শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হলেও মাটিরাঙ্গায় বন্ধ হয়নি প্রাইভেট-কোচিং

fec-image

করোনাভাইরাস থেকে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষা রাখতে সরকার সারাদেশে ১৭ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছুটি ঘোষণা করেছে। বন্ধ ঘোষণা করেছে কোচিং চলমান সেন্টার গুলোও।

সরকারি এই নির্দেশনার পরেও মাটিরাঙ্গায় বন্ধ হয়নি কোচিং সেন্টারের আদলে পরিচালিত প্রাইভেট সেন্টারগুলো। প্রতিদিনই স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের দল বেঁধে প্রাইভেট সেন্টারগুলো থেকে বিড়ে ফিরতে দেখা গেছে।

ইতোমধ্যে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিভীষণ কান্তি দাশ নিজের ফেসবুকে মাটিরাঙ্গায় সবধরণের প্রাইভেট বন্ধ রাখার আহ্বান জানালেও সে আহ্বান মানছেন না কতিপয় শিক্ষক।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে স্থানীয় প্রশাসনের চোখ এড়াতে স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের স্কুল-কলেজের ড্রেসের বাইরে বোরকা পড়ে প্রাইভেটে আসতে উতৎসাহিত করছে শিক্ষকরা। প্রাইভেট-কোচিংয়ের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের প্রাণঘাতি করোনার মতো ভাইরাসের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন এক শ্রেণীর শিক্ষক এমনটাই মনে করছেন সচেতন মহল।

এদিকে একাধিক অভিভাবক নিজেদের নাম পরিচয় না প্রকাশ করার শর্তে এ প্রতিবেদককে বলেন, শিক্ষার্থীদের জীবন নয়, টাকাটাই মুখ্য হয়ে গেছে। তাই তারা সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে প্রাইভেট পড়ানো অব্যাহত রেখেছে। তারা এ বিষয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিভীষণ কান্তি দাশ বলেন, আমরা ইতোমধ্যে শিক্ষার্থীদের বাসা বাড়িত অবস্থানসহ মাটিরাঙ্গায় সবধরণের প্রাইভেট বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিয়েছি।

কোন শিক্ষক এ নির্দেশনা না মানলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি সন্তানকে প্রাইভেট বা কোচিংয়ে না পাঠাতে অভিভাবকদেরও আহ্বান জানান।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: করোনভাইরাস, কোচিং, মাটিরাঙ্গা
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twenty − 15 =

আরও পড়ুন