মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ও কোস্টগার্ডের যৌথ অভিযান

সেন্টমার্টিনে ১ লাখ ৭০ হাজার ইয়াবাসহ ৬ মিয়ানমার নাগরিক আটক

fec-image

কক্সবাজার টেকনাফের সেন্টমার্টিন সাগরে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ও কোস্টগার্ডের যৌথ অভিযানে ১ লাখ ৭০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। এসময় ৬ জন মিয়ানমার নাগরিককে আটক করা হয়।

অভিযান পরিচালনা করেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর টেকনাফ বিশেষ জোন ও কোস্টগার্ড ।

এসময় একটি ফিশিং বোট জব্দ এবং মিয়ানমারের আকিয়াব জেলার মৃত নূর আহম্মদের ছেলে কেপায়েত উল্ল্যাহ (২২), মৃত আব্দুল গাফ্ফারের ছেলে মো. শরিফ (২৭), জালাল উদ্দিনের ছেলে মো. হোছন (৩৮), মৃত হারেদের ছেলে ছৈয়দুর রহমান (৪৩), মৃত রশিদ আহম্মদের ছেলে মো হোছন (২৭) ও নূর কবিরের ছেলে নূর হোসেন (২১)কে আটক করা হয়।

এ বিষয়ে মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) বিকাল সাড়ে ৩টায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর টেকনাফ বিশেষ জোন এর সহকারী পরিচালক মো. সিরাজুল মোস্তফা জানান, গোপন সংবাদে জানা যায়, মাদকের একটি বড় চালান মিয়ানমার হতে বাংলাদেশে প্রবেশ করবে। এই সংবাদের ভিত্তিতে কোস্ট গার্ড ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর টেকনাফ বিশেষ জোন সেন্টমার্টিন সাগর এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে। ভোর রাত ৩ টারদিকে সেন্টমার্টিন ছেঁড়াদ্বীপ হতে আনুমানিক ৩ নটিক্যাল মাইল দক্ষিণ পূর্বে মিয়ানমার সীমান্ত হতে একটি ফিশিং বোটকে মিয়ানমার সীমানা অতিক্রম করে বাংলাদেশ সীমানায় আসতে দেখে বোটটিকে ইয়াবা বহনকারী বোট হিসেবে সনাক্ত করা হয়।

তিনি আরো জানান, ওই বোটটি কাছাকাছি আসলে টিমের সদস্যরা তাদের বোট থেকে দূরবর্তী ওই বোটটিকে, টর্চ ও বাঁশির মাধ্যমে থামার সংকেত দিলে বোটটি না থেমে গতিবিধি পরিবর্তন করে মায়ানমারের দিকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। তখন ধাওয়া করে উক্ত বোটের কাছে গেলে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র দ্বারা আক্রমণের চেষ্টা করা হয়। এসময় কোস্টগার্ড সদস্যরা ৪ রাউন্ড ফাঁকা গোলা ছুঁড়ে। পরে উক্ত বোটে তল্লাশি চালিয়ে একটি বস্তায় হতে ১ লাখ ৭০ হাজার পিস ইয়াবা ও একটি সিমকার্ড বিহীন স্মার্টফোন জব্দ করে এবং ইঞ্জিন চালিত কাঠের বোটসহ ৬ জন মিয়ানমার নাগরিককে আটক করা হয়।

উল্লেখ্য, কোস্ট গার্ডের লে. কমান্ডার আশিক আহমেদ (ট্যাজ) বিএন এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর টেকনাফ বিশেষ জোনের সহকারী পরিচালক মো. সিরাজুল মোস্তফা এর নেতৃত্বে বিসিজি স্টেশন টেকনাফ ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, টেকনাফ কর্তৃক এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন