সামান্য বৃষ্টি ও ঢলের পানিতে মহালছড়ি কলেজে ক্ষয়ক্ষতি, যান চলাচল বন্ধ

fec-image

সামান্য বৃষ্টি হলেই পাহাড়ি ঢলের পানিতে ডুবে যায় মহালছড়ি সরকারী কলেজ। তখন কলেজের প্রতিটি কক্ষে পানি ঢুকে প্রতি বছর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও ফার্ণিচারের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এদিকে ঢলের পানি নেমে আসলে ২৪ মাইল নামক জায়গা প্লাবিত হয়। ফলে খাগড়াছড়ি-রাঙ্গামাটি- মহালছড়ি সদরের সাথে সকল যানবাহন চলাচল ২-৩ ঘন্টা বন্ধ থাকে। এ সময় পথচারীদের চরম দুর্ভোগে পড়তে হয়।

শনিবার (২৪ জুলাই) দুপুর দেড়টার দিকে মহালছড়ি কলেজে গিয়ে দেখা যায়, সামান্য বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে মহালছড়ি কলেজ ও মহালছড়ি সদরে যাওয়ার একমাত্র সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে।

স্থানীয় এক পথচারী কান্তি মারমা বলেন, প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত পথচারী ও স্থানীয় জনসাধারণের এ ভোগান্তি পোহাতে হয়। সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিরা পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দিলেও আজ অবধি কোন সুফল পাওয়া যায়নি।

মহালছড়ি সরকারী কলেজ এর অধ্যক্ষ ফরিদুল আলম চৌধুরী একমাত্র খাল খনন না হওয়াকে দায়ী করে বলেন, পার্শ্ববর্তী খালটি খনন না করায় ২০১৫ সাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত এ দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। প্রতিবছর বর্ষা মৌসুম এলেই কলেজের আসবাবপত্র, কক্ষের ফ্লোরসহ একাডেমিক ভবনের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। তিনি আরও বলেন, খাল খননের জন্য বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করা হয়েছে। কিন্ত আজ অবধি খাল খনন করার কোন লক্ষণ দেখতে পাচ্ছিনা। খাল খনন না হওয়া পর্যন্ত এ ভোগান্তি শেষ হবেনা বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এ বিষয়ে মহালছড়ি উপজেলা পরিষদ এর ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে খাল খননের জন্য গত বছর পরিদর্শনে এসেছিলেন এবং অতি দ্রুত খাল খননের কাজ করার আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু এরপর থেকেই আজ অবধি কোন সাড়া পাওয়া যায়নি। তিনি আরও বলেন, নিজ উদ্যেগে যতটুকু সম্ভব খালের উপড় পড়ে থাকা ময়লা আবর্জনা পরিষ্কার করেছি। সবটুকুতো আর তার একার পক্ষে সম্ভব নয় বলে জানান।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 + ten =

আরও পড়ুন