মিয়ানমারের ছোড়া গুলিতে দুই বাংলাদেশি জেলে আহত

fec-image

নাফনদীতে মিয়ানমার নৌবাহিনীর গুলিতে দুই বাংলাদেশি জেলে গুলিবিদ্ধ হয়েছে। রোববার (২১ এপ্রিল) সকালে টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের নাইক্ষ্যংদিয়া সীমান্তে এ ঘটনা ঘটে।

গুলিবিদ্ধরা হলেন- শাহপরীর দ্বীপের মাঝেরপাড়ার মোহাম্মদ ইসমাইল ও মোহাম্মদ ফারুক। এরমধ্যে ফারুকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। দুপুরের দিকে আহতদের কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

রোববার (২১ এপ্রিল) দুপুর ১ টার দিকে আহতদের কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

আহত জেলে ও স্বজনরা জানান, রোববার সকালে মাছ ধরার জন্য ১০ জন জেলে নাফ নদীতে যায়। এসময় তাদেরকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে মিয়ানমার নৌবাহিনী। এতে দুজন গুলিবিদ্ধ হয়। জেলেদের দাবি তারা বাংলাদেশের জলসীমায় অবস্থানকালীন সে দেশের নৌবাহিনী গুলি ছোড়ে।

ট্রলারের মাঝি মোহাম্মদ ইউসুফ জানান, সেন্ট মার্টিন সংলগ্ন সাগরে মাছ ধরা শেষে শাহপরীর দ্বীপ ঘাটে ফিরছিলাম। এসময় নাইক্ষ্যংদিয়া সংলগ্ন অংশে মিয়ানমার নৌবাহিনীর একটি জাহাজ আমাদের অতিক্রম করছিল। ওই জাহাজ থেকে হঠাৎ আমাদের ট্রলার লক্ষ্য করে গুলি চালানো হয়। এতে আমার দুইজন জেলে গুলিবিদ্ধ হয়।

মাঝি ইউসুফ আরও বলেন, আমরা নাফনদীর বাংলাদেশের জলসীমায় ছিলাম এবং হাত উঁচু করে, বাংলাদেশি পতাকা দেখিয়ে তাদের গুলি না করতে ইশারা করছিলাম। এরপরও তারা মানেনি।

এ বিষয়টি নিশ্চিত করে সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীরদ্বীপ ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল মন্নান বলেন, জেলেদের মাধ্যমে টেকনাফ শাহপরীরদ্বীপের নাফ নদীর নাইক্ষ্যংদিয়ার জলসীমানায় মিয়ানমারের ওপার থেকে ছোঁড়া গুলিতে দুই জেলে গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এতে দক্ষিণ পাড়ার ফারুকের শরীরের বিভিন্ন অংশে গুলি লাগে। গুলিবিদ্ধ আরেক জেলে ইসমাইল সামান্য আহত হন। গুলিবিদ্ধ আহত জেলেরা টেকনাফ ও কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন।

টেকনাফ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল কর্মকর্তা ড. সুরাইয়া ইয়াছমিন বলেন, আহতদের মধ্যে ইসমাইল সামান্য আহত হয়। তাকে টেকনাফে চিকিৎসা প্রদান করা হচ্ছে। অপরজন ফারুকের শরীরও ৩টি গুলি লেগেছে। হাত ও পায়ে লাগা গুলিতে গুরুতর হওয়ায় তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে টেকনাফ থানার ওসি মো. ওসমান গণি জানান, নাফ নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে মিয়ানমারের ওপার থেকে ছোঁড়া গুলিতে ২ জন আহত হয়।

আহতদের মধ্যে মোহাম্মদ ফারুককে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: বাংলাদেশ, মিয়ানমার
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন