থানচি উপজেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ

fec-image

জ্বালানি তেল, পরিবহন ভাড়াসহ দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, পুলিশের গুলিতে ছাত্রদল নেতা নূরে আলম ও স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা আব্দুর রহিমকে হত্যার প্রতিবাদে বান্দরবানের থানচি উপজেলায় বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে।

মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর ) সকাল ১০টার দিকে থানচি উপজেলা বলিপাড়া বাজার প্রাঙ্গণে এই বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এতে নেতৃত্ব দেন বান্দরবান বিএনপির সভানেত্রী মাম্যাচিং। থানচি উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মংম্রাসিং মারমার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন বান্দরবানে বিএনপির সভানেত্রী ও সাবেক সাংসদ মাম্যাচিং।

সমাবেশে প্রধান অতিথি মাম্যচিং বলেন, ‘কেন্দ্রীয় কর্মসূচি বাস্তবায়নে এ সরকার পতনের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনে যোগ দিন, সফল করুন।’

থানচিবাসীকে আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারের অবিলম্বে পদত্যাগ দাবি করেন এবং অবিলম্বে একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন করে সকল দলের অংশগ্রহণ, ইভিএম ছাড়া একটি গ্রহণযোগ্য সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে। এ জন্য দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার ঘোষণা দেন তিনি।’

সারাদেশে, হত্যা, গুম, খুন, রাহাজানি’র রাজনৈতিক মামলা কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের নিজেই স্বীকার করে বলেছেন যে সমস্ত নেতারা হাজার হাজার টাকা লুট করে পাচার করেছেন-তাদের আওয়ামী লীগে জায়গা হবে না। এই বক্তব্যের মাধ্যমে ওবায়দুল কাদেররা স্বীকার করে নিয়েছেন যে, আপনারা হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করে বিদেশে পাচার করেছেন।’

বিএনপি সভানেত্রী আরো বলেন, ‘বাংলাদেশ বর্তমানে একটি কঠিন সময় পার করছে। আমরা একটি ক্রান্তিকাল অতিবাহিত করছি। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ১৯৭৫ সালে একবার গণতন্ত্রকে গলাটিপে হত্যা করেছিল। আবারো ক্ষমতায় এসে এক যুগ ধরে তারা দেশের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে একটি স্বৈরাচার রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। বিএনপি নেতাকর্মীদের সু-সংগঠিত আন্দোলনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ সরকারের পতন ঘটিয়ে আগামী ২০২৩ সালের মধ্যে হারিয়ে যাওয়া সেই গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনা হবে। এ জন্য তরুণদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।’

আওয়ামী লীগ সরকারকে উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আপনারা নির্যাতন করছেন, খুন করছেন, গুম করছেন। তার প্রমাণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মানবাধিকার রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার যে বিচার, সেই বিচার রাজনৈতিক বিচার হয়েছে, তাকে যে কারাগারে দেওয়া হয়েছে-সেটি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে দেওয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকার বিচার বিভাগকে ধ্বংস করেছে, প্রশাসনকে ধ্বংস করেছে, সংবাদ মাধ্যমকে দলীয়করণ করেছে।’

বিশেষ অতিথি সাবেক জেলা পরিষদের সদস্য লুসাইমং বলেন, ‘সমস্ত দেশকে পৈত্রিক সম্পত্তি বানিয়ে দেশকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে গেছে। এই পরিস্থিতিতে দেশের মানুষ এখন বিএনপির দিকে তাকিয়ে রয়েছে। তাই দেশের মানুষের কথা বিবেচনা করেই দায়িত্বশীল দল হিসেবে বিএনপির নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন গড়ে তুলে এই জালিম সরকারের পতন ঘটাতে ঐক্যবদ্ধ হন।’

সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বান্দরবান জেলা বিএনপি সহ-সভাপতি লুসাইমং মারমা, সাধারণ সম্পাদক মো. জাবেদ রেজা, সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন, পৌর বিএনপি সভাপতি চনুমং মারমা, শান্তিজয় ত্রিপুরা, নুচমং মারমা, মংপ্রুসে মারমা প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: থানচি, প্রতিবাদ সমাবেশ, বিএনপি
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

six − four =

আরও পড়ুন