একে-৪৭ রাইফেল উদ্ধার

বাঘাইছড়িতে আঞ্চলিক দলের বন্দুকযুদ্ধে পরিচালক ও সামরিক কমান্ডারসহ নিহত ২

fec-image

বাঘাইছড়ি উপজেলার সদর হতে দুই কিলোমিটার নামক স্থানে বুধবার (২৯ ডিসেম্বর) বারোটা দশ মিনিটের দিকে জেএসএস সন্তু লারমা দল ও গণতান্ত্রিক ইউপিডিএফ দলের দুই গ্রুপের মধ্যে বন্দুক যুদ্ধে পরিচালকসহ সামরিক কমান্ডার নিহত হয়েছেন ও একজন পথচারি আহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন, জেএসএস সন্তু লারমা দলের সেকশন কমান্ডার তজিম চাকমা (২৮) তারবাড়ী বাঘাইছড়ি ইউনিয়নের রাবার বাগান এলাকায়। গণতন্ত্র ইউপিডিএফ বাঘাইছড়ি পরিচালক জানং চাকমা (৩৪) তার বাড়ি বঙ্গলতলী ইউনিয়নে বলে জানা গেছে। ঘটনাস্থলে বিজিবি পুলিশ আনসার সদস্য, নিরপত্তার জন্য মোতায়েন করা হয়েছে। এবং বাঘাইছড়ি থানার পুলিশ দুই জনের মরদেহ উদ্ধার করেছে।

এলাকাবাসীর তথ্য অনুসন্ধানে জানা গেছে, জেএসএস সন্তু লারমা দলের সামরিক সদস্যরা গভীর রাতে একটি সিএনজি নিয়ে দুই কিলো চায়ের দোকানের পাশে ফুলের ঝারু বাগানে ওঁৎপেতে অবস্থান নেয় জেএসএস সন্তু লারমা দলের সামরিক সদস্যরা। গণতন্ত্র ইউপিডিএফ পরিচালক জানং চাকমা চায়ের দোকানের প্রবেশ করে বসলে শুরু হয় গোলাগুলি এতে ঘটনা স্থলে জানং চাকমা নিহত হয়। পরে উভয় পক্ষই ঘন্টাব্যাপী বন্দুক যুদ্ধে জেএসএস সন্তু লারমা দলের সেকশন কমান্ডার নিহত হয়।

এতে জেএসএস সন্তু লারমা দলের সামরিক সদস্য সুজন চাকমা এক পথচারী মনুমিয়া হাঁটুতে গুলিবিদ্ধ হয়ে বাঘাইছড়ি হাসপাতাল থেকে খাগড়াছড়ি জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি থমথমে বিরাজ করছে। পরিস্থিতি শান্ত রাখতে অতিরিক্ত বিজিবি, আনসার, পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বিজিবি মারিস্যা জোনের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক লে. কর্ণেল মো. এরশাদুল হক বলেন, খবর পেয়ে বিজিবির দুইটি টহলদল ঘটনাস্থলে পৌঁছে দুইটি মৃতদেহ উদ্ধার করি। ঘটনাস্থলের আশেপাশে তল্লাসি করে একটি একে ৪৭ রাইফেল ও দুইটি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়েছে। আমাদের তল্লাশি অব্যাহত রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে আশেপাশে আরো গুলিবিদ্ধ আহতরা থাকতে পারে।

বন্দুকযুদ্ধে নিহত তজিম চাকমা ও জানং চাকমা

বাঘাইছড়ি থানার এসআই সাঈদ’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি ঘটনাস্থল থেকে দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করেছি। ময়নাতদন্তের জন্য খাগড়াছড়ি জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হবে।

বাঘাইছড়ি উপজেলার জেএসএস এমএন লারমা দলের সাধারণ সম্পাদক জোসি চাকমা বলেন, দুইকিলো নামক স্থানে জেএসএস সন্তু লারমা সশস্ত্র সদস্য এসে গণতন্ত্র ইউপিডিএফ পরিচালক জানং চাকমাকে গুলি করে হত্যা করে। এবং তাদের গুলিতে তাদের সশস্ত্র সদস্য তজিম চাকমা নিহত হয়েছেন। আমি এই হত্যাকাণ্ডের জন্য তীব্র নিন্দা জানাই এবং দোষী ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার করে আইনে আওতায় আনার জন্য সরকারের নিকট জোর দাবি করছি।

জেএসএস সন্তু লারমা দলের সাধারণ সম্পাদক ত্রিদিপ চাকমা ওরফে দীপ বাবুর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমাদের দলে কোন সন্ত্রাসী অস্ত্রধারী মানুষ নাই আমরা চুক্তি বাস্তবায়নের কাজ করছি। আমরা মানুষের জন্য কাজ করছি। আমি এই হত্যাকাণ্ডের জন্য তীব্র নিন্দা জানাই।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × 5 =

আরও পড়ুন