হিল উইমেন্স ফেডারেশনের দাবী

২৪ বছরে জেএসএস কর্তৃক ইউপিডিএফের ২৬২জন খুন হয়েছে

fec-image

সন্তু লারমাকে একজন সুবিধাবাদী ও সরকারের দালাল আখ্যায়িত করে হিল উইমেন্স ফেডারেশনের নেত্রী নীতি চাকমা বলেন, ‘আঞ্চলিক পরিষদের গদি রক্ষার জন্য সরকারের দালালি করেন। জুম্ম জনগণ আপনাকে চিনেছে, বিশ্ববাসী আপনাকে চিনে ফেলেছে। আপনি একজন দালাল, চরম সুবিধাবাদী। নিজের সুবিধার জন্য, নিজের গদি রক্ষার জন্য এমন কোন কুকাজ নেই আপনি করতে পারেন না। আপনি এই গদি রক্ষার জন্য শাসকগোষ্ঠীর পক্ষ হয়ে ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত জিইয়ে রেখেছেন। আপনি গদি রক্ষার জন্য নিজের দলের কর্মীদের বলি দিচ্ছেন, সাধারণ জনগণকে বলি দিচ্ছেন, জন্ম জাতিকে জিম্মি করে রেখেছেন। তবে মনে রাখবেন, এ জন্য ইতিহাস আপনাকে কোনদিন ক্ষমা করবে না। জুম্ম জাতি আপনাকে ক্ষমা করবে না।’

ভ্রাতৃঘাতী সংঘাত বন্ধের আহ্বান জানিয়ে পাহাড়ের দুই নারী সংগঠন পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘ ও হিল উইমেন্স ফেডারেশন রাঙামাটি শহরে আঞ্চলিক পরিষদের সামনে মানববন্ধন করেছে।

বুধবার (২০ জুলাই ২০২২) সকাল সাড়ে ১০টায় দুই সংগঠনের নেতা কর্মীরা এই মানববন্ধন কর্মসুচি পালন করেন। এ সময় তারা সংঘাত বিরোধী বিভিন্ন শ্লোগান দেয় এবং সন্তু, তোমার খুনের রাজনীতি বন্ধ কর, ‘খুনী সন্তুর শাস্তি চাই’, ‘সন্তু, ভ্রাতৃঘাতী সংঘাত বন্ধ কর’, ‘সন্তু, আর কত রক্ত চাই তোমার?’, ‘সন্তু, আর কত মায়ের বুক খালি করবে তুমি?’ ইত্যাদি শ্লোগান সম্বলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন।

এছাড়া প্ল্যাকার্ডের আরও কয়েকটি শ্লোগান ছিল, সন্তু দালালি বন্ধ কর, আন্দোলনের পথ ধর’, ‘চাবাই মারমার খুনী সন্তু তোমার রক্ষা নেই’, প্রদীপ লাল, কুসুম প্রিয় চাকমার খুনী সন্তু তোমার রক্ষা নেই’, ‘সন্তু আর কত ভাইয়ের প্রাণ ঝরলে তুমি ক্ষান্ত হবে?’, জীবন ত্রিপুরার খুনী সন্তুর রক্ষা নেই’।

মানববন্ধনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সভানেত্রী নীতি চাকমা। সন্তু লারমার কড়া সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘চারিদিকে এত ভূমি বেদখল হচ্ছে, মা-বোন ধর্ষণের শিকার হচ্ছে, লাঞ্ছিত অত্যাচারিত অপমানিত হচ্ছে। এত নির্যাতন চলছে। তারপরও আপনি তার বিরুদ্ধে টু শব্দটি পর্যন্ত না করে কেন ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত জিঁইয়ে রেখেছেন, আমরা তার উত্তর চাইতে এসেছি।’

চুক্তি বাস্তবায়নের কথা বললেও তার জন্য আন্দোলন না করায় নীতি চাকমা সন্তু লারমার সমালোচনা করে বলেন, ‘আপনি চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নের জন্য আন্দোলনের কথা বলেন, আবার সশস্ত্র সংগ্রাম শুরু করার কথা বলেন, প্রয়োজনে রক্ত দেওয়ার কথা বলেন। কিন্তু আপনার এসব কেবল কথার কথা, আপনি চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য আন্দোলন করেন না, বরং আন্দোলনের বিরোধিতা করেন, যারা আন্দোলন করতে চায়, তাদের বাধা দেন, তাদেরকে খুন করেন।

ইউপিডিএফের সাথে করা সমঝোতার শর্ত ভঙ্গের জন্য এইচডব্লিউএফ নেত্রী সন্তু লারমার সমালোচনা করে বলেন, ‘আপনি বিভিন্ন সময় ইউপিডিএফের সাথে সমঝোতা করেছেন। কিন্তু সুযোগ পেলেই আবার সমঝোতা লঙ্ঘন করেছেন। ২০০০ সালের ফেব্রুয়ারীতে খাগড়াছড়ির হারাঙহিয়া সমঝোতা, ২০০৬ সালে চট্টগ্রাম সমঝোতা এবং সর্বশেষ ২০১৮ সালের ৫ ফেব্রুয়ারির সমঝোতা জেএসএস লঙ্ঘন করে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

তিনি সন্তু লারমাকে ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত বন্ধ করে ২০১৮ সালের সমঝোতার শর্ত মেনে চলতে ও সরকাররের দালালি বন্ধ করার আহ্বান জানান।
তিনি বলেন, ‘চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য কর্মসূচি দিন। আমরা তাতে সমর্থন দেবো। ভূমি বেদখলের বিরুদ্ধে, নারীধর্ষণের বিরুদ্ধে, অন্যায় অত্যাচারের বিরুদ্ধে ইউপিডিএফের সাথে মিলে আন্দোলনের কর্মসুচি দিন, আমরা তাতে সর্বশক্তি নিয়োগ করে অংশগ্রহণ করবো।’

নীতি চাকমা তার বক্তব্যে সরকারেরও সমালোচনা করে বলেন, ‘আপনারা সন্ত্রাস দমনের কথা বলেন, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের কথা বলেন, আইন শৃঙ্খলা রক্ষার কথা বলেন। কিন্তু জনগণ জানে কারা সন্ত্রাস করছে, কারা সন্ত্রাসীদের লালন পালন করছে, কারা সন্ত্রাসীদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়েছে। নব্য মুখোশ নামে যারা পরিচিত, তাদেরকে কারা আশ্রয় প্রশ্রয় দিচ্ছে?’

তিনি পার্বত্য চট্টগ্রামে সন্ত্রাস বন্ধের জন্য নব্য মুখোশধারীদের আশ্রয় প্রশ্রয় ও মদদ দেয়া বন্ধ করা, তাদেরকে বিচারের আওতায় নিয়ে আসা এবং পার্বত্য চট্টগ্রামের সবচেয়ে দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী সন্তু লারমাকে গ্রেফতারের দাবি জানান।

গত ২৪ বছরে ইউপিডিএফের ৩৩৫ জন নেতা কর্মী ও সমর্থককে হত্যা করা হয়েছে, যার মধ্যে কেবল সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন জেএসএসের হাতে ২৬২ জন খুন হয়েছেন বলে তিনি উল্লেখ করে তিনি সন্তু লারমাকে প্রশ্ন করেন, ‘আর কত জনকে হত্যা করলে, আর কত রক্ত ঝরলে, আর কত মায়ের কোল খালি হলে আপনি ক্ষান্ত হবেন?’

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: জেএসএস, সন্তু লারমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশন
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × 1 =

আরও পড়ুন