মানিকছড়িতে ভিজিডি’র উপকারভোগী নির্ণয়ে উন্মুক্ত বাছাই

fec-image

বাংলাদেশ সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমের আওতায় অতি দরিদ্র মহিলাদেরকে ‘স্বনির্ভরতার জন্য সহায়তা’র অংশ হিসেবে দুঃস্থ মহিলা উন্নয়ন (ভারনারেবল গ্রুপ ডেভেলপমেন্ট-ভিজিডি) কর্মসূচিতে দুই বছর মেয়াদী পরিবার প্রতি মাসে ৩০ কেজি চাউল সুবিধার উপকারভোগী বাছাই পর্বে মানিকছড়ি উপজেলা প্রশাসন প্রকৃত উপকারভোগীর তথ্য যাচাই-বাছাই শুরু করেছে।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক অফিস সূত্রে জানা গেছে, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়াধীন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর মাঠ পর্যায়ে বাংলাদেশ সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমের আওতায় অতি দরিদ্র মহিলাদেরকে ‘স্বনির্ভরতার জন্য সহায়তা’র অংশ হিসেবে দুঃস্থ মহিলা উন্নয়ন( ভারনারেবল গ্রুপ ডেভেলপমেন্ট-ভিজিডি) কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। প্রতি দুই বছর মেয়াদী পরিবার প্রতি মাসে ৩০ কেজি চাউল সুবিধার এ কর্মসূচীতে উপকারভোগী বাছাই পর্বে মানিকছড়ি উপজেলা প্রশাসন তৃণমূলে প্রকৃত তথ্য যাচাই-বাছাই শুরু করেছে।

রবিবার (১৮ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৯টায় উপজেলা চেয়ারম্যান মো. জয়নাল আবেদীন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার তামান্না মাহমুদ, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মো. কামরুল আলম এর নেতৃত্বে ৪ নং তিনটহরী ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে এ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। এ সময় ইউপি চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদ উপস্থিত থেকে উপকারভোগী বাছাইয়ে সর্বাধিক সহযোগিতা করেন। আগামি ২০২১-২০২২ দুই বছর ব্যাপি দুঃস্থ মহিলা উন্নয়ন( ভারনারেবল গ্রুপ ডেভেলপমেন্ট-ভিজিডি) কর্মসূচীতে মানিকছড়ি উপজেলা চার ইউপি’তে মোট উপকারভোগী সংখ্যা হবে ১ হাজার ৪শত ৬৪ জন। এর মধ্যে ১ নং মানিকছড়ি ইউপিতে ৫শত জন , ২নং বাটনাতলী ইউপি’তে ২শত ৯০ জন, ৩ নং যোগ্যাছোলা ইউপিতে ৩ শত ৯ জন এবং ৪ নং তিনটহরী ইউপিতে ৩শত ৬৫ জন।

ফলে তৃণমূল থেকে প্রকৃত সুবিধা/ উপকারভোগী বাছাই করতে ওয়ার্ড ভিত্তিক অতি দরিদ্র মহিলাদেরকে উপস্থিত রেখে উন্মুক্তভাবে বাছাই প্রক্রিয়ায় স্বস্তি প্রকাশ করেছেন উপস্থিত সুবিধা প্রত্যাশিরা। অতি দরিদ্র গৃহিনী মোসাঃ আয়েশা বেগম বলেন, আমার সংসারে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ৩ কন্যা সন্তান। স্বামী একটি বেসরকারী কোম্পানীতে ৪র্থ শ্রেণির পদে চাকুরী থাকাকালে করোনাকালীণ সময়ে দুর্ঘটনায় পতিত হয়ে পঙ্গুত্ববরণ করেন। সরকারের এই মহৎ কর্মসূচীতে যদি উপকারভোগী হিসেবে অর্ন্তুভুক্ত হতে পারি তাহলে হয়তো জীবনটায় স্বস্তি আসবে।

তিনটহরী ইউপি চেযারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, সরকারের মহৎ উদ্যোগকে কেউ যাতে প্রশ্নবিদ্ধ করতে না পারে, সেজন্যই ওয়ার্ড পর্যায়ে প্রচার-প্রচারণার মাধ্যমে অতি দরিদ্র , দরিদ্র ও দুঃস্থ সকল মহিলাদের( ২৫-৪৫ বয়সী) উন্মুক্ত বাছাই পর্বে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে। এখান থেকে সকলের সামনে
কোটা অনুযায়ী সুবিধাভোগী/ উপকারভোগী বাছাই করা হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার তামান্না মাহমুদ বলেন, সরকারের এই কর্মসূচিতে প্রকৃত উপকারভোগী বাছাই করতে আমরা বিগত সময়েও একইভাবে তৃণমূল থেকে সুবিধাভোগী খুঁজে এনেছি। এতে প্রকৃত প্রাপ্যতা নিশ্চিত হয়।

উপজেলা চেয়ারম্যান মো. জয়নাল আবেদীন বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার প্রধান বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা জনগণের কথা ভাবে বলেই আজ ভিজিডি কর্মসূচির তালিকা বাছাই নিখুঁত করতে আমাদের এই প্রয়াস।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

19 + three =

আরও পড়ুন