রাজস্থলীতে ফেক ফেসবুক আইডি, বিভ্রান্ত হচ্ছে সাধারণ মানুষ ও জনপ্রতিনিধি

fec-image

সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ফেসবুকের জনপ্রিয়তা এখন আকাশচুম্বী। তবে একই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে এর অপব্যবহারও। বাড়ছে ফেক অ্যাকাউন্টের সংখ্যাও। ফলে বিপদে পড়ছেন অনেকেই। ব্যবহারকারীদের জন্য ফেসবুক আইডি খোলার নিয়মে কিছুটা বাড়তি বাধ্যবাধকতা এনেছে ফেসবুক। তারপরও মানছে না কেউ। এ নিয়মে পরিচয় গোপন করে অ্যাকাউন্ট খোলার যে বাড়তি সুবিধা পাওয়া যেত সেটি এখন থেকে ফেসবুকে আর করা যাবে না। ফেসবুকের ফেক আইডির বিড়ম্বনা কমাতে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা যায়।

সারাদেশে বিভিন্ন নামে-বেনামে ফেসবুক ফেক আইডি রয়েছে অসংখ্য, এর ব্যতিক্রম নয় রাঙ্গামাটি জেলার রাজস্থলী উপজেলা। বেনামে ফেক আইডিগুলি নানা রকম উস্কানিমূলক তথ্য ছড়িয়ে বিভ্রান্ত সৃষ্টি করছে প্রতি নিয়ত। রীতিমতো এসব আইডিগুলি বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে তথ্য ছড়িয়ে ভয় দেখিয়ে মোটা অংকের অর্থ দাবি করছে। এই সমস্ত ফেক আইডির বিরুদ্ধে উপজেলা মাসিক আইন শৃঙ্খলা সভায় অভিযোগ করা হয়েছে বহুবার। তারপরও আইনের তোয়াক্কা না করেই, নির্ধিয়ায় চালাচ্ছে এসব বেনামি আইডিগুলি।

উপজেলায় সম্প্রীতি একটা আইডি সরকার এবং রাজস্থলী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান উবাচ মারমা, ২২৮ নম্বর পৌয়তু মৌজার হেডম্যান উথিনসিন মারমা ও দুই নম্বর গাইন্দ্যা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক পুচিংমং মারমার বিরুদ্ধে নানা ধরনের অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। এতেই ক্ষান্ত হয়নি, বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ থেকে শুরু করে সাংবাদিক পর্যন্ত সকলের নামে বিভ্রান্তমূলক তথ্য ছড়িয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে সমান তালে।

এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান উবাচ মারমা বলেন, একটা আইডি খুলে আমাকে বিভিন্ন ধরণের উস্কানি, সন্ত্রাসী লিখে আমার মান সস্মান ক্ষুন্ন করে আসছে। আমি এ ব্যাপারে মাসিক সমন্বয় সভা ও আইন শৃঙ্খলা সভার মাধ্যমে ওসি’কে বিষয়টি অবগত করেছি।

সাধারণ ফেসবুক ব্যবহারকারীরা বলছেন, অতি দ্রুত এসব ফেক আইডির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে ভবিষ্যতে ফেসবুকের প্রতি অনীহা চলে আসবে। সঠিক তথ্য থেকে বঞ্চিত হবে। যদিও ডিজিটাল নিরাপত্তা কঠোর আইন করা হয়েছে এইসব ফেক আইডির বিরুদ্ধে।

এ বিষয়ে রাজস্থলী থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি ইকবাল হোসেন পাঠোয়ারী বলেন, রাজস্থলী উপজেলাতে আমরা অনেকে ফেসবুক ফেক একাউন্টের অভিযোগ পেয়েছি। আমরা ইতিমধ্যে চিহিৃত করার কাজ শুরু করেছি। অতি শীঘ্রই এসব ফেক আইডির মালিকদের ধরে শাস্তির আওতায় আনা হবে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন