মাটিরাঙা পৌর নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী কাজলের বিভিন্ন অভিযোগ ও দাবি

fec-image

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙা পৌরসভা নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও প্রভাবমুক্ত করতে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মো. শাহজালাল কাজল নির্বাচনের দিন সকালে কেন্দ্রে ব্যালট পেপার ও বাক্স প্রেরণ, প্রত্যেক ভোট কেন্দ্রে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের দাবি ও সরকার দলীয় প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে অসৎ উদ্দেশ্যে পোলিং এজেন্ট নিয়োগের ষড়যন্ত্রের অভিযোগ করেছেন।

মাটিরাঙা পৌরসভা নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসারের কাছে পৃথক তিনটি পত্রে তিনি এ দাবি ও অভিযোগ করেন। মাটিরাঙা পৌরসভা নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসার রাজ আহমেদ-এর দাবি অবাধ-সুষ্ঠ নির্বাচনে জিরো টলারেন্স নীতিতে খাগড়াছড়ি সদর পৌরসভার মত মাটিরাঙা পৌরসভার নির্বাচনও অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ হবে।

২ ফেব্রুয়ারি মাটিরাঙা পৌরসভা নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসারের কাছে প্রেরিত পত্রে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মো. শাহজালাল কাজল বলেন, নির্বাচনে প্রতিপক্ষ প্রার্থীর ভোট কারচুপি ও ব্যালট পেপার ছিনতাইসহ কেন্দ্র দখল হতে পারে। যা গত পৌরসভা নির্বাচনে মুসলিম পাড়া কেন্দ্রসহ বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে হয়েছে।

তিনি বলেন, মাটিরাঙা পৌরসভার প্রত্যেক ভোট কেন্দ্র শূন্য কি:মিটারের মধ্যে। নির্বাচনের সকালেই সকল ভোট কেন্দ্রে ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনী সামগ্রী পৌঁছানো সম্ভব। একই দিন পৌরসভা নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসারের কাছে প্রেরিত অপর পত্রে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মো. শাহজালাল কাজল নির্বাচনের দিন প্রত্যেক ভোট কেন্দ্রে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের দাবি জানিয়ে বলেন, বিগত নির্বাচনের অভিজ্ঞতা থেকে তার এজেন্ট, সমর্থক ও ভোটারদের ভয় ভীতি ও হুমকি দেখিয়ে ভোটদানে বাধাগ্রস্ত করা হতে পারে। যেমনটি বিগত মাটিরাঙা পৌরসভা নির্বাচনে বিভিন্ন ভোট কেন্দ্র দখল করে ব্যালটে সিল মারা হয়েছে। এবারও অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটিয়ে ভোট কেন্দ্র দখল ও রাস্তায় ভোটারদের মারধর ও ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে বাঁধা সৃষ্টি করার অশঙ্কা রয়েছে।

৭ ফেব্রুয়ারি মাটিরাঙা পৌরসভা নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসারের কাছে প্রেরিত পত্রে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মো. শাহজালাল কাজল অভিযোগ করেন, মাটিারঙা উপজেলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি এরশাদ আলী ভূইয়া আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. শামসুল হকের আপন ভাস্তি জামাই। তিনি ইতিমধ্যে ওই প্রার্থীর পক্ষে পোস্টার ও আর্থিক সহযোগিতা করেছে। এরশাদ আলী ভূইয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. শামসুল হকের সাথে যোগসাজসে পৌরসভার অন্তগর্ত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষিকাদের পোলিং এজেন্ট হিসেবে নিয়োগ না করে অসৎ উদ্দেশ্যে ও ভোট কেন্দ্রে প্রভাব বিস্তারের জন্য পৌরসভার বাইরের বিভিন্ন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষিকাদের পোলিং এজেন্ট নিয়োগ করার পরিকল্পনা করছে।

এ সব অভিযোগের বিষয়ে মাটিরাঙা পৌরসভা নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রাজু আহমেদ বলেন, বিগত পৌরসভা নির্বাচনে রক্তাক্ত সহিংসতার অভিজ্ঞতা মাথায় রেখে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন করতে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

তিনি ভোটারদের নির্ভয়ে ভোট কেন্দ্রে আসার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, বিগত পৌরসভা নির্বাচন পর্যালোচনা করে সে অভিজ্ঞতার আলোকে ভোটের দিন সকালে ভোট কেন্দ্রগুলোতে ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনী সামগ্রী প্রেরণে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। বিষয়টি নির্বাচন কমিশনের অনুমতি চাওয়া হয়েছে। প্রত্যেক ভোট কেন্দ্রে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের বিষয়ে নির্বাচন কমিশনে অনুমতি চাওয়া হয়েছে।

পোলিং এজেন্ট নিয়োগ প্রসঙ্গে মাটিরাঙা পৌরসভা নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসার রাজ আহমেদ বলেন, দলীয় সমর্থনপুষ্ট এমন কোন ব্যক্তিকে পোলিং এজেন্ট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হবে না। কোন পোলিং এজেন্টের ব্যাপারে সুনিদিষ্ট অভিযোগ থাকলে তাকে বাদ দেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: অভিযোগ, দাবি, পৌর নির্বাচনে
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eleven + fourteen =

আরও পড়ুন