‘সেতু’ নামের অভিশাপে বন্দি সোনাইয়ের বাসিন্দারা

fec-image

রাঙামাটির উপজেলাগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ঘনবসতি এলাকা হলো লংগদু। মাইনীমুখ এই উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ ও ঘনবসতিপূর্ণ ইউনিয়ন। ইউনিয়নটি যেমন ব্যবসা-বাণিজ্যের মূলকেন্দ্র তেমনি অনেক সরকারি প্রতিষ্ঠান, প্রাইমারী-হাইস্কুল এবং মাদ্রাসাও রয়েছে এখানে।

বর্তমান সরকার ইউনিয়নটির গুরুত্ব বুঝে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ করে দিতে স্থানীয়দের দাবির মুখে ‘সোনাই ৩নং ব্লক এবং সোনাই বাজার-নোয়াখালী পাড়া’ এলাকায় দু’টি সেতু নির্মাণের সিন্ধান্ত গ্রহণ করে। সেতু দু’টি নির্মাণের দায়িত্ব দেওয়া হয়- রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদকে।

সরেজমিনে গেলে দেখা যায়, সোনাই ৩নং ব্লক এলাকার সেতুটির কাজ অসমাপ্ত রয়ে গেছে প্রায় ১০ বছর ধরে। মাইনী নদীর এইপার-ওইপার মিলে কয়েকটি পিলার তোলা হয়েছে মাত্র। সেতুর অভাবে বাঁশের ভেলা দিয়ে পার হতে গিয়ে অনেক শিশু স্কুল শিক্ষার্থী মারা গেছেন বলে অভিযোগ করেন স্থানীয়রা।

সোনাই ৩নং ব্লক এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা খাদিজা বেগম বলেন, কত কষ্টে আছি বুঝাতে পারবো না। আমার বাচ্চারা স্কুলে যায় বাঁশের ভেলায় পার হয়ে। প্রতি বছরই নদী পার হওয়ার সময় কোনো না কোনো শিশু শিক্ষার্থী নদীতে ডুবে মারা যায় বলে জানান তিনি।

স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল মোতালেব জানান, এটা সেতু নয়, আমাদের জন্য অভিশাপ। সেতুর কাজ শেষ করতে আন্দোলন করে যাচ্ছি, কিন্তু কিছুই হচ্ছে না।

এদিকে ‘সোনাই বাজার-নোয়াখালী পাড়া’ নামক সেতুটির কাজও বন্ধ রয়েছে প্রায় পাঁচ বছর ধরে। সেতুটির মাত্র এক তৃতীয়াংশ কাজ শেষ হয়েছে। ওই এলাকায় একটি গুরুত্বপূর্ণ হাট-বাজারও রয়েছে সেতুটির একপ্রান্তে। সেতুটির কাজ শেষ না হওয়ায় দুই পারের সহস্ত্রাধিক মানুষ এবং ব্যবসায়ীদের প্রতিদিন চরম দুর্ভোগ পেহাতে হচ্ছে।

ওই এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা মো. বেলাল হোসেন ব্রিজ নির্মাণের কাজে শ্রমিক সরবরাহ করতেন। তিনি জানালেন, ব্রিজটির বেশিরভাগ কাজ শেষ হয়ে গেছে। অল্প কিছু কাজ বাকী আছে। কিন্তু এইটুকু কাজ আর গত ৫ বছর ধরে করছে না ঠিকাদার। ঠিকাদার শুধু বলেন, হয়ে যাবে, করে ফেলবো। কিন্তু কাজ আর হয় না।

ওই এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা মো. সেলিম, লোকমান হোসেন, মো. ফারুক, মো. রুবেল, মো. সুমন অভিযোগ করে বলেন, আমরা অনেক কষ্টে আছি। বর্তমান সরকার দেশে এত উন্নয়ন করছে অথচ আমাদের এলাকার গুরুত্বপূর্ণ অসমাপ্ত সেতুটির কাজ সমাপ্তের উদ্যোগ নিচ্ছে না। কি কারণে সেতুর কাজ বন্ধ আছে তা জানি না। তবে সরকারের কাছে অনুরোধ, আমাদের এলাকার সেতুর কাজ দ্রুত সময়ের মধ্যে যেন শেষ করে দেয়।

মাইনীমুখ ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের কমিশনার এবং সোনাই বাজার এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা আবুল হাসেম বলেন, আমার এলাকায় সহস্র মানুষের বসবাস। এইজন্য সরকার আমার এলাকার জনণের যোগাযোগ সহজ করতে দু’টি সেতু নির্মাণের উদ্যেগ নেয়। অনেক বছর ধরে আমাদের এলাকার দু’টি সেতুর কাজ পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। সরকারের কাছে আমার একটাই দাবি- এলাকার স্বার্থে সেতু দু’টির কাজ যেন সরকার শেষ করে।

জানা গেছে, ‘সোনাই ৩নং ব্লক’ এবং ‘সোনাই বাজার-নোয়াখালী পাড়া’ নামক সেতু দু’টি নির্মাণ কাজের দায়িত্বে রয়েছে পার্বত্য জেলা পরিষদ। জেলা পরিষদ ২০১১ সালের দিকে ‘সোনাই ৩নং ব্লক সেতু’ এবং ২০১৫ সালের দিকে ‘সোনাই বাজার-নোয়াখালী পাড়া’ নামক সেতুটি নির্মাণ কাজে হাত দেয়। তবে সেতু দু’টির বাজেট কত, কবে নাগাদ সেতু দু’টির কাজ শেষ হবে এ ব্যাপারে জেলা পরিষদের দায়িত্বরত কর্মকর্তারা তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানান।

রাঙমাটি জেলা পরিষদের নির্বাহী প্রকৌশলী বিরল বড়ুয়া বলেন, আমি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ ছাড়া কোন বক্তব্যে বা তথ্য দিতে পারবো না।

রাঙামাটি জেলা পরিষদের মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন, আমি নতুন এসেছি। আমি আপনাদের মাধ্যমে বিষয়টির ব্যাপারে অবগত হয়েছি। আমি সরেজমিনে গিয়ে বিষয়টি দেখে পরবর্তী কী ব্যবস্থা নিবো তা আপনাকে জানানো হবে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × four =

আরও পড়ুন