করলেও বর্তমানে সেখানে তাদের বসতি নেই বলে জানা গেছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে বর্তমানে প্রায় ৭০হাজার মুরুং জনগোষ্ঠী বসবাস করছে বলে জানা যায়।

এমএসসি জরিপে জানা গেছে, প্রতি পাড়ায় গড়ে ২৫-২৮টি মুরুং পরিবার বাস করে। বান্দরবানে রয়েছে ৩৪০টি মুরুং পাড়া। এমএসসি জরিপ অনুযায়ী বান্দরবানে মুরুং জনসংখ্যা প্রায় ৪৮ হাজার। ২০০১ সালের আদমশুমারীতে মুরুংদের সংখ্যা ২৯ হাজার ৩৮৩জন হলেও ২০০৬ সালের মুরুং স্যোশাল কাউন্সিল এর শুমারী অনুযায়ী ৫৯ হাজার ৫১৯জন মুরুং রয়েছে বান্দরবানে।

Mro Pic-----05৫

মুরুংদের গোত্র

মুরুং সমাজে বেশ কিছু দল বা গোত্র রয়েছে; এর মধ্যে- ঙারুয়া/নারুয়া, ঙারিংচাহ্, প্রেন্জু, কানবক, নাইচাহ, তাং, দেং, খউ/খই, তাম-তু-চাহ্, ইয়ম্রে/য়ামরে, প্রভৃতি। মুরুং সমাজ জীবনে এ গোত্রগুলোর গুরুত্ব রয়েছে।

উল্লেখিত গোত্রের মধ্যে ‘ঙারুয়া’ আবার চারটি উপগোত্র রয়েছে। এগুলো হচ্ছে- খাটপো, চিম্লুং ও চাউলা। গোত্রগুলোর মধ্যে ‘ঙারুয়া’  চারটি উপগোত্রের সমষ্টি হওয়ায় এদের সংখ্যা বেশী। এ ছাড়াও ‘তাং’ গোত্রের মধ্যে তিনটি উপগোত্র রয়েছে বলে জানা যায়। মুরুং সমাজে গোত্রের গুরুত্ব সর্বাধিক। মুরুংদের মাঝে আরো কয়েকটি গোত্র ও উপগোত্র রয়েছে। এগুলো হল- মধ্যে দেংগুর, প্রেম্সাং, কংলয়, দমডং, সাইতম, সুংপ্রিম প্রভৃতি।

Mrong grilw

মুরুং ভাষা

সব মানুষই অন্তত একটি ভাষার সাথে ঘনিষ্ঠভাবে পরিচিত। বিভিন্ন ধ্বনি পরপর সাজিয়ে তৈরি হয় শব্দ, আর অনেক শব্দ নানা বিন্যাসে সাজিয়ে গড়া অসংখ্য বাক্য নিয়ে তৈরি হয় একটি ভাষা। কিন্তু কোন্ ভাষায় কতগুলি বাক্য হতে পারে, তার কোন সীমাবদ্ধতা নেই। ভাষার বক্তারা কতগুলি সীমিত সংখ্যক সূত্র কাজে লাগিয়ে অসীম সংখ্যক বাক্য বলতে ও বুঝতে পারেন। আধুনিক চম্স্কীয় ভাষাবিজ্ঞানের পরিভাষায় এই সূত্রগুলিকে বলা হয় বক্তার মানসিক ব্যাকরণ। বক্তা যখন ছোটবেলায় ভাষা অর্জন করে, তখন তার মধ্যে এই মানসিক ব্যাকরণের বোধ গড়ে ওঠে। এই ব্যাকরণের অংশ হিসেবে আছে ভাষাটির ধ্বনিব্যবস্থা (ধ্বনিতত্ত্ব), শব্দের গঠন (রূপমূলতত্ত্ব), কীভাবে একাধিক শব্দ সংযুক্ত হয়ে পদগুচ্ছ বা বাক্য গঠন করে (বাক্যতত্ত্ব), ধ্বনি ও অর্থের মধ্যে সম্পর্ক (অর্থবিজ্ঞান), এবং ভাষার শব্দভান্ডার। ভাষা হল সেই ব্যবস্থা যা ধ্বনির সাথে অর্থের সম্পর্ক স্থাপন করে। ভাষা সম্পর্কে কোন মানুষের এই মানসিক বোধ, বাস্তব জীবনে তার ভাষার প্রয়োগ অপেক্ষা স্বতন্ত্র। মানুষ বাক বৈকল্যের শিকার হয়ে বা অন্য যেকোন কারণে ভাষাপ্রয়োগে ভুল করতে পারে, কিন্তু এতে তার ভাষাবোধের কিছু হয় না।

ভাষাবিজ্ঞানীরা বিশ্বের হাজার হাজার ভাষা নিয়ে গবেষণা করে বের করেছেন যে এদের মধ্যে বহু পার্থক্য থাকলেও এই পার্থক্যের পরিমাণ সীমিত। সব ভাষার ব্যাকরণেই কিছু বিশ্বজনীন অংশ আছে। ভাষাবিজ্ঞানীরা ভাষাসমূহের এই বিশ্বজনীন বৈশিষ্ট্যগুলিকে কতগুলি নিয়মনীতির সাহায্যে ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করছেন। এই নিয়মনীতিগুলির সমষ্টিগত নাম দেয়া হয়েছ বিশ্বজনীন ব্যাকরণ। ভাষাবিজ্ঞানীরা মনে করেন, বিশ্বজনীন ব্যাকরণ সব ভাষার ব্যাকরণের ভিত্তি হিসেবে কাজ করে এবং এর মানুষের সহজাত ভাষা অর্জন ক্ষমতার সরাসরি সম্পর্ক আছে।

ভাষাবিজ্ঞানীরা ভাষা সম্পর্কে গবেষণা করে অনেকগুলি সত্য বের করেছেন, যেগুলি সব ভাষার জন্য প্রযোজ্য। যেখানেই মানুষ আছে, সেখানেই ভাষা আছে। আদিম ভাষা বলে কিছু নেই। সব মনুষ্য ভাষাই সমান জটিল এবং মহাবিশ্বের যেকোন ধারণা প্রকাশে সমভাবে সক্ষম। যেকোন ভাষার শব্দভান্ডারকে নতুন ধারণা প্রকাশের সুবিধার্থে নতুন শব্দ গ্রহণ করিয়ে সমৃদ্ধ করা যায়। সব ভাষাই সময়ের সাথে পরিবর্তিত হয়।[8]

বিশিষ্ট ভাষা তাত্ত্বিক ‘ডঃ গ্রীয়ার্সন তার ল্যাঙ্গুয়েজট্রিক্স সার্ভে অব ইন্ডিয়া (১৯০৯) গ্রন্থে মুরুং ভাষার বিস্তারিত নমুনা তুলে ধরেছেন এবং এই ভাষাকে বর্মীদলভূক্ত ভাষা হিসাবে চিহ্নিত করেছেন। মুরুংদের লোক-সংস্কৃতি অত্যন্ত উন্নত। মুরুংদের নন্দন সংস্কৃতি দক্ষিণ এশিয়ার মূলধারার সংস্কৃতি থেকে পৃথক কিছু নয়। তাদের গো-হত্যা উৎসব প্রমাণ করে আদিম অরণ্যচারী শিকারজীবীদের কাছ থেকে পাওয়া এক প্রাচীন সংস্কৃতি ধারাকে তারা শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে টিকিয়ে রাখতে পেরেছে’।[9]

জর্জ গ্রীয়ারসনের “লিঙ্গুইজটিক্স সার্ভে অব ইন্ডিয়া” প্রকাশিত হবার পর দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও পার্বত্য চট্টগ্রামের ক্ষুদ্র উপজাতি জনগোষ্ঠীর ভাষা নিয়ে উল্লেখযোগ্য কোন কাজ হয়নি। ভাষাগুলোর তুলনামূলক শ্রেণীকরণ ও বৈশিষ্ট্য নির্ণয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামের ভাষা গবেষক সুগত চাকমা তাঁর এমফিল অভিসন্দর্ভে প্রাথমিক শ্রেণীকরণের চেষ্টা করেছেন। তিনি জানাচ্ছেন,‘ম্রোদের ভাষা আমি ব্যক্তিগতভাবে পরীক্ষা করে দেখেছি। তাদের ক্রিয়াপদ ও বহুবচন গঠনে স্বতন্ত্র্য বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এক্ষেত্রে তাদের ভাষার সাথে বর্মী ভাষার চেয়ে কুকি-চিন ভাষাগুলির অধিক মিল রয়েছে।
বিগত এক শতাব্দিতে এ ভাষায় পরিবর্তন হয়ে থাকতে পারে। মেনলে ম্রো (ক্রামাদি) ক্রামা ধর্ম এবং ম্রো বর্ণমালার প্রবর্তক। জনসংখ্যা এবং ভাষা বিচারে মুরুংরা সংখ্যালঘু। মাতৃভাষা ছাড়াও তারা বাংলা এবং মারমা ভাষায় কথা বলে। জর্জ গ্রিয়ারসন তাঁর গবেষণায় মুরুং ভাষাকে বর্মী দলের অন্তর্ভুক্ত বলেছেন  এবং এ ভাষাকে একটি ‘জটিল ভাষা’ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন।
এথ্নোলগ এর ১৫শ’ সংস্করণ (২০০৫) এর তথ্যানুযায়ী বাংলাদেশে ৩৯টি ভাষা রয়েছে। এরমধ্যে পার্বত্য চট্টগ্রামের ২০০টি গ্রামের প্রায় ৮০ হাজার মুরুং ‘ম্রু ভাষায়’ কথা বলে। এই ম্রু ভাষা চীনা-তীব্বতি ও তিব্বতি-বর্মী ভাষাভুক্ত।

তথ্যসূত্র :

পার্বত্য চট্টগ্রামের মুরুং উপজাতি, লেখক ও সম্পাদক মমতাজ উদ্দিন আহমদ, প্রকাশকাল- একুশে বইমেলা- ২০১০।

  • ফুটনোট:
  • [1] History of Burma (1883), By- Arthur P. Phayre.
  • [2] অনুসন্ধান: আলীকদম ও তৈনছড়ি- ৭, লেখক- আতিকুর রহমান, দৈনিক গিরিদর্পন, ২৫ ডিসেম্বর, ১৯৯৯ ইং।
  • [3] http://www.dcbandarban.gov.bd/index.php?option=com_content&view=article&id=72&Itemid=83
  • [4] http://www.dcrangamati.gov.bd/index.php?option=com_content&view=article&id=264&Itemid=194
  • [5] লামা-আলীকদম প্রেস ক্লাবের সম্পাদিত ‘মাতামুহুরী’র ১ম সংখ্যায় প্রকাশিত “মুরুং উপজাতী” শীর্ষক লেখা থেকে।
  • [6] http://www.banglapedia.org/httpdocs/HTB/104468.htm
  • [7] বাংলাদেশের ম্রো উপজাতির জীবনধারা, লেখক: মুহাম্মদ আব্দুল বাতেন, প্রকাশকাল : ফেব্রুয়ারী, ২০০৩।
  • [8] http://bn.wikipedia.org/wiki/
  • [9] http://www.dcrangamati.gov.bd/index.php?

লেখক: সভাপতি আলীকদম প্রেসক্লাব ও উপজেলা প্রতিনিধি, পার্বত্যনিউজ

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twelve + sixteen =

আরও পড়ুন