মানিকছড়িতে শান্তিপূর্ন ভোট গ্রহণ

fec-image

চতুর্থ ধাপের ভোটে খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি’র তিন ইউপি’তে অনাকাঙ্খিত কোন ঘটনা ছাড়াই ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। তবে সদর ইউপিতে ইভিএমে ভোট গ্রহণে ভোটারদের পূর্ব অভিজ্ঞতা না থাকায় ধীরগতিতে ভোট কাস্টিং হয়েছে। একাধিক কেন্দ্রে বিকেল ৪টার পরও শতশত নারী ভোটারকে লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দিতে দেখা গেছে।

উপজেলা নির্বাচন ও রির্টানিং কর্মকর্তা মো. শওকত আলী চৌধুরী জানান, উপজেলার তিন ইউপি’র মধ্যে সদর ইউপিতে ইভিএমে ভোট গ্রহণ হয়েছে। আর অন্য দুইটি বাটনাতলী ও তিনটহরী ইউপিতে ব্যালটে ভোট গ্রহণ করা হয়। এখানে চেয়ারম্যান পদে দলীয় ৩জন ও স্বতন্ত্র ২জন। সংরক্ষিত সদস্য পদে ২৯জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৬৮জন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

তিন ইউপি’র ২৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৮টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ থাকলেও বিকেল ৪টা পযর্ন্ত অনাকাঙ্খিত কোন ঘটনা ছাড়াই ভোট গ্রহণ করা হয়েছে। বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে সাড়ে ৩টা সদর ইউপি’র একসত্যাপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কলেজিয়েট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে শতশত নারী ভোটারকে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। এ সময় প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মো. সালা উদ্দিন কাউছার বলেন, নারী ভোটারেরা ইভিএমে ভোটিং দিতে না আসায় তারা হঠাৎ ইভিএমে ভোট দিতে গিয়ে ৪/৫ মিনিট দেরি করছে। অনেকে বুথে প্রবেশ করে কী করবে তাও জানে না। ফলে সহকারী প্রিসাইডিং ও পোলিং কর্মকর্তারা পর্দার বাহিরে থেকে প্রথমে পছন্দীয় প্রতীকের পাশে সাদা বাটনে চাপ দিন, পরে সবুজ বাটনে চাপ দিন, এভাবে বলে বলে ভোট দেওয়াতে হচ্ছে।এ কেন্দ্রে গড়ে ৫০% ভোট সাড়ে ৩টা পযর্ন্ত কাস্টিং হয়েছে।

সদর ইউপি’র নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. শফিকুর রহমান ফারুক ভোট গ্রহণে স্বস্তি প্রকাশ করেছেন। তিনি জয়ের বিষয়ে শতভাগ আশাবাদী। স্বতন্ত্রপ্রার্থী যোগ্য মারমা (আনারস) বলেন, মুসলিমপাড়া ও গচ্ছাবিল কেন্দ্রে আনারসের ভোটারদের ভয়-ভীতি দেখিয়ে নৌকা প্রতীকে ভোট দিতে বাধ্য করা হয়েছে।

এছাড়া সামগ্রিকভাবে সুষ্ঠ ও সুন্দর পরিবেশে ভোট গ্রহণ হয়েছে। বাটনাতলী ইউপিতে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. আবদুল রহিম জয়ের বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। আর স্বতন্ত্রপ্রার্থী মংসাপ্রূ চৌধুরী(চশমা) ভোট সম্পর্কে বলেন, ডাইনছড়ি নতুন ও পুরাতন কেন্দ্র এবং বাঞ্চারাম পাড়া সরকারী প্রাথমিক কেন্দ্রে নৌকা প্রতীকের পক্ষে কিছু জাল ভোট ছাড়া মোটামুটি ভোট সুষ্ঠ ও সুন্দর হয়েছে। জয়-পরাজয় মেনে নেব।
অন্যদিকে তিনটহরী ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে বিনা ভোটে জয় হওয়ায় সংরক্ষিত ও সাধারণ সদস্য পদপ্রার্থীরা ভোটারদের কেন্দ্রে এনে ভোট আদায়ে প্রতিযোগিতা চালিয়েছে। তবে বিকেল সাড়ে ৪টায় ভোট গণনা শুরু পযর্ন্ত কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না মাহমুদ বলেন, বিকেল ৪টা পযর্ন্ত কোন ধরণের অপ্রীতিকর কোন ঘটনা, অভিযোগ, অনুযোগ ছাড়াই উপজেলার তিন ইউপিতে ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × two =

আরও পড়ুন