সুইডেনে কোরআন পোড়ানোর ঘটনায় ওআইসির জরুরি বৈঠক

fec-image

সুইডেনে কোরআন পোড়ানোর ঘটনায় অরগানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন (ওআইসি) জরুরি বৈঠক আহ্বান করেছে। আগামী সপ্তাহে সংস্থাটির সদর দপ্তর জেদ্দায় এ বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। আরব নিউজ এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

ওআইসির মুখপাত্র জানিয়েছেন, বৈঠকে কোরআন পোড়ানোর মতো ঘৃণ্য কাজের বিষয়ে সব মুসলিম দেশের ঐকমত্যের ভিত্তিতে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

বুধবার (২৮ জুন) স্টকহোমের সবচেয়ে বড় মসজিদের সামনে ইরাকি যুবক সালওয়ান মোমিকার কোরআন পোড়ান। এতে মুসলিম বিশ্বে নিন্দা ও ক্ষোভের ঝড় ওঠে। কিছু মুসলিম দেশ সুইডেনের রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহার করেছে এবং সুইডিশ রাষ্ট্রদূতদের ডেকে প্রতিবাদ জানিয়েছে।

গতকাল শুক্রবারও ক্ষোভ অব্যাহত ছিল। সুইডেনের সঙ্গে ইরাকের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার দাবিতে বাগদাদে সুইডিশ দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ করেছেন জনপ্রিয় শিয়া ধর্মগুরু মোকতাদা আল-সদরের হাজারো সমর্থক।

বিক্ষোভকারীরা ইরাকি পতাকা এবং আল-সদর ও তাঁর বাবার প্রতিকৃতি প্রদর্শন করেছেন। আল-সদরের বাবাও একজন বিশিষ্ট আলেম ছিলেন। বিক্ষোভকারীরা এ সময় ‘কোরআনের প্রতি হ্যাঁ, হ্যাঁ, মোকতাদা, মোক্তাদা’ বলে স্লোগান দেন।

শিয়া ধর্মগুরু মোকতাদা আল-সদর সুইডেনের রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার এবং সুইডেনের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার দাবিতে বাগদাদে সুইডিশ দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ ডেকেছিলেন।

এদিকে ইরাকি ওই যুবক আবারও কোরআন পোড়ানোর হুমকি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘১০ দিনের মধ্যে আমি স্টকহোমে ইরাক দূতাবাসের সামনে ইরাকি পতাকা ও কোরআন পুড়িয়ে দেব।’

সুইডেনের ‘এক্সপ্রেসেন’ সংবাদমাধ্যমকে মোমিকা জানান, তিনি জানতেন এই কাজের প্রতিক্রিয়া আসবে, হাজারো হত্যার হুমকিও পেয়েছেন এরই মধ্য। তবে তিনি কোরআন পোড়ানোকে কোনো জাতির প্রতি বিদ্বেষ বলে মনে করেন না, বরং এটি মত প্রকাশের স্বাধীনতা বলে মনে করেন।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আহ্বান, ওআইসি জরুরি বৈঠক, কোরআন
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন