মহেশখালীতে তদন্তকারী কর্মকর্তাদের সামনে গুলি বর্ষণ

fec-image

কক্সবাজার জেলার মহেশখালীতে একটি ডাকাতির মামলার সরজমিন তদন্ত করতে গিয়েছিলেন ডিবি পুলিশের একটি দল, তাদের লক্ষ্য করে ডাকাতদের গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় কেউ আটক বা হতাহত হয়নি।

মহেশখালী উপজেলার কুতুবজুম ইউনিয়ন পরিষদের দক্ষিন পাশে অবস্থিত ১৪ লাখ টাকা ঘোনা নামক চিংড়ি ঘোনার একটি ডাকাতি মামলা তদন্ত করতে ৩ নভেম্বর ঘটনাস্থলে যান জেলার ডিবি পুলিশের ৫ সদস্য একটি দল ।

এসময় তাদের সাথে ওই চিংড়ি ঘোনার অংশীদারসহ দুই শতাধিক এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলো দখলকৃত চিংড়ি ঘোনার বাসা থেকে তদন্তকারী কর্মর্কতাদের সামনে ফাকা গুলি বর্ষণ করে ডাকাতদল। এসময় আতঙ্কিত হয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে ৫ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করে ডাকাতরা।

চিংড়িঘোনার মাছ ডাকাতির বিষয়ে গত ২৪ অক্টোবর আদালতে একটি ডাকাতির মামলা দায়ের করেন মহেশখালীর মুক্তিযোদ্ধা আমজাদ হোসেন। সেই মামলার তদন্তভার পায় ডিবি পুলিশ।

মামলার সরজমিন তদন্ত করতে ৩ নভেম্বর ঘটনাস্থলে ডিবি পুলিশ গেলে তাদের লক্ষ্য করে চিংড়ি ঘোনা থেকে গুলি বর্ষণ করে ডাকাত দল। ২০/২৫ জনের অস্ত্রধারী ডাকাত দলের প্রতিটি সদস্যদের হাতে রয়েছে দেশি লম্বা বন্দুক, দা ছুরিসহ বিভিন্ন ধরনের ভারী অস্ত্র। ঘটনার খবর পেয়ে মহেশখালী থানার পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে অভিযানে গিয়েছে বলে জানা গেছে।

স্থানীয়রা জানান, চিংড়ি ঘোনাটি গত মাসে ৩০ থেকে ৫০ জনের একটি অস্ত্রধারী ডাকাত দল রাতের আঁধারে এসে দখল করে নেয় এর পর থেকে এলাকাবাসী যারা সাগরে মাছ ধরতে যায় তাদের পর্যন্ত যেতে বাধা দিচ্ছে তারা।

মামলার বাদী মুক্তিযোদ্ধা আমজাদ হোসেন বলেন, বুধবার সকালে ডিবি পুলিশসহ ঘটনাস্থলে তদন্ত করতে গেলে তদন্তকারী কর্মকর্তা ও এলাকাবাসীর সামনে ডাকাতরা গুলি বর্ষণ করে যা শত শত মানুষ দেখছে, আমাদের চিংড়ি ঘোনাটি অবৈধ অস্ত্রের সহায়তা দিয়ে দখল করেছে পৌর মেয়রের লোকজন। আমি প্রশাসনের কাজ থেকে এই জবর দখলকারীদের বিচার চাই।

এবিষয়ে মহেশখালী থানার ওসি আব্দুল হাই জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে তদন্ত ওসি আশেক ইকবালের নেতৃত্বে পুলিশ রয়েছে, আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পরবর্তীতে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

18 − 17 =

আরও পড়ুন