মহেশখালী দ্বীপে মঙ্গলবার দেয়া হবে সাড়ে ১৩ হাজার করোনার টিকা

fec-image

প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে কক্সবাজারের দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীতে সাড়ে ১৩ হাজার জনকে করোনার টিকা দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ জন্য উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার ১৪টি টিকাকেন্দ্রে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। সোমবার সকাল থেকে বেলা আড়াইটা পর্যন্ত মাঠপর্যায়ে স্বাস্থ্যকর্মীসহ বিভিন্ন কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নিয়ে পৃথক পৃথকভাবে বৈঠক করেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা।

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টম্বর) উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার প্রতিটিতে ১ হাজার ৫০০ জন করে করোনা টিকার প্রথম ডোজ পাবেন। সোমবার বেলা দুইটা পর্যন্ত পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, উপজেলায় করোনা টিকার জন্য অন্তত ৪২ হাজার নিবন্ধনকারী অপেক্ষমাণ রয়েছেন।

তবে সব ইউনিয়নে নিবন্ধনকারীর সংখ্যা সমান নয়। এ জন্য মঙ্গলবারের বিশেষ টিকা কার্যক্রমকে সামনে রেখে স্থানীয় বাসিন্দাদের যাঁরা এখনো নিবন্ধন করেননি, তাদের দ্রুত নিবন্ধন করতে মাইকিং করা হচ্ছে। মঙ্গলবার সকাল নয়টা থেকে বেলা তিনটা পর্যন্ত টিকাদান কার্যক্রম চলবে। সবাইকে নিবন্ধন করে টিকা কার্ড সঙ্গে নিয়ে আসতে হবে। সবাইকে দ্রুত নিবন্ধন করে টিকা কার্ড নিয়ে স্ব স্ব এলাকার নির্দিষ্ট টিকাকেন্দ্রে উপস্থিত হতে ইউনিয়ন পরিষদ ও পাড়া-মহল্লার মসজিদের মাইক ব্যবহার করে প্রচার-প্রচারণা চলছে।

সূত্র জানায়, ৮টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার নির্ধারিত টিকাকেন্দ্রগুলো হচ্ছে মাতারবাড়ী উচ্চবিদ্যালয়, মাতারবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর মহুরিঘোনা মাদ্রাসা, সুতুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদ, কালারমারছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কালালিয়া কাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, টাইম বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মিঠাকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শাপলাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বড় মহেশখালী ইউনিয়ন পরিষদ, কুতুবজোম দাখিল মাদ্রাসা, ছোট মহেশখালী উচ্চবিদ্যালয় ও ঘোনারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

কুতুবজুম ইউনিয়ন সহকারী স্বাস্থ্য জাহাঙ্গির আলম ন বলেন, ইতিমধ্যে নিবন্ধনকারীদের তাদের টিকা কার্ড নিয়ে কেন্দ্রে আসার বিষয়ে এলাকায় মাইকিং করা হয়েছে। পাশাপাশি যাঁরা এখনো নিবন্ধন করেননি, তাদের নিবন্ধন করার জন্য উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে টিকাদান সফল করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহফুজুল হক বলেন, ইতিমধ্যে ২৫ হাজার নিবন্ধনকারী করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ সম্পন্ন করেছেন। আর প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৩৬ হাজার জন। পাশাপাশি ৭৯২ জন প্রবাসী প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ সম্পন্ন করেছেন। ফলে যারা নিবন্ধন করে অপেক্ষমাণ রয়েছেন, তাদের পর্যায়ক্রমে টিকার আওতায় নিয়ে আসা হবে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one + 18 =

আরও পড়ুন