“মিয়ানমারের সেনাবাহিনী দেশটির রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর ‘জাতিগত শুদ্ধি অভিযান’ চালানোর পাশাপাশি ‘মানবতা বিরোধী অপরাধ’ করেছে।”

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করুন: জাতিসংঘের আহ্বান

 

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর সঙ্গে সব ধরনের সহযোগিতা বন্ধ করার জন্য বিশ্ব সমাজের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। এই বিশ্ব সংস্থার তদন্ত কমিটি বুধবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী দেশটির রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর ‘জাতিগত শুদ্ধি অভিযান’ চালানোর পাশাপাশি ‘মানবতা বিরোধী অপরাধ’ করেছে। কাজেই বিশ্ব সমাজকে এই সেনাবাহিনীর সঙ্গে সহযোগিতা বন্ধ করতে হবে।

জাতিসংঘের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের রাখাইন (সাবেক আরাকান) প্রদেশে জাতিগত শুদ্ধি অভিযানের কারণে ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা মুসলমান দেশত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছে। এতে আরো বলা হয়েছে, ২০‌‌১৭ সালে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর গণহত্যা অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে এই মুসলিম জাতির ভাগ্য উন্নয়নের কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।

জ্বালিয়ে দেয়া মুসলিম গ্রাম অতিক্রম করছে মিয়ানমারের একদল সেনা সদস্য  মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইন প্রদেশে রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে ভয়াবহ গণহত্যা অভিযান শুরু করে। তাদের সঙ্গে যোগ দেয় উগ্র বৌদ্ধরা। এই দুই পক্ষের সম্মিলিত আক্রমণে ৩৫০টিরও বেশি মুসলিম গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়া হয়। নিহত হন হাজার হাজার রোহিঙ্গা মুসলমান এবং ধর্ষিত হন হাজার হাজার রোহিঙ্গা নারী।

জাতিসংঘের তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিতাড়িত রোহিঙ্গা মুসলমানরা প্রতিবেশী বাংলাদেশের কক্সবাজারের বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে মানবেতর জীবনযাপন করছে এবং তাদের স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের জন্য আন্তর্জাতিক সমাজের এগিয়ে আসা উচিত।

সুত্র: পার্সটুডে

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: জাতিসংঘের আহ্বান, মিয়ানমার, সেনাবাহিনীর
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 − 7 =

আরও পড়ুন