মানিকছড়িতে বলাৎকারের অভিযোগে মাদ্রাসা সুপার আটক

fec-image

মানিকছড়ি উপজেলার বড়বিল মাদরাসাতুল মদিনার সুপার কর্তৃক এক শিশু শিক্ষার্থী যৌন হয়রানীর অভিযোগে মামলা দায়েরের ঘটনায় অভিযুক্তকে আটক করেছে পুলিশ। আটক সুপার মাওঃ মো. নাজনুল হাসান শিকদার(৩২)কে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বড়বিল সরকারি প্রাথমিক স্কুল সংলগ্ন খালের পাড়ে একটি বিতর্কিত ভূমিতে ২০২০ সালের শেষের দিকে মাদরাসাতুল মদিনা নামকরণে একটি মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন দাওয়াতী ইসলাম নামের একটি ধর্মীয় গ্রুপ। এরপর এলাকার অসহায়, দরিদ্র পরিবারের ছেলেদের ধর্মীয় জ্ঞানার্জনে ভর্তি করান অভিভাবকরা।

কিন্তু সুপারের দুঃচরিত্রের কারণে গত ৩ মে শিশু শ্রেণীর এক শিক্ষার্থী সুপার মাওঃ মোঃ নাজমুল হাসান শিকদার(৩২), পিতা-মো. চাহজাহান শিকদার, সাং-চিরিঙ্গা, কক্সবাজার কর্তৃক যৌন হয়রানীর শিকার হয়। পরে শিশুটি মাদরাসা থেকে বাড়ি ফিরে বেশ কয়েক দিন অসুস্থতাভোগ করে এবং মাদরাসায় যেতে অপারগতা প্রকাশ করে। শিশুটির মা সাহিদা বেগম বার বার ছেলেকে মারধর করেও মাদরাসায় পাঠাতে ব্যর্থ হয়।

এদিকে ছেলে(৮) শরীরে ব্যাথা ও রক্তাক্তের নমুনা দেখে মা ছেলেকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে গত ৭ মে ছেলে ঘটনা খুলে বললে প্রথমে শিশুটিক হাসপাতালে আনা হয়। চিকিৎসক ডাঃ মো. মহিউদ্দিন শিশুর শরীরে (পিছনে) রক্তাক্ত, মুখে ও হাতে কামড়ের চিহ্ন দেখতে পেয়ে চিকিৎসা দেন।

পরে শিশুর মা সাহিদা বেগম সুপার মাওঃ নাজমুল হাসান শিকদারকে অভিযুক্ত করে সন্ধ্যায় থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। পরে পুলিশ সাথে সাথে সুপারকে আটক করেন। যদিও অভিযুক্ত সুপার শিশুকে যৌন হয়রানীর অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। বাদীর অভিযোগ এবং শিশুর শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন থাকায় পুলিশ অভিযোগটি আমলে নিয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আাইনে একটি মামলা রুজু করেন। মামলা নং-১ তারিখ ৮.৫.২০২১খ্রি.। থানার অফিসার ইনচার্জ আমির হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আটক, বলাৎকারের, মাদ্রাসা সুপার
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eleven + fifteen =

আরও পড়ুন