বান্দরবানে সিএইচটি কমিশনের সমন্বয়ক হানা শামস লাঞ্ছিত

hana shams

পার্বত্যনিউজ রিপোর্র্ট:

বহুল বিতর্কিত সিএইচটি কমিশনের সমন্বয়ক হানা শামস বান্দরবানে লাঞ্ছিত হয়েছেন। হামলাকারীরা ইটপাটকেল ছুঁড়ে তার গাড়ির গতিরোধ করে। এসময় হানা শামস গাড়ি থেকে নেমে এলে হামলাকারীরা তার উপর আক্রমণ করে। তার শরীরে জুতা নিক্ষেপ করে এবং কিল-ঘুষি মারে। সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে এই ঘটনা ঘটেছে বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে।

সূত্র মতে, পার্বত্যাঞ্চলে বহুল বিতর্কিত সিএইচটি কমিশনের সমন্বয়ক রবিবার রাতে কোনো ঘোষণা ছাড়াই বাস যোগে বান্দরবান আসেন। এসময় তার সফরসঙ্গী ছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকা নাসরিন আক্তার। বান্দরবানে নেমে তারা শহরতলীর মাস্টার গেস্ট হাউজে উঠেন।

সূত্র জানায়, সকাল সাড়ে নয়টার দিকে হানা শামস বান্দরবানের রাম জাদি বৌদ্ধ বিহারের প্রধান পুরোহিত উছহ্লা ভান্তের সাথে বৈঠকের জন্য গমন করেন এবং প্রায় দুই ঘণ্টা ব্যাপী বৈঠক করেন।তাদের আলোচনার বিষয়বস্তু জানা যায়নি। তবে রাম জাদি মন্দিরের অবৈধ দখলকৃত স্থান বিজিবি’র নবসৃষ্ট ক্যাম্প স্থাপনের জন্য অধিগ্রহণ করা নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই পক্ষে-বিপক্ষে আন্দোলন চলে আসছে। এসময় হানা শামসের বান্দরবান আসার খবর প্রকাশ হয়ে পড়লে শহরের বাঙালী অধিকার আন্দোলনের নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। গত জুলাইয়ে সিএইচটি কমিশনের নেতাদের খাগড়াছড়ি ও রাঙামাটি সফরের মতো বাঙালী বিদ্বেষী কোনো কর্মসূচী নিযে হানা শামস বান্দরবানে এসেছেন এমন আশঙ্কা করে বাঙালী অধিকার আন্দোলনের নেতাকর্মীরা বিক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে। সে সময় সিএইচটি কমিশনের বান্দরবান আসার কর্মসূচী থাকলেও খাগড়াছড়িতে জুতা নিক্ষেপ ও রাঙামাটিতে গাড়ীবহরে হামলা এবং বান্দরবানে অবরোধ কর্মসূচী চলায় সিএইচটি কমিশন সে যাত্রায় বান্দরবান সফর কর্মসূচী বাতিল করে। েহানা শামসের বর্তমান সফর সেই অসমাপ্ত সফরের অংশ হতে পারে আশঙ্কা করে বাঙালী সম্প্রদায়।

এদিকে হানা শামস গেস্ট হাউজে ফিরলে দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে বেশ কিছু বাঙালী নেতাকর্মী গেস্ট হাউজে গিয়ে হানা শামসকে বান্দরবান শহর ত্যাগ করা হুমকি দেয়। কিন্তু হানা শামস বাঙালীদের সে হুমকিকে অগ্রাহ্য করে বান্দরবান শহরে থেকে যান এবং দুপুরে শহরের মিয়ামি হোটেলে লাঞ্চ করে গেস্ট হাউজে ফিরে রেস্ট নেন।

এদিকে বিকেলে বান্দরবানের ‘আদিবাসী’ আন্দোলনের নেতা মেলং খুমীর সাথে শহরের নীলাচল পর্যটন স্পট পরিদর্শনে যান এবং সেখান থেকে পরে শৈলপ্রপাত পর্যটন স্পট পরিদর্শনে। শৈলপ্রপাত পরিদর্শন করে আসার পথে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে মিলনছড়ি পর্যটন স্পটের কাছাকাছি হাফেজঘোনা এলাকায় ১০/১২জনের একটি গ্রুপ অতর্কিত হানা শামসের বহনকারী গাড়িতে ইটপাটকেল ছুঁড়লে তারা গাড়ি থামাতে বাধ্য হয়। আক্রমণকারীরা এসময় তাকে উদ্দেশ্য করে জুতা নিক্ষেপ করে এবং তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে দ্রুত পালিয়ে যায়। কে বা কারা হামলা করেছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি এবং কোনো পক্ষ থেকে হামলার দায়ও স্বীকার করা হয়নি।

এদিকে হামলার পর তাৎ ক্ষণিকভাবে হানা শামস বান্দরবান ত্যাগ করে ঢাকায় ফেরার কথা জানালেও পরে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন। রাতে তিনি উপজাতীয় নেতাদের সাথে বৈঠক করেন বলে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে স্থানীয় সাংবাদিকরা হানা শামসের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি মঙ্গলবান গণমাধ্যমের সাথে কথা বলবেন বলে জানান। বিষয়টি নিয়ে বাঙালী, পাহাড়ী ও প্রশাসনের মাঝে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে।

 

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four + five =

আরও পড়ুন