সেতুর অভাবে দুর্ভোগে বরকলের কলাবুনিয়াবাসী

fec-image

পার্বত্য রাংগামাটি জেলার বরকল উপজেলাধীন ৩নং আইমাছড়া ইউনিয়নের উত্তর কলাবুনিয়ার কুটির শিল্প সংলগ্ন সেতুটি খুবই ঝুকিপূর্ন হয়ে আছে। যে কোন মূহুর্তেই বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। অনেক চেষ্টা তদবির করেও ব্রীজটির পুনঃনির্মাণ সম্ভব হয় নাই।

এ বিষয়ে উক্ত এলাকাবাসীর পক্ষে অত্র এলাকার বাসিন্দা মো. মনির লিডার জানান, ২০১৬ সালে বড় বন্যায় পানির চাপে সেতুটি দুমরে মুচরে ভেঙ্গে পড়ে যায়, বিষয়টি স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের মাধ্যমে বর্তমান সংসদ সদস্য জননেতা দীপংকর তালুকদার (এমপি)র দৃষ্টিগোচর করানো হয় এবং তিনি ২০১৮ এর নির্বাচনি ইসতেহারে সেতুটি নির্মাণ করে দেওয়ার অঙ্গিকার ব্যক্ত করলেও এখনও সেতুটি পুন:নির্মাণের কোন আলামত পরিলক্ষিত হচ্ছে না।

এই সেতুটির উপর সম্পূর্ণ ইউনিয়নের মানুষ নির্ভরশীল, তন্মমধ্যে প্রাইমারি, হাইস্কুল মাদরাসা সহ হাজার হাজার মানুষের যাতায়াত এই একটি সেতু দিয়েই। দীর্ঘদিন যাবত এই ইউনিয়নের মানুষ প্রচুর ভোগান্তির স্বীকার হচ্ছেন? বর্তমানে মানুষ অনেক রিস্ক নিয়ে যাতায়াত করছে, যেকোন মুহূর্তে বড় দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে! তাই এলাকাবাসী এই সেতুটি নির্মাণ পূর্বক এলাকার দীর্ঘদিনের হতাশা ও অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা করতে জোর দাবি জানিয়েছেন।

এ বিষয়ের আওয়ামী লীগ নেতা নাছির উদ্দিন মহারাজ জানান, উক্ত ব্রিজটি আমাদের কলাবুনিয়াবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি।

এই ব্রিজটি দিয়ে ৬ থেকে ৭টি গ্রামের লোকজন চলাচল করে। রতন কাবা, হেডবাড়িয়া, রামা ছড়া, বাংগাল টিলা, জারুল ছড়ি, ১নং উত্তর কলাবুনিয়া, ২নং দক্ষিণ কলাবুনিয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, নিকসেন্দ্রা সরকারি প্রা. বি., কলাবুনিয়া নিন্ম মাধ্যমিক বিদ্যালয়, দক্ষিণ কলাবুনিযা দারুল আরকাম মাদ্রাসা উল্লেখযোগ্য।

বর্তমানে কলাবুনিয়া বাজার রবিবার, সাপ্তাহিক হাটকে কেন্দ্র করে পাহাড়ি বাঙ্গালি মিলে শত শত লোকের মানুষের সমাগম হয়।

তাই অত্র এলাকার মানুষের মনের দাবি প্রানের দাবি পাহাড়ি বাঙ্গালির জননেতা দীপংকর তালুকদার এমপি এর কাছে কলাবুনিয়া কুটির শিল্প এলাকায় একটি ব্রিজ পুর্ন: নির্মাণ করার জোর দাবি জানিয়েছেন।

একটি সূত্র থেকে জানা গেছে, গত বছরে একবার উন্নয়ন বোর্ডে ব্রিজটি নির্মাণের জন্য আবেদন করা হয়েছে। কিন্তু সেখান থেকে কোন রকম সহায়তা পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × 4 =

আরও পড়ুন