শামলাপুর ঐতিহ্যবাহী খেলার মাঠ দখলমুক্ত করার দাবীতে মানববন্ধন ও সমাবেশ 

fec-image

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুরের ৪৯ বছরের ঐতিহ্যবাহী খেলারমাঠ দখল মুক্ত করার দাবীতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে সর্বস্তরের জনসাধারণ।

১০ অক্টোবর (শনিবার) বিকেল ৪টায় শামলাপুর স্টেশন চত্বরে বাহারছড়া ইউনিয়ন ক্রীড়া পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শাহ আলমের সভাপতিত্বে ও বাহারছড়া ইউনিয়ন উত্তর শাখা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ সোহেল রানার সঞ্চালনায় এই মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় বক্তারা বলেন, টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া এবং পার্শ্ববর্তী জালিয়াপালং দুই ইউনিয়নবাসী একমাত্র খেলারমাঠটি গত ৩ বছর ধরে এনজিওরা রোহিঙ্গাদের ত্রাণ সহায়তা দেয়ার নামে দখল করে রেখেছে। এতে শিক্ষার্থীসহ উঠতি বয়সী যুব সমাজ নিয়মিত খেলাধুলা করতে পারছে না। যার ফলে মাদকাসক্ত হওয়ার পাশাপাশি বিপদগামী হয়ে যাচ্ছে উঠতি বয়সী ছেলেরা। অথচ বর্তমানে উক্ত মাঠে কোন ধরণের ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে না। তাই মাঠটি এলাকাবাসি ছেড়ে দেওয়া হউক।

বক্তারা আরও বলেন, ৪৯ বছরের ঐতিহ্যবাহী শামলাপুর খেলারমাঠটি দখলমুক্ত করে খেলাধুলার পরিবেশ ফিরিয়ে দেয়ার জন্য কক্সবাজারের জেলা প্রশাসকসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত আবেদন করা হয়েছে। দুঃখের বিষয় এ পর্যন্ত কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। তাই আগামী ১৫ দিনের মধ্যে মাঠ দখলমুক্ত করা না হলে এলাকাবাসী উচ্ছেদসহ কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার হুঁশিয়ারি দেন।

মানববন্ধন ও পথসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, বাহারছড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাওলানা আজিজ উদ্দীন, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, বাহারছড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইফুল্লাহ, বাহারছড়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন খোকন সিকদার, সাবেক ইউপি সদস্য মো. হোছন, সাবেক ইউপি সদস্য আবদুল হক, ইউপি সদস্য আজিজুল ইসলাম, ইউপি সদস্য মো: ইউনুছ, বাহারছড়া ইউনিয়ন উত্তর শাখা যুবদলের সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ ইলিয়াস, টেকনাফ উপজেলা ক্রীড়া পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি জামিল সাদেক, টেকনাফ উপজেলা ক্রীড়া পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস মিন্টু, টেকনাফ উপজেলা ক্রীড়া পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ আফসার, ২নং ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি আমির মোহাম্মদ শাহজাহান, বাহারছড়া ইউনিয়ন উত্তর শাখা যুবদলের সদস্য সচিব জয়নাল আবেদীন জয়, জসিম উদ্দীনসহ সর্বস্তরের জনসাধারণ।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen + ten =

আরও পড়ুন