নারী শাখার অন্যতম সমন্বয়ক আকিম বম গ্রেপ্তার

রোয়াংছড়ির গহীন বনে কেএনএফের প্রশিক্ষণ কেন্দ্র

fec-image

বান্দরবানের রোয়াংছড়িতে গহিন বনে পাহাড়ি ঝরনার ওপরে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের খোঁজ মিলেছে। সেখানে নানা কৌশলে নারী সদস্যদের কমান্ডো প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এই কেন্দ্রের নাম কেডিওন। এর অর্থ– ‘ঈশ্বরের দিকে’। প্রশিক্ষণের নেতৃত্বে রয়েছেন ভান থার ময় বম।

গতকাল শুক্রবার র‍্যাব জানায়, কেএনএফের বান্দরবান সদর ও রোয়াংছড়ি জোনের নারী শাখার অন্যতম প্রধান সমন্বয়ক আকিম বমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। র‍্যাব-১৫-এর একটি টিম তাকে লাইমীপাড়া থেকে গ্রেপ্তার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কেএনএফের কমান্ডো প্রশিক্ষণের ব্যাপারে নানা তথ্য দিয়েছে আকিম।

র‍্যাবের দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, আকিম ২০২৩ সালে কাল্লা রেসিডেনসিয়াল মডেল স্কুলে পড়ার সময় মাইকেল নামে এক তরুণের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়ায়। এর পর মাইকেলের মাধ্যমে কেএনএফের ট্রেনিং সেন্টারে যাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে। গত ডিসেম্বরে এক সন্ধ্যায় আকিম ও মাইকেল হেঁটে ট্রেনিং সেন্টারের উদ্দেশে রওনা করে। পরদিন ভোরে রোয়াংছড়ির গহিন পাহাড়ি এলাকার সেন্টারে তারা পৌঁছায়। সেখানে নারী কমান্ডার ভান থার ময় বমের সঙ্গে পরিচয় হয়। সেখানে আরও অনেক নারী ছিল। তাদের অধিকাংশের মুখে কালো কালি মাখা। ‘ঈশ্বরের দিকে’ নামে একটি প্রশিক্ষণ সেন্টারে আকিমকে একটি ব্যাচে যুক্ত করা হয়েছিল। সেই ব্যাচে আরও ২০ জন ছিল। চার-পাঁচজন তাদের প্রশিক্ষণ দিত।

আকিমকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, ভোর ৩টায় প্রশিক্ষণ শুরু হয়। মার্শাল আর্ট শেখানো হয়। বেত দিয়ে আঘাত করে কষ্ট সহ্য করানোর প্রশিক্ষণও চলে। লাঠি দিয়ে আঘাত ও অন্যান্য ধরনের শারীরিক নির্যাতন করে কঠিন পরিস্থিতিতে কীভাবে টিকতে হবে– তা শেখানো হয়। জঙ্গলে ও পাহাড়ি এলাকায় কীভাবে লুকিয়ে থাকতে হবে, শেখানো হয় সেই কলাকৌশল। সকাল ১০টা পর্যন্ত চলে প্রশিক্ষণ। এ সময় তাদের ভাত ও কলার ভুঁড়ি খেতে দেওয়া হয়। মাঝে মাঝে পাখি ও কাঠবিড়ালি শিকার করতে পারলে তাও খাওয়ার জন্য দেওয়া হতো। নারী কমান্ডোরা প্রশিক্ষণ দিলেও অনেক সময় পুরুষরা এসে নানা দিকনির্দেশনা দেয়। আকিম সেখানে থাকাকালে একটি ব্যাচের ৫০ জন উত্তীর্ণ হয়। ওই সময় বেশ কয়েকটি সেন্টারে প্রায় সাড়ে ৪০০ নারী-পুরুষ প্রশিক্ষণ নেয়।

কক্সবাজার র‍্যাব-১৫-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল এইচ এম সাজ্জাদ হোসেন বলেন, আকিম প্রায় এক মাস দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণ নিয়েছে। এর পর সে কেএনএফের নারী সদস্য রিক্রুট করতে আসে। সে সেবা লাল নুং ও আরামপি নামেও পরিচিত।

গত এপ্রিলে বান্দরবানে বেশ কয়েকবার হামলা চালায় কুকি-চিন। পরে কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। বান্দরবানের রুমার সোনালী ব্যাংকে লুট ও ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণের ঘটনাও ঘটে। পরে অবশ্য মুক্তি পান সেই ব্যাংক ম্যানেজার। গত ২২ এপ্রিল বান্দরবানের রুমা উপজেলার দুর্গম মুনলাইপাড়া এলাকায় যৌথ অভিযানে কেএনএফের সশস্ত্র শাখা কেএনএর এক সদস্য নিহত হয়।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: কেএনএফ
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন