হালাল-হারাম বিতর্কে বাদ্যযন্ত্র ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা আলী হাসানের

fec-image

‘ব্যবসার পরিস্থিতি’ শিরোনামে একটি গান দিয়ে রাতারাতি আলোচনায় আসেন নারায়ণগঞ্জের তরুণ আলি হাসান। এরপর বেশ কিছু গানে কণ্ঠ দিতে দেখা যায় তাকে। কিছুদিন আগে কোক স্টুডিও বাংলার ‘মা লো মা’ গানে কণ্ঠ দিয়েও বেশ প্রশংসিত হয়েছেন তিনি। সম্প্রতি এই গায়ক আলোচনায় এসেছেন গানকে হারাম দাবি করে।

একটি টিভি অনুষ্ঠানের অতিথি হয়ে র‍্যাপার আলী হাসান বলেন, ‘গান-বাজনার টাকা হারাম। এত হাদিস চলবে না। যেটা হারাম, হারাম-ই। আমার অটো বিজনেসের টাকা হালাল। সংগীত থেকে আয় হচ্ছে হারাম। এ জন্য ব্যবসার টাকায় (হালাল আয়) বাজার-সদাই করি, আর মিডিয়ার টাকায় (হারাম আয়) বিল্ডিং তৈরি করি। মিলাই-ঝিলাই করতেছি।’

গান নিয়ে এমন বন্তব্যের কারণে নেটিজেনদের রোষানলে পড়েছেন আলী হাসান। আর তার সেই বক্তব্যের ক্লিপস এখন ভাইরাল ফেসবুকে। বিষয়টি নজরে এসেছে তরুণ এই গায়কেরও।

বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করা হলে আলী জানালেন গান ছাড়ছেন না তিনি। তবে নিজের গানে ব্যবহার করবেন না বাদ্যযন্ত্র। গাইবেন ইসলামি গান।

আলী হাসানের দাবি, তার বক্তব্য অনেকে বুঝতে পারেননি। বিষয়টির ব্যাখ্যা দিয়েছেন হাসান। তার ভাষ্য়, ‘আসলে আমি বলতে চেয়েছি, গানে যে বাদ্য-বাজনা ব্যবহার হয়, তা আমাদের ধর্মে হারাম। সেই কাজগুলো ছেড়ে দিতে চাই। পুরো ইন্টারভিউটা দেখলে আপনার হয়তো আমার মনের কথাটা বুঝতে পারবেন। ছোট একটি ক্লিপস দেখে, কাউকে বিচার করবেন না। যদি আমার অসৎ উদ্দেশ্য থাকত, তাহলে এ বিষয়ে কথা বলতাম না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি প্রায় এক ঘণ্টার একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছি। এর মধ্যে অনেক বিষয় নিয়ে কথা বলেছি। অনেক প্রশ্নের উত্তর মজা করে দিয়েছি। আবার কিছু প্রশ্নের উত্তর ওভাবে গুছিয়ে বলতে পারিনি। আর যেটা নিয়ে এখন আলোচনা হচ্ছে—সেটা মজার ছলে বলেছি।’

প্রোডাকশন ম্যানেজারকে মেরে কানের পর্দা ফাটানোর অভিযোগ নির্মাতার বিরুদ্ধেপ্রোডাকশন ম্যানেজারকে মেরে কানের পর্দা ফাটানোর অভিযোগ নির্মাতার বিরুদ্ধে
সমালোচনার বিষয়ে আলী হাসান বলেন, ‘অনেকেই ট্রল করছে। এসব নিয়ে আমার কোনো মাথাব্যথা নেই। মানুষ মাত্রই ভুল আর আমার কথায়, আচরণে, চলাফেরায় ভুল হতেই পারে। হয়তো আমার মনের কথাগুলো গুছিয়ে বলতে পারিনি। হালাল খাই, হারামে থাকি—বিষয়টি এমন না। দুটি মিলিয়েই চলছি। আর এটাকে (গান) আমি কাজ হিসেবেই দেখছি। অনেকে বুঝেছে আবার অনেকে বুঝেনি। তবে আমার আয়ের পথটা ভালোর দিকে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছি।’

আলী হাসান জানান, বাদ্যযন্ত্র ছেড়ে দিলেও মিডিয়ায় থাকবেন তিনি। র‌্যাপ বা আধুনিক গান ছাড়লেও ভবিষ্যতে ইসলামী সংগীতের সঙ্গে যুক্ত থাকার ইচ্ছা আছে তাঁর।

এ প্রসঙ্গে র‌্যাপারের ভাষ্য, ‘বর্তমানে গান ও অটো ব্যবসা দুটো মিলিয়েই চলছি। ধীরে ধীরে গান থেকে সরে আসব। বেশ কয়টি গানের কাজ হাতে আছে। সেগুলো শেষ করে গান ছেড়ে দেওয়ার ইচ্ছা আছে। আমার শেষ গানের শিরোনাম হবে ‘ইসলাম’। এটি তৈরি করার পর আর গান লিখব না। প্রকাশের পর মানুষ হয়তো বুঝতে পারবে, কেন আমি গান ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন