দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে পানছড়ির পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হওয়ার শঙ্কা

শহর ফেরাদের হাত ধরেই পানছড়িতে করোনার আগমন

fec-image

পানছড়ি উপজেলায় করোনার আগমন ঘটেছে শহর ফেরাদের হাত ধরেই। করোনাভাইরাসের আগমনী বার্তালগ্নে উপজেলা প্রশাসন, সেনাবাহিনী, পুলিশ বাহিনী, আনসার বাহিনী, পানছড়ি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, যুব রেড ক্রিসেন্ট মিলে ছিল চমৎকার একটি টিম ওয়ার্ক। শহর ফেরাদের প্রতি ছিল দিন-রাত নজরধারী। ছিল প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা।

কিন্তু প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন বন্ধ হওয়ার পর সব যেনো হযবরল অবস্থা। গোপনে বেড়ে যায় শহর ফেরাদের তৎপরতা। যার পর থেকেই পানছড়িতে হানা দেয় করোনা

প্রথমত: খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালের একটি ভুল দিয়েই শুরু হয় করোনা নাটক। খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে থাকা লতিবান ইউপির হরিসাধন পাড়ার যুবকের নমুনার ফলাফল আসার আগেই তাকে ১৪ মে ছাড়পত্র দেয় খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। দুপুর ১২টায় ছাড়পত্র দিলে বিকেল ৪টায় তার রিপোর্ট আসে পজেটিভ। ততক্ষণে সব শেষ। সুতরাং সে খাগড়াছড়ি ফেরা।

গত ১৩ মে করোনার হট স্পট চট্টগ্রাম থেকে গোপনে পানছড়ি আসে কলোনীপাড়ার এক ব্যক্তি। খবর পেয়ে ১৪ মে তার নমুনা সংগ্রহ করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ১৮ মে তার রেজাল্ট আসে পজেটিভ। ৮টি বাড়ি লকডাউন দিয়ে পরিবারের সদস্যদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়।

তালুকদার পাড়ার ৬৫ বছর বয়সী করোনা পজেটিভ ব্যক্তিটিও চট্টগ্রাম ফেরা। করোনার উপসর্গ নিয়ে ফেরা ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহ করলে ২৩ মে ফলাফল আসে পজেটিভ।

এদিকে কলোনীপাড়ার চট্টগ্রাম ফেরা করোনা পজেটিভ ব্যক্তির স্ত্রীরও করোনা ফলাফল এসেছে পজেটিভ। ২৭ মে তার পজেটিভ ফলাফল নিশ্চিত করে পানছড়ি স্বাস্থ্য বিভাগ।

এলাকাবাসীর দাবী তার স্বামী চট্টগ্রাম থেকে করোনার উপসর্গ নিয়ে আসার কারণেই তার স্ত্রীও আজ করোনায় আক্রান্ত।

সূতরাং সব কিছু বিচার বিশ্লেষন করলে দেখা যায়, পানছড়ি স্থানীয় কোন করোনা পজেটিভ রোগী নাই। শহর ফেরাদের কারণেই শান্ত পরিবেশ আজ অশান্ত। শহর ফেরাদের শনাক্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে পানছড়ি পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ রুপ নিতে পারে বলে অভিজ্ঞ মহলের ধারনা।

পানছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: ডা: অনুতোষ চাকমা বলেন, শহর ফেরাদের মাধ্যমেই পানছড়িতে করোনার আমদানী হয়েছে। আমাদের চেষ্টার কোন ত্রুটি নাই। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ যে কোন মুহুর্তে সেবা দিতে প্রস্তুত রয়েছে।

পানছড়ির পরিবেশকে সুন্দর ও করোনামুক্ত রাখতে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা ছাড়া কোন বিকল্প পথ নাই বলে তিনি জানালেন। তথ্য নিয়ে এগিয়ে আসার জন্য তিনি পানছড়িবাসীর নিকট অনুরোধ জানান।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আইসোলেশন, করোনাভাইরাস, কোয়ারেন্টিন:
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × two =

আরও পড়ুন