সকালের নাস্তা না খেলে কমে আসে স্মৃতিশক্তি

fec-image

সকালের নাস্তা দিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাবার। কিন্তু আমাদের অনেকেই সকালে উঠে না খেয়ে দিনের অনেকটা সময় কাটিয়ে দেয়। অফিসে বেরোনোর তাড়া বা ঘরের কাজের চাপে নাস্তাটা এড়িয়ে চলেন। সকাল আর দুপুরের খাবার একবারেই খান। অনেকে ওজন কমাতে কিংবা ফিট থাকতে ডায়েট করে থাকেন। আর তাই খাওয়ার তালিকা থেকে সকালের নাস্তাকে বাদ দিয়ে দেন।

এই প্রবণতা থেকে তৈরি হয়ে থাকে বিভিন্ন মারাত্মক শারীরিক ক্ষতি। যারা বিভিন্ন কারণে সকালের নাস্তা এড়িয়ে যান, তাদের নানা ধরনের শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়। আর তাই এটি মোটেও এড়িয়ে যাওয়া উচিত নয়।

সকালের নাস্তা না করলে যেসব শারীরিক সমস্যা হয়-

ডায়াবেটিসের ঝুঁকি : হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ পাবলিক হেলথ-এর গবেষণায় দেখা গেছে, খাওয়া-দাওয়ার সঙ্গে স্বাস্থ্যের নিবিড় যোগ রয়েছে। প্রায় ছয় বছর ধরে ৪৬ হাজার ২৮৯ জন নারীর ওপর গবেষণা করে দেখা গেছে, যেসব নারীর সকালের নাস্তা না করার অভ্যাস আছে তাদের মধ্যে টাইপ-২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বেশি।

অবসাদ : নাস্তা বাদ দেওয়ার ফলে মানুষ অবসাদগ্রস্ত বা ক্লান্ত হয়ে পড়ে। মেজাজ হয়ে যায় খিটখিটে। কমে আসে স্মৃতিশক্তি। তাই প্রতিদিন সকালে একটি স্বাস্থ্যসম্মত নাস্তা সকলের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজন।

হৃৎপিণ্ডের ক্ষতি : দিনের পর দিন সকালের নাস্তা না করলে হৃদরোগে আক্রান্ত হতে পারেন। একটি গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব পুরুষ সকালে নাস্তা এড়িয়ে যান তাদের মধ্যে ২৭ শতাংশের বেশি হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। স্বাস্থ্যকর নাস্তা হৃদরোগের সম্ভাবনা কমিয়ে দেয়।

মুড সুইং ও শক্তির ঘাটতি : সকালের নাস্তা না করলে মুড সুইং ও শক্তির ঘাটতি দুটিতেই প্রভাব পড়ে। গবেষণায় দেখা গেছে, যারা সকালের নাস্তা করেন না তারা সব থেকে বেশি ক্লান্তিবোধ করেন এবং ভুলে যান বেশি। সকালের খাবার এড়ালে শক্তি কমে যেতে পারে এবং স্মৃতিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। মেজাজও খারাপ থাকতে পারে।

ওজন বাড়বে : যদি ওজন কমাতে চান তাহলে ভুলেও সকালের নাস্তা এড়াবেন না। কারণ সকালের নাস্তা এড়ালে ক্ষুধা বাড়বে। তখন সামনে যা পাবেন তাই খেতে ইচ্ছে করবে।

বিপাকে প্রভাব ফেলে : ৮-১০ ঘণ্টা ঘুমানোর পর সকালের নাস্তা শরীরে যায়। ঘুমানোর বেশ কিছুক্ষণ আগে রাতের খাবার খাওয়া হয়। প্রায় ১২ ঘণ্টা শরীর খাবার পায় না। সকালে নাস্তা করলে তাই তাড়াতাড়ি হজম হয়ে যায়।

চুলের ক্ষতি : সকালের নাস্তা এড়ালে প্রোটিনের মাত্রা ভয়ঙ্করভাবে কমে যায় শরীরে, যা কেরাটিনের মাত্রায় প্রভাব ফেলে। কেরাটিন কমে গেলে চুলের বৃদ্ধি কমে যায়, চুল পড়তে শুরু করে।

সূত্র : বোল্ড স্কাই

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: খাদ্যাভ্যাস, লাইফস্টাইল, সকালের নাস্তা না খেলে
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen − 8 =

আরও পড়ুন