সংরক্ষণ করা হলে অগণিত পর্যটকের নতুন গন্তব্য হতে পারে বান্দরবানের ‘আল্লাহ পর্বত’

fec-image

সম্প্রতি গুগল ম্যাপের স্যাটেলাইট ভিউতে ধরা পড়ে অদ্ভূত এক ব্যাপার। বান্দরবানের পাহাড়ে অঙ্কিত আছে ‘আল্লাহু’ শন্দের অপূর্ব এক নকশা! বান্দরবান জেলায় অবস্থিত প্রাকৃতিক জলপ্রপাত নাফাকুম থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার পশ্চিমে রেমাক্রির সন্নিকটে অবস্থিত একটি জায়গায় আরবিতে ‘আল্লাহু’ লেখার আদলের এ নকশাটি দেখা যায়।

জুম ইন করলে দেখা যায়, ছোট ছোট পাহাড়ের খাঁজের মাধ্যমে সৃষ্ট ধূসর অংশের বাঁকগুলো মিলিতভাবে আরবিতে ‘আল্লাহু’ লেখার আদলে স্পষ্ট হয়ে আছে। অনেকগুলো পাহাড় একত্রে মিলে এই অসাধারণ নকশাটি তৈরি করেছে।

গত ২১ অক্টোবর (বুধবার) বিষয়টি নিয়ে জনপ্রিয় অনলাইন পার্বত্যনিউজে এই নিয়ে বান্দরবান পাহাড়ের গুগল ম্যাপে ‘আল্লাহ্` শব্দের নকশা শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হলে সামাজাকি গণমাধ্যমে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়। বিষয়টি যাচাই করার জন্য গুগল ম্যাপে ব্রাউজ করে অনেক পাঠক নিজেরা এর সত্যতা দেখতে পেয়ে অভিভূত হয়ে পড়েন।

 

আগ্রহী কোনো গুগল ইউজার প্রথমে পাহাড়টিকে `আল্লাহু লেখা পাহাড়/ The Holy Hill’ হিসেবে গুগল ম্যাপে চিহ্নিত করে দেয়। তবে শুক্রবার (২৩ অক্টোবর) সন্ধ্যায় গুগল ম্যাপে গিয়ে দেখা যায়, উল্লেখিত স্থানটি ‘আল্লাহু লেখা পাহাড়’ নামে চিহ্নিত করা আছে।

ইতোমধ্যে আলোচিত পাহাড়টির গুগল ম্যাপের বিভিন্ন অ্যাঙ্গেলের ছবি ফেসবুকসহ বিভিন্ন  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। ছবিটির প্রচারের পাশাপাশি অনেকেই পাহাড়টিকে সংরক্ষণের দাবি করেছেন। কেউ কেউ আশঙ্কা প্রকাশ করছেন, প্রাকৃতিকভাবে সৃষ্ট আল্লাহু শব্দের এই অপূর্ব নকশাটি বিকৃত করার জন্য কোনো কোনো মহল থেকে ষড়যন্ত্র হতে পারে। তাই তারা এটিকে যথাযথভাবে সংরক্ষণের দাবি জানান।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীরা এটাও বলছেন যে, স্থানটি যথাযথভাবে সংরক্ষণের উদ্যোগ নিলে, বান্দরবানের আল্লাহু শব্দের নকশাকৃতির এই ‘আল্লাহ পর্বত’ হয়ে উঠতে পারে অগণিত পর্যটকের নতুন গন্তব্য। এতে বান্দরবানের পর্যটনের গুরুত্ব যেমন আরো বাড়বে, তেমনি বিপুল পর্যটকের সমাবেশকে ঘিরে এখানে স্থানীয়দের নতুন নতুন কর্মসংস্থানও হতে পারে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eight − 6 =

আরও পড়ুন