গুইমারায় ম্রাইমুনি বৌদ্ধ বিহার নাশকতা নয় সৌর বিদ্যুতের ব্যাটারী বিষ্ফোরণে পুড়ে ছাই

খাগড়াছড়ি জেলার গুইমারা উপজেলাস্থ বটতলী মাষ্টার পাড়া ম্রাইমনি বৌদ্ধ বিহারটি সৌর বিদ্যুতের ব্যাটারী বিষ্ফোরণের ধরে যাওয়া আগুনে পুড়ে ছাই হয়েছে। শুক্রবার বিকাল সাড়ে তিনটায় এ দূর্ঘটনা ঘটে।

এসময় বিহারে থাকা ছয়টি বৌদ্ধ মূর্তি, নগদ দুই লক্ষ টাকা, বিহারের ভান্তে আগাছাড়া (মুক্তি যোদ্ধা মংসাজাই মারমার) মুক্তিযোদ্ধা সনদসহ বিহারের যাবতীয় মালামাল পুড়ে ছাঁই হয়ে যায়।

এদিকে বিহারটি পুড়ে যাওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ ঘটনার জন্য নাশকতাকে দায়ী করে প্রচার প্রপাগাণ্ডা চালিয়ে এলাকায় সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টির পাঁয়তারা চালায় একটি মহল। এর প্রেক্ষিতে রাতেই পার্বত্যনিউজের পক্ষ থেকে সরেজমিন তদন্তের জন্য প্রতিনিধি প্রেরণ করা হয়।

অনুসন্ধানে দেখা যায়, বিহারটি অত্যন্ত দুর্গম এলাকায় অবস্থিত। আশেপাশে ৬ কি.মি. মধ্যে কোনো বাঙালি বসতি নেই।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিহারে থাকা বৌদ্ধ মূর্তিসহ সব পুড়ে গেছে। তবে বিহারটি বাঁশ ও কাঠ দ্বারা সাধারনভাবে নির্মিত ছিলো। ফলে সহজ দাহ্য হওয়ায় আগুনের হাত থেকে কিছুই রক্ষা করা যায় নি। আগুনে পুড়ে টিনগুলো পড়ে আছে। বিহারের বয়স্ক ভান্তে বিহারের মায়ায় কাঁদছেন।

বিহারের ভান্তে আগাছড়া ভিক্ষু্ জানান, হঠাৎ সৌর বিদ্যুতের ব্যাটারী ফেটে আগুন ধরে যায়। আগুনে বিহারের সব কিছু পুড়ে ছাঁই হয়ে যায়। তার ধারণা মতে, ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আনুমানিক ৩লক্ষ টাকা। তিনি বিহারটি পূণঃনির্মানে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছেন।

স্থানীয় সমাজ কর্মী থোইয়ো মারমা জানান, হঠাৎ ব্যাটারী বার্স্ট হয়ে আগুন ধরে বিহারটি পুড়ে শেষ হয়ে গেছে। এলাকার স্বার্থে বিহারটি নির্মাণ জরুরি।

গুইমারা থানা অফিসার ইনচার্জ বিদ্যুৎ বড়ুয়া জানান, বিহারটি পুড়ে গেছে এটা সত্য। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: অগ্নিকাণ্ড, মন্দিরে আগুন
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × 3 =

আরও পড়ুন