হাত পায়ের রগ কেটে স্ত্রীকে হত্যা করলো স্বামী

fec-image

টাকা দেওয়ার কথা বলে ডেকে নিয়ে মোহছেনা আক্তার (৩৮) নামক গৃহবধূকে হত্যা করেছে দ্বিতীয় স্বামী রিদুয়ান। কেটে দেয়া হয়েছে হাত ও পায়ের রগ। মঙ্গলবার (২৫ জানুয়ারি) সকাল ৯টার দিকে সদর ইউনিয়নের মেহেরনামা নুইন্যামুইন্যা ব্রীজ সংলগ্ন বিল থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহত মোহছেনা কক্সবাজার শহরের খাজা মঞ্জিল এলাকার ছাবের আহমদের মেয়ে। রিদুয়ানের বাড়ি চকরিয়া উপজেলা কোনাখালীতে। নিহতের ছেলে আরিফ জানিয়েছেন, টাকা দেয়ার কথা বলে ডেকে নিয়ে তার মাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে সৎবাবা রিদুয়ান। আমার বাবা মালেয়শিয়ায় থাকত। সেখানে গত বছর মারা যান। আমার বাবার সাথে মালেয়শিয়াতেই পরিচয় হয় কোনাখালীর রিদুয়ানের। এরপর রিদুয়ান বাংলাদেশে আসলে আমাদের পরিবারের সাথে সম্পর্ক গড়ে উঠে।

গত বছর মালেয়শিয়ায়তেই আমার বাবা মারা যায়। আর সাত আট মাস আগে রিদুয়ানের সাথে আমার মায়ের বিয়ে হয়। তবে আমার মা কখনো রিদুয়ানের বাড়িতে থাকেনি। রিদুয়ানই আমাদের সাথে শহরের খাজামঞ্জিল এলাকায় এসে মাঝেমধ্যে থাকত।

আরিফ আরও বলেন, সোমবার দুপুরে রিদুয়ান আমার মাকে ফোন করে টাকার জন্য যেতে বলে। পরে দুপুর ২ টার দিকে মা টাকার জন্য কোনখালীর উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়। এরপর বৃহস্পতিবার পুলিশের ফোনে জানতে পারি আমার মায়ের মৃতদেহ পেকুয়া সদরের নুইন্যামুইন্যা ব্রিজ সংলগ্ন বিল থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী নজরুল ইসলাম, হেফাজ উদ্দিন বলেন, সকালে বোরো চাষের জন্য জমিতে কয়েকজন শ্রমিক কাজ করতে যাই। এ সময় বিলের মাঝে একটি রক্তাক্ত মহিলার লাশ দেখতে পাই। পরে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। স্থানীয়দের ধারণা, ওই মহিলাকে অন্য কোথাও খুন করে গভীররাতে বিলে ফেলে রেখে চলে যায়।

দেখা গেছে, বিলের মাঝে চিৎ হয়ে পড়ে আছে বোরকা ও নেকাব পরানো মহিলা। দুই পা ও বাম হাতের রগ কেটে দেয়া হয়েছে। বুকের মাঝখানে রক্তে ভিজে গেছে বোরকা। কাটা হাত থেকে রক্ত ঝরে পড়ছে মাটিতে। লাশের পাশে একটি ভ্যানেটি ব্যাগ। পায়ের জুতাগুলো ছিটিয়ে ছটিয়ে রয়েছে পাশে। লাশের বিশ হাত দূরে একটি দু’ধারা ছোরা মাটিতে পুঁতে রাখছে। দেখা গেছে, ব্যাগের ভেতর একটি মুঠোফোন, ভোটের স্মার্টকার্ড ও অল্পকিছু টাকা। নৃশংসভাবে তাকে খুন করা হয়েছে।

পেকুয়া থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী বলেন, নৃশংসভাবে গৃহবধূকে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করছে সিআইডি ক্রাইমসীন। পিবিআই টীমও কাজ করছে। তিনি মনে করেন, বাহিরে কোথাও খুন করে গভীররাতে হয়তো লাশটি ফেলে চলে গেছে। তবে কি জন্য, কেন খুন করা হয়েছে তা অগ্রিম বলতে পারছি না। লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করে মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fourteen + 13 =

আরও পড়ুন