মু‌ক্তিযোদ্ধাসহ ১৮ প‌রিবারের রাস্তা বন্ধ

fec-image

মু‌ক্তি‌যোদ্ধাসহ ১৮টি প‌রিবা‌রের চলাচলা রাস্তায় বেড়া দি‌য়ে বন্ধ করে দেয়ার অ‌ভি‌যোগ উ‌ঠে‌ছে আব্দুল মা‌লে‌কে‌রে বিরুদ্ধে। তিনি স্থানীয় মৃত আব্দুল কা‌দেরের ছে‌লে।
শনিবার (৬ জুলাই) বিকা‌লে খাগড়াছ‌ড়ির মা‌টিরাঙ্গা উপ‌জেলার তবলছ‌ড়ির শুকনাছ‌ড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘ‌টে।

ভুক্ত‌ভোগী প্রয়াত বীর মুক্তি‌যোদ্ধা মোবারক হো‌সেনের ছে‌লে আবুল হো‌সেন জানান, আ‌শি দশ‌কের আগ‌ থে‌কে তারা এ রাস্তা‌ দি‌য়ে চলাচল ক‌রেন। এখন এ রাস্তা দি‌য়ে ১৮‌টি প‌রিবার চলাচল ক‌রে। প্রতি‌বে‌শী আব্দুল মা‌লেকের বা‌ড়ি সাম‌নে হওয়ায় তার বা‌ড়ির সাম‌নে দি‌য়ে আসা যাওয়া কর‌তে হয়। তার আত্মীয় স্বজন বে‌শি হওয়ায় সম্প্রতি গা‌য়ে প‌ড়ে ঝগড়া করা চেষ্টা কর‌ছে। দা নি‌য়ে তাদেরকে মার‌তে আ‌সে। আপ‌ত্তিকর ভাষায় গা‌লি গালাজ ক‌রে। এসব নি‌য়ে ই‌তিপূর্বে একা‌ধিকবার বিচারও হ‌য়ে‌ছে। সর্বশেষ গত ২৭ জুন স্থানীয় ইউ‌পি চেয়ারম‌্যান নুর মোহাম্মদ উভ‌য়ের উ‌স্থি‌তি‌তে এলাকার গণ্যমান্য ব‌্যা‌ক্তিদের নি‌য়ে বিষয়‌টি নিষ্প‌ত্তি ক‌রেন। উভয় তা মে‌নে নেন। এ‌তে কোন অসু‌বিধা হয়‌নি। হঠাৎ শ‌নিবার বিকা‌লে বেড়া দি‌য়ে রাস্তা চলাচল বন্ধ ক‌রে দি‌য়ে‌ছে। এ‌তে বন জঙ্গল দি‌য়ে দি‌য়ে চলাচল কর‌তে হ‌চ্ছে ব‌লে জানান তি‌নি।

অ‌ভিযুক্ত আবদুল মা‌লেক জানান, তার বাবার না‌মে রেকর্ডীয় জায়গার উপর দি‌য়ে চলাচ‌লের জন্য ৬ ফুট রাস্তা দেয়া হয়। সম্প্রতি তারা ১০ ফুট রাস্তা দা‌বি ক‌রে। এ‌তে ‌তি‌নি অস্বীকৃ‌তি জা‌নি‌য়ে ৭ ফুট রাস্তা দি‌তে রা‌জি হন ব‌লে জা‌নি‌য়ে মা‌লেক আ‌রো ব‌লেন, ‌তার অম‌তে চেয়ারম‌্যা‌নের মাধ‌্যমে ৯ ফুট প্রস্থ‌্য রাস্তার জন‌্য জায়গা দখল ক‌রে নেয়।

তখন আপিল কর‌তে চাই‌লে চেয়ারম‌্যান তাকে সু‌যোগ ‌দেন‌নি অ‌ভি‌যোগ ক‌রে মা‌লেক ব‌লেন, রাস্তা বন্ধ করা হয়‌নি। গরু ছাগ‌লের জন‌্য তি‌নি রাস্তায় বেড়া দি‌য়ে‌ছেন। মানু‌ষের জন‌্য নয়।

মানুষ চলাচল করার রাস্তা বন্ধ করা চরম মানবা‌ধিকার লঙ্গন উ‌ল্লেখ ক‌রে তবলছ‌ড়ি ইউ‌পি চেয়ারম‌্যান নুর মোহাম্মদ ব‌লেন, ক‌য়েক‌দিন পূর্বে রাস্তার বিষয় নি‌য়ে স‌রেজ‌মি‌নে প‌রিদর্শন ক‌রে এলাকার গণ্যমান্যদের নি‌য়ে উভ‌য়ের সম্ম‌তি‌তে বিষয়‌টি নিষ্প‌ত্তি করা হয়। কিন্তু কেন আবার রাস্তা বন্ধ ক‌রে‌ছে তা বোধগম‌্য নয় ব‌লে জানান তি‌নি।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন