লংকাবাংলা ফাইন্যান্স এর ব্লুঅরচার্ড মাইক্রোফাইন্যান্স ফান্ড থেকে ১৫ মিলিয়ন ডলার বৈদেশিক ঋণ গ্রহণ

fec-image

লংকাবাংলা ফাইন্যান্স লিমিটেড সুইজারল্যান্ড ভিত্তিক ব্লুঅরচার্ড ফাইন্যান্স লিমিটেড পরিচালিত ব্লুঅরচার্ড মাইক্রোফাইন্যান্স ফান্ড থেকে ১৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বৈদেশিক ঋণ পেয়েছে। এটি লংকাবাংলার গ্রহণ করা দ্বিতীয় বৈদেশিক ঋণ। এর আগে প্রতিষ্ঠানটি ২০১৯ সালে ইসলামিক কর্পোরেশন ফর দি ডেভলপমেন্ট অফ দি প্রাইভেট সেক্টর (আইসিডি) থেকে প্রথম বৈদেশিক ঋণ পেয়েছিল। লংকাবাংলা ফাইন্যান্স লিমিটেড থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, ব্লুঅরচার্ড সামাজিক, অর্থনৈতিক ও পরিবেশগত উন্নয়নে অবদান রাখে এ ধরনের খাতে সহযোগী ভূমিকা পালনে আগ্রহী এবং এসএমই শিল্পের ও উদীয়মান উদ্যোক্তাদের অর্থনৈতিক অন্তর্ভুক্তি নিশ্চিত করতে কাজ করছে। এই লক্ষ্যে লংকাবাংলা কে ঋণ প্রদানের মাধ্যমে তারা বাংলাদেশের বাজারে প্রথমবারের মতো প্রবেশ করেছে।

এ ঋণ থেকে প্রাপ্ত অর্থ মূলত পরিবেশবান্ধব ও টেকসই এসএমই খাতে ব্যবহৃত হবে, যা মহামারী পরবর্তী সময়ে এ খাতে ব্যবসা বৃদ্ধি ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখবে।

ব্লুঅরচার্ড ফাইন্যান্স এর প্রধান ঋণ কর্মকর্তা নরম্যান্ডস মিজিস বলেন, “বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় আর্থিক প্রতিষ্ঠান লংকাবাংলা ফাইন্যান্স লিমিটেড এর সাথে লেনদেন করে আমরা খুবই আনন্দিত। তারা অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান তৈরিতে এসএমই খাতে অবদান রাখছে। ভবিষ্যতে ব্লুঅরচার্ড ফাইন্যান্স সামাজিক, অর্থনৈতিক ও পরিবেশগতভাবে অবদান রাখে এমন আর্থিক প্রতিষ্ঠানে আরও ব্যাপকভাবে বিনিয়োগে আগ্রহী।”

লংকাবাংলা ফাইন্যান্স এর প্রধান নিবার্হী কর্মকর্তা খাজা শাহরিয়ার বলেন, “বৈদেশিক ঋণ গ্রহণ আমাদের কৌশলগত পরিকল্পনার একটি অংশ, এটি আমাদের ফান্ডের খরচ কমাতে সাহায্য করবে, যার সুফল আমরা গ্রাহক পর্যায়ে, মূলত এসএমই ও উদীয়মান খাতে পৌঁছাতে পারবো।”

গ্রীন ডেল্টা ক্যাপিটাল লিমিটেড উক্ত লেনদেনের অ্যারেঞ্জার ও সিকিউরিটি এজেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছে। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম বলেন, “গ্রীন ডেল্টা ক্যাপিটাল বরাবরই নতুন উচ্চতায় পৌঁছানোর লক্ষ্যে কাজ করছে। আমরাই ব্লুঅরচার্ড কে থমবারের মতো বাংলাদেশে নিয়ে এসেছি যেখানে পুরো ডিউ ডিলিজেন্স প্রক্রিয়াটি সম্পাদন করা হয়েছে ডিজিটালভাবে।”

তিনি আরও বলেন “ব্লুঅরচার্ড এর লংকাবাংলায় বিনিয়োগ বাংলাদেশে আরো বৈদেশিক বিনিয়োগ আকর্ষণে সাহায্য করবে।”

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

15 − thirteen =

আরও পড়ুন