গর্জনিয়া বাজারে অভিযানের খবর পেয়ে দোকান বন্ধ করে পালিয়েছে ব্যবসায়ীরা

fec-image

করোনা ভাইরাসের অজুহাতে গত ক’দিন ধরে মনগড়া দ্রব্যমূল্য বাড়িয়ে পরিবেশ নষ্টকারী সেই অসাধু ব্যবসায়ীরা রামু ইউএনও’র অভিযানের খবর পেয়ে দোকান বন্ধ করে পালিয়ে যায়। অভিযান শেষ হলে সেই ব্যবসায়ীরা পূনরায় ফিরে আসে যথাসময়ে। আর এ নিয়ে পুরো এলাকায় আলোচনা-সমালোচনা চলে ভোক্তাদের মাঝে। ২৩ মার্চ (সোমবার) সকাল সাড়ে ১১ টায় রামু উপজেলার গর্জনিয়া বাজারে এঘটনা ঘটে। এ বাজারে ছোট-বড় দোকানের সংখ্যা প্রায় হাজারাধিক।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, বাজার বড় আর ক্রেতা বেশি হওয়ার সুবাদে করোনা ভাইরাসের বিষয়টি যেদিন থেকে ব্যাপকভাবে প্রকাশ পায় সে দিন থেকেই অধিকাংশ ব্যবসায়ী বেপরওয়া হয়ে যায়। চাল-ডাল, পেয়াজ, রসুন, চিনি ও নিত্য প্রযোজনীয় পণ্যসামগ্রীর মূল্য দ্বিগুন বা মাত্রাতিক্ত বাড়িয়ে ফেলে। মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে পড়ে এতে। যেহেতু বাজারটি জেলা শহর থেকে অনেক দূরে। আর রামু উপজেলা থেকে ভিন্ন উপজেলা পার হয়ে আসতে হয়-সেহেতু যে কোন অপরাধ দমনে প্রশাসনের লোকজন মাঠে নামতে সময় লাগে এ বাজারে। আর এ সুযোগটি লূফে নেন অসাধু ব্যবসীরা। এ খবর পৌঁছলে অভিযানে নামে প্রশাসন।

তারা আরো বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার অভিযানের জন্যে গর্জনিয়া বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করবে খবর রটে গত রোববার থেকেই। কিন্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার ব্যস্ত থাকায়
পরের দিন গতকাল সোমবার অভিযানে নামেন। কিন্ত ধূর্ত ব্যবসায়ীরা এরই মধ্যে সটকে পড়েন দোকান বন্ধ করে।

প্রত্যক্ষ্যদশী আবুল কালাম, মনির আহমদ, আবুল শাহমা জানান, ইউএনও পৌঁছার ২০ মিনিট পূর্বেই অসাধু ব্যবসায়ী আবদুল বারী সওদাগরের ছেলে মামুন, মোজাফ্ফর সওদাগরের ভাই মোবশ্বের আহমদ, পেঠান সওদাগরের ছেলে মোহাম্মদ হোছন সহ অসংখ্য বড় দোকানী দোকান বন্ধ করে পালিয়ে যান আত্ম-গোপনে। পরে অভিযান শেষ করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার চলে গেলে তারা পূনরায় দোকান খুলে বসেন।

 অভিযান পরিচালনার সময় হাতে গুনা দোকানীর মধ্যে সিরাজ সওদাগর ও আবু সফিয়ান সওদাগরের দোকানে মূল্য তালিকা বিষয়ে দু’জনকে ৮ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমান আদালত। আদালতের বিজ্ঞ বিচারক এক পর্যায়ে গর্জনিয়া বাজারের পশুর হাটটি বন্ধ করতে ইজারাদার ও ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগ সাধারণ সম্পাদক শাহ আলমকে আদেশ দেন।

রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক প্রনয় চাকমা সাংবাকিদের কে বলেন,
অভিযান শেষ নয়-শুরু মাত্র। অসাধু ব্যবসায়ীদের ছাড় নেই। করোনা ভাইরাস বিষয়ে তিনি সকলকে সজাগ থাকতেও নির্দেশ প্রদান করেন এ সময়।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

thirteen + 6 =

আরও পড়ুন