‘শেখ হাসিনার নির্দেশ সবাইকে ভেদাভেদ ভুলে এক কাতারে আসতে হবে’

fec-image

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার লক্ষ্যার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) দুপুরে লক্ষ্যারচর ইউনিয়নের ছিকলঘাট স্টেশন চত্বরে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে কাউন্সিলরদের প্রত্যক্ষ ভোটে বর্তমান সভাপতি রেজাউল করিম সেলিম চেয়ার প্রতীকে ১২২ ভোট পেয়ে পুনরায় সভাপতি ও ফুটবল প্রতীকে ৮৬ ভোট পেয়ে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক খ.ম বুলেট ফের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন।

সম্মেলনের শুরুতে দুপুরে প্রথম অধিবেশন শুরু হয়। লক্ষ্যারচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি  রেজাউল করিম সেলিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন চকরিয়া-পেকুয়া (কক্সবাজার-১) আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আলম।

লক্ষ্যারচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খ.ম বুলেট এর সঞ্চালনায় সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান গিয়াসউদ্দিন চৌধুরী, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ সম্পাদক এবং জেলা পরিষদ সদস্য লায়ন কমরউদ্দিন আহমদ, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আমিনুর রশিদ দুলাল, চকরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ একেএম গিয়াস উদ্দিন, চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ছরওয়ার আলম, সহ-সভাপতি মোক্তার আহমদ চৌধুরীসহ ইউনিয়ন ও সকল ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম এমপি বলেছেন, সম্মেলনের মাধ্যমে চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রতিটি ইউনিটকে ঢেলে সাজানো হবে। নতুন কমিটি নেতা নির্বাচনের ক্ষেত্রে দলের জন্য নিবেদিত ও ত্যাগী নেতাকর্মীদেরকে যথাযথ মুল্যায়ন করতে হবে। কমিটির নেতা নির্বাচনে অপকর্মে জড়িত থাকলে কেউ স্থান পাবেনা। এমনকি অনুপ্রবেশকারী কাউকে আওয়ামী লীগের পদায়ন করা হবেনা।

তিনি বলেছেন, দলত্যাগী ও বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছেন এমন নেতাও তালিকা থেকে বাদ যাবে। তবে গ্রহণযোগ্য ও ত্যাগী নেতাদের খুঁজে খুঁজে পদায়ন এবং কাউন্সিলার করতে হবে। উপজেলা আওয়ামী লীগের অধীনে সকল ইউনিয়ন শাখার সম্মেলন যথা সময়ে সম্পন্ন করতে হবে। সেইজন্য প্রতিটি ইউনিটের নেতাকর্মীকে দায়িত্বশীল ভুমিকা পালন করতে হবে। আশা করি দলের ঐক্যের প্রয়োজনে সকল ধরণের ভেদাভেদ ভুলে আওয়ামী লীগের সকলস্তরের নেতাকর্মীদেরকে এক কাতারে এসে কাজ করতে হবে। বিভেদ ভুলে যেতে হবে। এটি সভানেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আওয়ামী লীগ, সম্মেলন
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × 5 =

আরও পড়ুন