সর্বনিম্ন ২৫ হাজার টাকা বেতন চান সরকারি কর্মচারীরা

fec-image

ছয় সদস্য বিশিষ্ট পরিবারের ব্যয় বিবেচনায় সরকারি কর্মচারীদের বেতন সর্বনিম্ন ২৫ হাজার টাকা করাসহ সাত দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী দাবি বাস্তবায়ন ঐক্য ফোরাম।

রোববার (২২ মে) সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের মাওলানা মোহাম্মদ আকরাম খাঁ হলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানায় সংগঠনটি।

ফোরামের নেতারা বলেন, নবম পে-স্কেল ঘোষণা না হওয়া পর্যন্ত অন্তর্বর্তীকালের জন্য ১১-২০তম গ্রেডভুক্ত কর্মচারীদের ৫০ শতাংশ মহার্ঘ ভাতা, শতভাগ পেনশন, স্বেচ্ছায় অবসরে চাকরির বয়সসীমা ২০ বছর নির্ধারণ এবং আনুতোষিক প্রতি ১ টাকায় ৩০০ টাকা নির্ধারণ করতে হবে এবং পে-কমিশনে কর্মচারীর প্রতিনিধি রাখতে হবে।

অন্য দাবিগুলোর হলো- সচিবালয়ের মতো এর বাইরে সব দপ্তর বা অধিদপ্তরে কর্মরত কর্মচারীদের পদবী ও গ্রেড পরিবর্তনসহ প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের জন্য এক ও অভিন্ন নিয়োগ বিধি প্রণয়ন করতে হবে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের প্রথম শ্রেণি ও সহকারী শিক্ষকদের দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তার পদমর্যাদা ও শতভাগ বিভাগীয় পদোন্নতি দিতে হবে। ব্লক পদ প্রথা প্রত্যাহার, পদোন্নতিযোগ্য পদ শূন্য না থাকলেও নির্ধারিত সময়ের পর উচ্চতর পদের বেতন স্কেল দিতে হবে, ঝুঁকিপূর্ণ কর্মে নিয়োজিত কর্মচারীদের যৌক্তিকভাবে ঝুঁকিভাতা দিতে হবে ও আউট সোর্সিং নিয়োগ প্রথা বিলুপ্ত করতে হবে।

ফোরামের আহ্বায়ক হেদায়েত হোসেন লিখিত বক্তব্যে বলেন, ২০১৫ সালে ঘোষিত বেতন স্কেলে শুভঙ্করের ফাঁকির মধ্যে ১১-২০তম গ্রেডভুক্ত কর্মচারীদের বিভিন্নভাবে ঠকানো হয়েছে, বৈষম্যে নিপতিত করা হয়েছে। ১১-২০তম গ্রেডভুক্ত কর্মচারীদের মধ্যে সৃষ্ট বৈষম্য, আর্থিক দৈন্যতাসহ সার্বিক বিষয় নিরসনের জন্য বিভিন্ন কর্মচারী সংগঠন হতে সরকারের কাছে বিভিন্ন সময়ে দাবি পেশ করা হলেও তা উপেক্ষিত হয়েছে।

তিনি বলেন, জীবন ধারণের জন্য প্রয়োজনীয় নিত্যপণ্যের দাম ক্রমাগতভাবে বৃদ্ধির দৃষ্টান্ত আমাদের দেশের প্রচলিত প্রথা। এরই মধ্যে গত দুবছরে অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে নিত্যপণ্যের মূল্য। ফলে নিম্ন বেতনভুক্ত কর্মচারীরা দিশেহারা। এমনি পরিস্থিতিতে আর্থিক দৈন্যতায় নিপতিত প্রজাতন্ত্রের ১১-২০তম গ্রেডভুক্ত কর্মচারীদের প্রতিনিধিত্বকারী সমমনা সংগঠনসমূহ একাধিক মতবিনিময় সভায় মিলিত হয়ে একটি মঞ্চে এসে এক ও অভিন্ন দাবি সরকারের নিকট পেশ করছি।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন ফোরামের সমন্বয়ক মো. লুৎফর রহমান, মুখ্য সমন্বয়ক মো. ওয়ারেছ আলী প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

14 + 11 =

আরও পড়ুন