লামায় ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

fec-image

বান্দরবানের লামা উপজেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক এক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৬মে) বান্দরবান নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলাটি করেন লামা উপজেলার দরদরী ইব্রাহিম লিডারপাড়ার ৩৫ বছর বয়সী এক গৃহবধূ। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক জেলা ও দায়রা জজ মো. সাইফুর রহমান সিদ্দীক মামলাটি সিআইডিকে তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলায় আসামি করা হয়েছে রুপসীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাচিং প্রু মার্মা (৪৫) ও একই পরিষদের ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মান্নান (৫৫) কে।

মামলার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেছেন, গত বছরের ২ সেপ্টেম্বর থেকে বিবাদী সাচিংপ্রু তার পরিষদের সদস্য মান্নান এর মাধ্যমে ওই গৃহবধূকে বেশ কয়েকবার কুপ্রস্তাব দেয়। তাদের প্রস্তাবে রাজি না হয়ে ইউপি মেম্বার মান্নান বিভিন্ন সময় বাদীকে গালমন্দ ও হুমকি দিয়েছেন। পরবর্তী ১৫ অক্টোবর বাদীর স্বামীর মামলা সংক্রান্ত বিষয়ে চেয়ারম্যানের বাড়িতে গেলে ওই গৃহবধূকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন চেয়ারম্যান সাচিং প্রু। ওই গৃহবধূকে ধর্ষনের পর কৗশলে ভিডিও ধারণ করেন বিবাদীরা।

পরে ধর্ষণের ঘটনায় বাদীর স্বামী লামা থানায় মামলা করতে গেলে বিবাদী প্রভাবশালী চেয়ারম্যান ও ক্ষমতাসীন দলের নেতা হওয়ায় অভিযোগ নেননি থানা পুলিশ। পরে বৃহস্পতিবার (৬মে) বান্দরবান নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে সংশ্লিষ্ট আইনের ৯(১)/৩০ ও পর্ণোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ ধারায় মামলা করেন ওই গৃহবধূ (৩৫)।

এই বিষয়ে আদালতের পেশকার মো. মাইনুল ইসলাম জানিয়েছেন, বিচারক মামলাটি সিআইডির ইন্সপেক্টরকে তদন্ত করে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে বিবাদী ইউপি চেয়ারম্যান সাচিং প্রু পার্বত্যনিউজকে জানান, মামলার বাদীর স্বামী ইউনিয়ন পরিষদের ৭নং ওয়ার্ডের গ্রাম পুলিশের সদস্য ছিলেন। ইতোপূর্বে সে ওই ওয়ার্ডে অন্তত ৪৭ জন উপকারভোগীর টাকা আত্মসাতের ঘটনায় মামলার আসামি হয়ে কারাভোগ করেছেন।

জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর থেকে বাদীর স্বামী নানাভাবে তাঁকে হুমকি দিয়ে আসছিল। তার বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র হচ্ছে বুঝতে পেরে ইতোপূর্বে তিনি লামা থানায় একটি অভিযোগও করেছেন। ঘটনার সূত্রধরে প্রতিপক্ষ ওই নারীকে দিয়ে তার বিরুদ্ধে অবশেষে মিথ্যা ধর্ষণ মামলাটি করেছেন। মামলাটির অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা বলে দাবি করেন তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three − 2 =

আরও পড়ুন