পেকুয়ায় বসতবাড়ির সীমানা নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ৩

fec-image

কক্সবাজারের পেকুয়ায় বসতবাড়ির সীমানা নিয়ে সংঘর্ষে উভয় পক্ষে ৩ জন আহত হয়েছে। আহতদের কে স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

১ অক্টোবর সকাল ৮টায় উপজেলার সদর ইউনিয়নের মোরার পাড়া এলাকার মৃত আবদুল জলিলের দুই ছেলে শাহ জামাল ও নুর মোহাম্মদের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়। এ সময় আহত হয় শাহ জামাল(৬০) ও তার স্ত্রী সাজেদা বেগম (৪০), নুর মোহাম্মদ(৫৯), তার স্ত্রী সাজেদা বেগম (৫০)।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শাহজামাল ও তার আপন ছোট ভাই নুর মোহাম্মদের মধ্যে বসতবাড়ির জায়গা ও কিনা জমির ভাগ নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে স্থানীয় সাবেক এমইউপি জকরিয়াসহ সাবেক কয়েকজন এমইউপি ও উভয় পক্ষকে নিয়ে কাগজপত্র পর্যালোচনা করে একটি সমঝোতায় উপনীত হয়। পরে জায়গা জমি বুঝিয়ে দিতে বললে শাহজামাল গং তা গড়িমসি করে এবং ওই বিচার মানবে না বলে জানিয়ে দেয়।

এদিকে আহত শাহজামাল জানান, আমরা ভাই ভাইয়ের মধ্যে বসতবাড়ির জায়গা নিয়ে বিরোধ চলছে। আমার জায়গায় কাজ করতে গেলে নুর মোহাম্মদ, তার স্ত্রী সাজেদা, হাফেজ আতিক সহ আরো কয়েকজন লোক এসে আমাকে মারধর করে। এ সময় আমাকে বাঁচাতে আমার স্ত্রী সাজেদা বেগম এগিয়ে আসলে তারা তাকেও মারধর করে গুরুতর আহত করে। আমার ভাই নুর মোহাম্মদ অহয়েতুক ভাবে আমার কিনা জমির ভাগ দাবি করে বিচার বসায়েছে। আমার টাকায় কিনা জমি কেন তাকে ভাগ দিতে যাবো। এমনকি সে লোকজন নিয়ে আমার বসতবাড়ির জায়গা দখল করার চেষ্টা করছে।

অপরদিকে তার ভাই নুর মোহাম্মদ বলেন, শাহ জামাল ও পুত্র হেলাল লোকজন নিয়ে আমার দখলীয় জমিতে দখল করতে আসে। এ সময় আমি বাধা দিলে আমাকে মারধর করে তারা। আমার চিৎকারে আমার স্ত্রী সাজেদা বেগম এগিয়ে আসলে তাকে লোহার রড দিয়ে মারধর করে গুরুতর আহত করে। সাজেদা বেগম কে আহত অবস্থায় দৌড়ে গিয়ে গলা চেপে ধরে চড়তাপ্পর মেরে মাটিতে ফেলে দেয় এবং মুখমন্ডলে গুরুতর আহত করে।

তিনি আরো বলেন, চৌধুরী ঘোনা ৭২২নং বিএস খতিয়ানের জমি আমাদের যৌথ পরিবারে থাকা অবস্থায় বড় ভাই শাহ জামালের নামে কিনে। উক্ত জমি আমার ২ ভাইকে নাম ভাঙ্গিয়ে দিলেও আমাকে নাম ভাঙ্গিয়ে দিচ্ছে না। উক্ত খতিয়ানে ২০ শতক জমি প্রাপ্ত হয়। এছাড়াও বসতবাড়ির পুকুর শ্রেণির ৫.৫০ শতক জমি প্রাপ্ত হয়। নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প মুলে শাহ জামাল থেকে কিনা হয় ১০ শতক জমি।

এসব জায়গা বুঝিয়ে দিতে বললে শাহজামালের পুত্র পল্লী চিকিৎসক হেলাল আওয়ামী লীগের প্রভাব খাটিয়ে বলে জমি দিবে না এবং কোন বিচার শালিশ সে বুঝে না। কেউ জায়গা দখল করার চেষ্টা করলে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

এ বিষয়ে পেকুয়া থানার ওসি তদন্ত কানন সরকার জানান, ঘটনার খবর পেয়েছি তবে কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 × 3 =

আরও পড়ুন