যেকারণে সুইসাইড করলেন চবি’র মেধাবী ছাত্র

fec-image

খাগড়াছড়ির রামগড়ে সুইসাইড নোট লিখে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের মেধাবী ছাত্র নাইমুল হাসান মিশন। শনিবার (৬ মার্চ) সকালে স্বজনরা দরজা ভেঙে ঘর থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেন। এ সময় রুম থেকে তার লেখা একটি সুইসাইড নোটও খুঁজে পান স্বজনরা।

মিশন রামগড় পৌরসভার ফেনীরকুল এলাকার বাসিন্দা মো. আবুল কামালের বড় ছেলে। পারিবারিক সূত্র জানায়, শুক্রবার রাতে বন্ধুদের সাথে আড্ডা শেষে বাড়ি ফেরার পর খাবার খেয়ে তার থাকার কক্ষে স্বাভাবিকভাবে ঘুমিয়ে পড়েন মিশন। শনিবার ভোরে ফজরের নামাজ পড়ার জন্য তার মা ডাকাডাকি করেন। পরে ছোট ভাই লিমন এসে পুনরায় ডাকাডাকি করে সাড়া না পেয়ে ঘরের জানালা দিয়ে দেখতে পায় মিশন গলায় গামছা বাঁধা অবস্থায় সিলিংয়ের সাথে ঝুলে আছে। ভাইয়ের এ অবস্থা দেখে লিমনের চিৎকারে পরিবারের লোকজন দৌঁড়ে আসেন। তারা ঘরের দরজা ভেঙে মিশনের মরদেহ উদ্ধার করেন।

মিশনের ঐ কক্ষ থেকে পাওয়া সুইসাইড নোটে মৃত্যুর আগে তিনি লিখে যান, ‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। আমার বেঁচে থাকার জন্য কোন ইচ্ছা নেই। তাই আমি সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছি।’

তিনি ঐ নোটে আরও লিখেন, ‘ডারউইন বলেছিলেন survival for fittest, but I not even fit. আমার জন্য কেউ কখনো কস্ট পেয়ে থাকেন মাফ করে দিয়েন। লিমনের খেয়াল রাখিয়েন। আব্বু আমাকে সফল করার জন্য অনেক কিছু সহ্য করেছেন। আমি পারিনি। তাই আমি ক্ষমাপ্রার্থী। এ দুনিয়া আমার জন্য না। সবাই পারলে আমাকে মাফ করে দিবেন। বিদায়।’

মিশনের পরিবারের লোকজন জানায়, তিনি কিছুটা মানসিক বিষন্নতা ও হতাশায় ভুগছিলেন। জানা যায়, মিশন অত্যন্ত মেধাবী ছাত্র ছিলেন। পিএসসি, জেএসসি, এসএসসি এবং এইচএসসিতে তিনি জিপিএ ৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হন। উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে রসায়ন বিভাগে ভর্তি হন। তিনি রসায়ন বিভাগের প্রথমবর্ষের ছাত্র ছিলেন।

এ মেধাবী ছাত্রের এমন দুঃখজনক ঘটনায় পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও তার মৃত্যুর ঘটনাটি ভাইরাল হয়।

রামগড় থানার ওসি (তদন্ত) বলেন, গলায় ফাঁস দিয়ে মিশন আত্মহত্যা করেছেন। তবে আত্মহত্যার কারণ সম্পর্কে কিছু জানেন না তিনি। ওসি (তদন্ত) জানান, এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রুজু করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eleven − eight =

আরও পড়ুন