মালয়েশিয়ায় রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয় দিলে কঠোর শাস্তি

fec-image

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিষয়ে মালয়েশিয়া কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে। এরই মধ্যে স্থানীয়দের সতর্ক করা হয়েছে। রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয় কিংবা তথ্য গোপন রাখলে কঠোর শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে বলে জানিয়েছেন দেশটির অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক খাইরু দাজায়মি দাউদ।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) এক সংবাদ সম্মেলনে মহাপরিচালক, খাইরুল দাজাইমি দাউদ বলেন, দোষী প্রমাণিত হলে পাঁচ হাজার রিঙ্গিত জরিমানা ও এক থেকে পাঁচ বছরের বেশি জেল হতে পারে। অভিবাসন আইনের ৫৬ ধারায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, দেশটির জলসীমায় অবৈধভাবে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ছাড় দেওয়া হবে না। তাদের (পাতি) হিসেবে আটক করে অভিবাসন ডিপোতে রাখা হবে।

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিষয়ে মালয়েশিয়া কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে। এরই মধ্যে স্থানীয়দের সতর্ক করা হয়েছে। রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয় কিংবা তথ্য গোপন রাখলে কঠোর শাস্তি আরোপ করা হবে।

২০১৯ সাল থেকে এ পর্যন্ত দেশব্যাপী আটক রোহিঙ্গাদের সংখ্যা ছিল দুই হাজারেরও বেশি। দেশে আটক রোহিঙ্গাদের অবস্থান সম্পর্কে জানতে চাইলে খায়রুল দাজাইমি সাংবাদিকদের বলেন, এটি জাতীয় নীতির সঙ্গে জড়িত। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বর্তমানে জাতিগত নিষ্পত্তির জন্য তৃতীয় দেশের সঙ্গে আলোচনা করছে।

২০ এপ্রিল পেনাংয়ের সুঙ্গাই বাকাপ অস্থায়ী অভিবাসন ডিপো থেকে পালিয়ে আসা আরও ৬০ জন রোহিঙ্গা বন্দিকে এখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাদের খুঁজে বের করার চেষ্টা এখনও করা হচ্ছে। ধারনা করা হচ্ছে তারা এখন কুয়ালালামপুর, পেনাং এবং সেলেয়াংয়ের আশপাশে তাদের সম্প্রদায়ের মধ্যে লুকিয়ে আছে।

সূত্র: জাগোনিউজ

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fifteen − thirteen =

আরও পড়ুন