টেকনাফে অন্যতম স্বেচ্ছাসেবী ও দাতব্য প্রতিষ্ঠান হ্নীলা গুলফরাজ-হাশেম ফাউন্ডেশনের ২০ বছর পদার্পণ

টেকনাফ প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের টেকনাফে অন্যতম স্বেচ্ছাসেবী ও দাতব্য প্রতিষ্ঠান হ্নীলা গুলফরাজ-হাশেম ফাউন্ডেশনের ২০ বছর পদার্পণ উপলক্ষ্যে আয়োজিত সম্মাননা ও কৃতি ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান সম্পন্ন সম্পন্ন হয়েছে।

শুক্রবার (৩০মার্চ) উপজেলার হ্নীলা ফুলের ডেইল গুলফরাহ-হাশেম ফাউন্ডেশনের ২০ বছরপূর্তি উপলক্ষ্যে সকাল ৯টায় জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে জাতীয় ও সাংগঠনিক পতাকা উত্তোলন করা হয়। এরপর শুরু হয় নির্ধারিত চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম।

সকাল ১১টায় মিলনায়তনে সম্মাননা ও কৃতি ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে বৃত্তি প্রদান উপলক্ষ্যে এক আলোচনা সভা ফাউন্ডেশন সভাপতি সফিক আহমদ বি,কমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। শুভাকাংখীন ও ফাউন্ডেশনের চট্টগ্রাম সদস্য বখতিয়ার উদ্দিনের সঞ্চালনায় ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. শিরিন আকতার।

বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সমাজ-বিজ্ঞান অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. ফরিদ উদ্দিন আহামেদ, চট্টগ্রামস্থ মেডিকেল এসোসিয়েশনের প্রাক্তন জেনারেল সেক্রেটারী ডা. খুরশিদ জামিল চৌধুরী, চট্টগ্রাম ইন্টার ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক ডা. মো. আমির হোসেন, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের কিডনী রোগ বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. এমএ কাশেম, বিআইটিআইডি অবসর প্রাপ্ত পরিচালক ডা. আবু তৈয়ব, চট্টগ্রাম ভাইটাল রিচার্জের চেয়ারম্যান ডাঃ নিয়াজ মোহাম্মদ হায়দার, টেকনাফ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা রফিক উদ্দিন, হ্নীলা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ এইচকে আনোয়ার, রাজনৈতিক ও সামাজিক ব্যক্তিত্ব কবি আদিল উদ্দিন চৌধুরীসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

এ অনুষ্ঠানে ফাউন্ডেশনে বিগত ২০ বছরের কার্য্যক্রমের সফলতা এবং আগামী দিনের সম্ভাব্য পরিকল্পনা নিয়ে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রতিষ্ঠাতা ডা. জামাল আহমেদ। স্বাগত বক্তব্য শেষে ২০১৭ সালে গুহাফা বৃত্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ, কম্পিউটার কোর্স উত্তীর্ণ, গরীব ও মেধাবী ১শ ২৪জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে নগদ টাকা, ক্রেস্ট, সনদ এবং শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে চবির প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর ড. শিরিন আকতার বলেন , দেশের রাজধানী ও বিভাগীয় শহরে এত মহান এবং দানবীর লোকজনের বসবাস। হাতে-গোনা কিছু মানুষ সাধারণ মানুষের জন্য নিঃস্বার্থভাবে কাজ করে তাদের মধ্যে ডা. জামাল আহমদ একজন।

টেকনাফের প্রত্যন্ত অঞ্চলে গুলফরাজ-হাশেম ফাউন্ডেশন চিকিৎসা সেবা, গরীব-মেধাবী শিক্ষার্থীদের বিশেষ বৃত্তি প্রদান করে শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি করছে। এছাড়া যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলার জন্য কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কোর্স চালু এবং গণপাঠাগার স্থাপন করে জ্ঞানের আলো ছিটিয়ে সমাজ ও দেশকে আলোকিত করে চলেছে। সমাজের বিত্তবান ও দানবীরদের ডা. জামাল আহমদকে অনুসরণ করে দেশ ও জাতির সেবায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

বার্ষিক চিকিৎসা শিবিরে মেডিসিন, নাক কান গলা, ডায়াবেটিস, স্ত্রীরোগ, হৃদরোগ, চর্ম ও যৌনরোগ, সার্জারী ও কর্ণছেদনসহ প্রায় সহস্রাধিক রোগীকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। সর্বশেষে গত ২০বছরের স্বেচ্ছাসেবক, শুভাকাংখী, সেবাগ্রহণকারী, চিকিৎসা সেবা দানকারী এবং ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তাদের নিয়ে বিশেষ স্মৃতিচারণমূলক অনুষ্ঠান “ফিরে দেখা” অনুষ্ঠিত হয়। এসময় বিগত ২০ বছর ধরে ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবী কর্মকাণ্ডে সার্বিক সহযোগিতার জন্য কর্মী ও সদস্যদের বিশেষ পুরস্কারসহ মেডেল প্রদান করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

10 + fifteen =

আরও পড়ুন