মাটিরাঙ্গায় বিধবার বর্গা জমির ধান কেটে দিল ছাত্রলীগ

fec-image

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গার বর্গা চাষী রেহেনা বেগম। মাটিরাঙ্গা পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের চরপাড়া এলাকা ৬০ শতক জমিতে বোরো ধান চাষ করেন তিনি। তার জমি জুড়ে সোনালী ধানের সোনালী হাসি থাকলেও হাসি ছিলনা বিধবা বর্গা চাষী রেহেনা বেগমের মুখে। জমির ধান জমিতেই নষ্ট হবে, এ দুশ্চিন্তা যখন তাকে ঘিরে আছে তখন তার পাশে এসে দাঁড়িয়েছে মাটিরাঙ্গা উপজেলা ও পৌর ছাত্রলীগ।

“কৃষক বাঁচলে বাঁচবে দেশ, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ” এ স্লোগানকে সামনে রেখে প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার আহ্বানে ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশনায় বুধবার (১৩ মে) দুপুরের দিকে ওই বিধবার বর্গা চাষীর ধান কেটে ঘরে তুলে দিল ছাত্রলীগ।

এ সময় খাগড়াছড়ি জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জহির উদ্দিন ফিরোজ, মাটিরাঙ্গা উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক জুয়েল চাকমা, মাটিরাঙ্গা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি বাবুল আহমেদ, মাটিরাঙ্গা পপৌর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক তছলিম উদ্দিন রুবেল ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা যুব রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের যুব প্রধান কমল কৃষ্ণ দে ছ্ড়াও মাটিরাঙ্গা উপজেলা, পৌর, কলেজ ও ওয়ার্ড ছাত্রলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা অংশ গ্রহণ করেন।

এ সময় পাকা ধান ক্ষেতেই কথা হয় বিধবা রেহানা বেগমের সাথে। ছাত্রলীগের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তিনি বলেন, করোনার প্রভাবে আয় রোজগার বন্ধ হওয়ায় আর্থিক সঙ্কটে ধান কেটে ঘরে তোলা সম্ভব ছিল না। এমন সময় ছাত্রলীগের ছেলেরা এসে ক্ষেতের পাকাধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দেওয়ায় আমি উপকৃত হয়েছি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ছাত্রলীগ ধান কেটে দেয়ায় তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

করোনা পরিস্থিতিতে সকলকে কৃষকের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে খাগড়াছড়ি জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জহির উদ্দিন ফিরোজ বলেন, ‘কৃষক বাঁচলেই দেশ বাচঁবে’ এ উপলব্ধি থেকেই ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা কৃষকের পাশে দাঁড়িয়েছে। পর্যায়ক্রমে তারা বিভিন্ন এলাকার কৃষকের ধান কেটে দেবেন বলেও জানান এ ছাত্রলীগ নেতা।

এদিকে দেশের এ ক্রান্তিকালে কৃষকের ধান কেটে দেওয়ায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সাধুবাদ জানিয়েছেন প্রশাসনিক কর্মকর্তা থেকে শুরু করে সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: বর্গা জমির, বিধবার, মাটিরাঙ্গায়
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 × five =

আরও পড়ুন