লামায় মহিলাদের উত্যক্ত করার ঘটনায় পাল্টা পাল্টি মামলা: দুই পরিবারে উত্তেজনা

fec-image

লামা উপজেলার লামা সদর ইউনিয়নে মেউলারচর গ্রামে একটি বসত বাড়িতে প্রবেশ করে মহিলাদের উত্যক্ত করার ঘটনার জের ধরে মেউলাচর গ্রামে উত্তেজনা বিরাজ করছে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে থানায় এবং আদালতে একাধিক মামলা রুজু হয়েছে।

জানাগেছে (০১ আগস্ট ২০২০) ঈদুল আযাহার দিন রাতে মেউলাচর গ্রামের জামাল উদ্দিন এর ছেলে পারভেজ (২০) একই গ্রামে নুরুল ইসলামের বাড়িতে প্রবেশ করে সন্দেহ জনক আচরন করে। বাড়ির লোকজন টের পেয়ে তাকে ধরে বেধে ফেলে। বাড়ির মালিক নুরুল ইসলাম জানান পারভেজ এর সাথে আরো দুই জন লোক নিয়ে তার বাড়িতে রাতের অন্ধকারে প্রবেশ করেছিল।

প্রতিবেশি আনোয়ারুল হক (৮৫) জানান, নুরুল ইসলামের বাড়িতে প্রবেশকারী তিনজন বাড়ির লোকজনের উপস্থিতি টের পেয়ে পালানোর সময় পারভেজ নামক একজনকে আটক করা হয়। আটককৃত পারভেজ এর বাড়ি ঘটনা স্থল থেকে প্রায় পৌনে এক কিলোমিটার দুরে অবস্থিত।

স্থানীয় চকিদার নুরুল আলম জানান, এই ঘটনায় পারভেজগং ও নুরুল ইসলাম গংদের মধ্যে চরম ঝগড়া ঝাটি হয়। পারভেজকে স্থানীয় চেয়ারম্যান এর নিকট নিয়ে যাওয়া হয়।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার আবদুর রহমান মনু জানান, এই ঘটনার জের ধরে পারভেজের মা পারভিন আক্তার ও তাদের আত্মীয় স্বজন নুরুল ইসলাম গংদের নামধরে গালমন্দ করলে ধাক্কা ধাক্কি হয়। তিনি জানান জামালের ছেলে পারভেজকে নুরুল ইসলামের বাড়িতে প্রবেশ না করার জন্য পূর্বে একাধিকবার সতর্ক করা হয় কিন্তু সে এই সতর্ক কর্ণপাত না করে নুরুল ইসলামের বাড়িতে প্রবেশ করে বাড়ির মহিলাদের বিভিন্ন ভাবে উত্যক্ত করে আসছে। জানাগেছে ঘটনার দিন একই উদ্যেশে পারভেজগং নুরুল ইসলাম এর বাড়িতে প্রবেশ করেন।

ইউপি চেয়ারম্যান মিন্টু কুমার সেন জানান, মেউলারচরের ঈদুল আযাহার দিন রাতের ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করার জন্য চেষ্টা করা হয়েছিল। পক্ষদয়ের আন্তরিকতার অভাবে মিমাংসা করা সম্ভব হয়নি।

এই ঘটনার জের ধরে পারভেজ এর পরিবারের পক্ষ থেকে নুরুল ইসলামদের বিবাদীকরে বিজ্ঞ আদালতে ফৌজদারী মামলা দায়ের করা হয়েছে। আবার একই ঘটনায় পারভেজ গংদের আসামি করে নুরুল ইসলাম গং আদালতে ফৌজদারী মামলা জমা দিয়েছে।

অপরদিকে পাল্টা পাল্টি মামলাকে কেন্দ্র করে মেউলারচরের দুই পরিবারের লোকজন এর মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

লামা থানা অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান জানান আইশৃঙ্খলা অবনতি হয় এমন আচরন করলে কোন পক্ষকে ছাড় দেওয়া হবে না।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: মামলা, লামায়
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eleven − 4 =

আরও পড়ুন