মাটিরাঙ্গায় চিকিৎসকের অবহেলায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ

fec-image

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় চিকিৎসকের অবহেলায় জিয়াউল হক (৬৫) প্রকাশ জিয়া মোল্লা নামের এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তিনি মাটিরাঙ্গা পৌরসভার মুসলিমপাড়া এলাকার বাসিন্দা। বুধবার (৩ নভেম্বর) বিকালের দিকে জেলার মাটিরাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় নিহতের স্বজনেরা বেলা চারটা থেকে সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (সেকমো) দিপঙ্কর ধর ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. খায়রুল আলমকে দেড় ঘন্টা অবরুদ্ধ করে রাখে। তারা কর্তব্যে অবহেলায় দিপঙ্কর ধরসহ এ দুই চিকিৎসকের অপসারন দাবি করে।

নিহত জিয়াউল হক প্রকাশ জিয়া মোল্লার ছেলে মো. আল আমিন বলেন, দুপুরের দিকে আমার বাবা অসুস্থ হয়ে পড়লে আমরা তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে আসি। এসময় ইমারজেন্সিতে উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (সেকমো) দিপঙ্কর ধর কর্তব্যরত ছিলেন। এসময় তিনি আমার বাবার চিকিৎসা না করে মোবাইল ফোনে কথা বলেন। আমার বাবার খুব শ্বাসকষ্ট হলে আমি বারবার চিকিৎসা দেয়ার অনুরোধ করলে তিনি ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ বলেন। ইমারজেন্সী রুমে গ্যাস সিলিন্ডার থাকলেও তিনি আমার বাবাকে অক্সিজেন দেননি। আমি মাস্ক নিয়ে আসলে তিনি আমার বাবাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন। বাবাকে হাসপাতালের বেডে নিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে তিনি মারা যান।

এদিকে জিয়াউল হক প্রকাশ জিয়া মোল্লার মৃত্যুর মৃত্যুর খবরে তার স্বজনসহ স্থানীয়রা হাসপাতালে ভীড় করে। এসময় তারা তার মৃত্যুর জন্য কর্তব্যরত চিকিৎসককে দায়ী করে তার শাস্তি দাবি করেন। খবর পয়ে সেনাবাহিনী ও পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় হাসপাতালে ছুটে যান মাটিরাঙা পৌরসভার মেয়র মো. শামছুল হক।

মাটিরাঙা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আলী বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ফোর্স নিয়ে আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি। এসময় নিহতের স্বজনসহ চিকিৎসকদের সাথে কথা বলেছি।

অভিযুক্ত চিকিৎসক দীপঙ্কর ধর চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, রোগীর কন্ডিশন খুবই খারাপ ছিল। ফোনে কথা বলার বিষয়ে তিনি বলেন, রোগী আসার পর পর আমি ফোন কেটে দেই। তখন ইমারজেন্সীতে আরও তিনজন চিকিৎসক উপস্থিত ছিলেন ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাটিরাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. খায়রুল আলম বলেন, চিকিৎসকের অবহেলায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ সত্য নয়। উর্ধ্বতন কর্তপক্ষের সাথে কথা হয়েছে। দায়িত্ব পালনে গাফেলতি থাকলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × five =

আরও পড়ুন