মহেশখালীতে বিএনপির দু’গ্রুপের পাল্টাপাল্টি অবস্থান, নিরব আ. লীগ

fec-image

জ্বালানি তেল, পরিবহন ভাড়াসহ সকল দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি এবং ভোলায় পুলিশ কর্তৃক গুলি করে ছাত্রনেতা নুরে আলম ও স্বেচ্ছাসেবক দলনেতা আব্দুর রহিম হত্যার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় ঘোষিত কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে কক্সবাজারের মহেশখালীতে বিএনপির দু’গ্রুপের বিরোধ চরম আকারে রূপ নিয়েছে। বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও দু’বারের সাবেক এমপি আলমগীর ফরিদ গ্রুপ ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবু বক্কর ছিদ্দিক গ্রুপের প্রতিদিন পাল্টা-পাল্টি কর্মসূচিতে হিমসিম খাচ্ছে বিএনপিসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সূত্রে জানা যায়, ২৯ আগস্ট বিকাল ৪ টায় আলমগীর ফরিদ গ্রেপের গোরকঘাটায় বিক্ষোভ মিছিলের জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে অন্যদিকে আবু বক্কর ছিদ্দিক গ্রুপের আগামী ৩০ আগস্ট বিক্ষোভ মিছিল করার জন্য ঘোষণা দিয়েছে। এই নিয়ে দু’গ্রুপের পাল্টাপাল্টি অবস্থান নিয়েছে।

এদিকে প্রতিদিন বিভিন্ন কর্মসূচিতে নিজ দলের নেতাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন করুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে চলছেন বিএনপির নেতারা। একজন আরেকজনকে ঠেকাতে মরিয়া। অশ্লীল বাক‍্য বলতেও দ্বিধা করছেনা বিএনপির একটি অংশ। এতেই হতাশ হয়ে পড়েছেন তৃণমূল বিএনপিসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। তারা জানান, বিএনপির এই সংকটময় মুহূর্তে নিজ দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে বিভাজন সৃষ্টি করে দিচ্ছে নেতারা। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দেশের বিভিন্ন প্রান্তে নিজ দলের সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কর্মসূচির ডাক দিলেও তা মানছে না মহেশখালীতে। ফলে এ বিরোধ চরম আকারে রূপ নিচ্ছে। যে কোন মুহূর্তেই দু-গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ রেগে যেতে পারেন বলে করেন নেতাকর্মীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মহেশখালী উপজেলা বিএনপির সিনিয়র একজন নেতা বলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী সালাহ উদ্দিন আহমেদ ও মহেশখালী-কুতুবদিয়ার দু’বারের এমপি আলমগীর ফরিদের দীর্ঘদিনের বিরোধের জন্য মহেশখালীতে বিএনপির দু’গ্রুপের সৃষ্টি হয়েছে। দলের এই সময়ে যদি তাদের বিরোধ নিরসন না করে তাহলে মহেশখালীতে বিএনপি দুর্বল হয়ে যাবে এবং আওয়ামী লীগ আরও শক্তিশালী হয়ে যাবে।

উপজেলা বিএনপির নেতা আবুল কালাম আজাদ বলে, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মতে কাজ করে যাচ্ছি৷ আগামী নির্বাচনে যাকে মনোনয়ন দিবে তার পক্ষে কাজ করে যাব।

উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবু বক্কর ছিদ্দিক বলেন, আমরা জেলা ও কেন্দ্রীয় বিএনপির নির্দেশনায় মহেশখালীতে বিভিন্ন মিছিল মিটিং করে কাজ করে যাচ্ছি। অন্য একটি গ্রুপ ভুয়া কমিটির মাধ্যমে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের কমিটি অবৈধ বলেও জানান তিনি।

বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক এমপি আলমগীর ফরিদ জানান, মহেশখালী-কুতুবদিয়া বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। দলের জন্য অতীতেও সুখে-দুঃখে কাজ করে গেছি, এখনও নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে কাজ করছি। আমার নেতৃত্বে ছাত্রদল, যুবদলসহ বিএনপির অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা ঐক্য বদ্ধ হয়ে কাজ করে যাচ্ছে এবং সামনে সকল কর্মসূচি চালিয়ে যাব।

এদিকে বিএনপির বিভিন্ন গ্রুপে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি অব্যহত থাকায় এলাকার আইনশৃঙ্খলার অবনতি হওয়ার আশঙ্কা করছেন অনকেই৷

এ অবস্থায় মহেশখালী থানার ওসি প্রণব চৌধুরী বলেন, বিএনপির দুইটি গ্রুপ একদিন পর পর কর্মসূচি দিচ্ছে। যাতে কেউ কোন ধরনের অপ্রতিকর ঘটনা ঘটাতে না পারে তার জন্য পুলিশ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে। কেউ আইনশৃঙ্খলা অবনতি করার চেষ্টা করলে কঠোর আইনি পদক্ষেপ এর মুখোমুখি করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আওয়ামী লীগ, বিএনপির, মহেশখালী
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 − one =

আরও পড়ুন